Header Ads

৩৫০ চীনা সেনার বিরুদ্ধে লড়েছিল ভারতের ১০০ জন !!

বিশ্বদেব চট্টোপাধ্যায়
গালওয়ান উপত্যকায় ১৫ জুন রাতে চীনা সেনাদের হাতে ভারতের ২০ জন সৈন্য নিহত হওয়ার ঘটনায় সীমান্তে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। ক্রমশ যুদ্ধ পরিস্থিতির দিকে ধাবমান হচ্ছে প্রতিবেশী পারমাণবিক শক্তিধর দেশ দুটি। এরই মধ্যে লাদাখে যুদ্ধবিমান ও অ্যাটাক হেলিকপ্টার পাঠিয়েছে ভারত। চীনও পিছু হটেনি, বরং উত্তেজনা বাড়িয়ে সেনা বৃদ্ধি করে চলেছে।

তবে সেদিন রাতে গালওয়ানে ঠিক কী হয়েছিল? আগ্নেয়াস্ত্র না থাকা সত্ত্বেও ভারত-চীন সেনার মধ্যে এমন রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের সৃষ্টি কিভাবে হল? নানা জল্পনা, নানা মত থাকলেও ভারত বা চীন সরকারিভাবে কোন দেশই কিছু জানায়নি।
এই পরিস্থিতিতে ভারতীয় সংবাদ সংস্থা এএনআই এক প্রতিবেদনে দাবি করল, গালওয়ান উপত্যকার ওয়াই পয়েন্টে ভারতীয় ভূখণ্ডে ঢুকে অস্থায়ী কাঠামো তৈরি করেছিল চীনা সেনারা। বিবাদের সূত্রপাত সেটা নিয়েই। প্রতিবেদনের দাবি, পরিকল্পিত ভাবেই হামলা চালিয়েছিল চীনা সেনা। তারা অপেক্ষাকৃত উঁচু অবস্থানে ছিল। ভারতের পক্ষে ছিল ১০০ অফিসার-জওয়ান। চীন জড়ো করেছিল প্রায় ৩৫০ সেনা। সংঘর্ষ স্থায়ী হয়েছিল প্রায় তিন ঘণ্টা।
১৫ জুন সন্ধ্যা থেকে রাত পর্যন্ত গালওয়ান উপত্যকার পেট্রোলিং পয়েন্ট ১৪ (পিপি-১৪)-এ ভারত-চীন সংঘর্ষে ভারতের দিকে বিহার রেজিমেন্টের এক কর্নেল ও ১৯ জন জওয়ানের মৃত্যু হয়। চীনের দিকেও প্রচুর হতাহত হয়েছে বলে ভারত দাবি করলেও চীন এ বিষয়ে মুখ খোলেনি।
ওই সংঘর্ষের পর থেকেই দু’দেশের সম্পর্কে তীব্র উত্তেজনা তৈরি হয়। সর্বদলীয় বৈঠকও করেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। রবিবারই প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং সেনার তিন বাহিনীকে চীনা আগ্রাসনের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে পূর্ণ স্বাধীনতা দিয়েছেন। কিন্তু ওই দিন প্রকৃত ঘটনা ঠিক কী হয়েছিল বা কিভাবে হয়েছিল, তার এখনো স্পষ্ট ছবি পাওয়া যায়নি।
সেনা সূত্র উদ্ধৃত করে এএনআই-এর ওই প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ওই পিপি-১৪ চীন সেনা দখল নেওয়া থেকেই ঘটনার সূত্রপাত। সেখান থেকে চীনের সেনা সরাতে ১৫ জুন রাতে পূর্ব লাদাখের শিয়ক ও গালওয়ান নদীর সংযোগস্থলে ওয়াই পয়েন্টে দু’দেশের সামরিক পর্যায়ের বৈঠক ডাকা হয়েছিল। তাতে যোগ দিয়েছিলেন ৩ নম্বর ডিভিশনের কমান্ডার ও অফিসাররা। বৈঠকে সিদ্ধান্ত হয়, ভারতীয় ভূখণ্ডের অভ্যন্তরে ওই পিপি-১৪ থেকে সরে যাবে চীনা সেনারা। ১৬ বিহার রেজিমেন্টের উপর দায়িত্বভার বর্তায় ওই পিপি-১৪-এ গিয়ে চীনের সেনাকে সরে যেতে বলার জন্য। সেই অনুযায়ী বিহার রেজিমেন্টের একটি ছোট টহলদারি দলকে ওই পয়েন্টে পাঠানো হয়।
কী করল ওই পেট্রোলিং পার্টি? প্রতিবেদনের ভাষ্য অনুযায়ী, বিহার রেজিমেন্টের জওয়ানরা ওই ১৪ নম্বর পয়েন্টে গিয়ে দেখেন ১০-১২ জন চীনা সেনা সেখানে অস্থায়ী কাঠামো তৈরি করে পাহারা দিচ্ছে। বিহার রেজিমেন্টের জওয়ানরা তাদের সরে যেতে বলেন। কিন্তু তারা এলাকা ছাড়তে রাজি হননি। তবে তখন আর বাদানুবাদ না করে ওই জওয়ানরা ইউনিটে ফিরে যান সেই খবর দিতে। কিন্তু চীনা বাহিনী আন্দাজ করেছিল যে, ইউনিটে গিয়ে খবর দিলে ফের ভারতীয় সেনা বড় বাহিনী নিয়ে ফিরতে পারে। সেই অনুযায়ী প্রস্তুতি শুরু করে দেয় তারা। পিপি-১৪-এর কিছুটা উপরের দিকে জড়ো হয় প্রায় ৩৫০ চীনা সেনা সদস্য। মজুত করা হয় অস্ত্রশস্ত্রও।
প্রতিবেদনে আরো বলা হয়েছে, চীন সেনার এই নাছোড় মনোভাবের খবর পৌঁছনোর পর বিহার রেজিমেন্টের কমান্ডিং অফিসার সন্তোষ বাবুর নেতৃত্বে ৫০ জনের একটি দল ওই পেট্রোলিং পয়েন্টে পৌঁছয়। চীনা বাহিনীকে এলাকা ছাড়তে বলায় শুরু হয় বাদানুবাদ। বিহার রেজিমেন্টের জওয়ানরা তখন ওই অস্থায়ী কাঠামো ভাঙতে শুরু করে দেন। তাতেই শুরু হয় হাতাহাতি ও মারপিট। কিন্তু চীন আগে থেকেই অস্ত্র মজুত করেছিল। তুলনামুলক উঁচু অবস্থানে থেকে শুরু করে পাথরবৃষ্টি। খবর পেয়ে ভারতের পক্ষের পিপি-১৫ এবং পিপি পিপি-­১৭এ থেকে আরও জনা পঞ্চাশেক সেনা সদস্য পরে যোগ দেন।
দু’পক্ষের মধ্যে প্রায় ৩ ঘণ্টা ধরে গভীর রাত পর্যন্ত সংঘর্ষ হয়েছিল বলে এএনআই-এর ওই প্রতিবেদনে দাবি করা হয়েছে। পাশাপাশি উল্লেখ করা হয়েছে, চীনের বহু সেনা আহত অবস্থায় সারা রাত পড়ে ছিল ওই এলাকায়। অনেকে মারা গিয়েছিলেন। পরের দিন সকালে পরিস্থিতি শান্ত হলে তাদের চীনা বাহিনীর হাতে তুলে দেয় ভারতীয় সেনারা।
সেনা সূত্র উদ্ধৃত করে এএনআই-এর দাবি, শেষ পর্যন্ত অবশ্য ওই ১৪ নম্বর পেট্রোলিং পয়েন্ট দখলমুক্ত করতে পেরেছে ভারত। তবে সেনা সরিয়ে ১৪, ১৫ ও ১৭-এ পেট্রোলিং পোস্ট এবং সংলগ্ন এলাকায় প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় স্থিতাবস্থা ফেরাতে ফের দু’দেশের সেনা পর্যায়ের বৈঠকের পরিকল্পনা চলছে। আগামী কয়েক দিনের মধ্যেই দু’দেশের লেফেটেন্যান্ট জেনারেল পর্যায়ের বৈঠক হবে বলে জানা গেছে।

No comments

Powered by Blogger.