Header Ads

সম্প্রতিক জটিল সময়ের কবিতা

পরিযায়ী

ইচ্ছেটাকে পুঁজিকরে গিয়েছিলে দূর -দেশে
পাড়ি
লকডাউনে বদলে গেল শূন্যহাতে ফিরতে হচ্ছে বাড়ি

হাওয়ায় এখন বিষ রয়েছে ঘুরতে ফিরতে
তাই হয়েছে  মানা,
ঘরে এখন সকল কিছু বদ্ধ ঘরে 
হচ্ছে সবার খানা

পথমধ্যে আটকে গেছে লকডাউনে  কাজের হলো ছুটি
বাড়ির জন্য মন কেঁদেছে, এখনসবার অশ্রু ভরা মুঠি

ঘরে আছে সবই তাদের পুত্রকণ্যা বসতবাটি গিন্নি,
লক ডাইনে খবর পেয়ে প্রিয়তমা মানত করে সিন্নি

সকল কিছু বন্ধ আছে বাসে ট্রেনে
উঠানামার যাত্রী,
পরিযায়ী শ্রমিক নামে খ্যাত হলো
তাদের ঘরে রাত্রি

ঘুমের ঘোরে হঠাৎ শুনে মায়ের কণ্ঠ
কোথায় গেলি বাছা,
পরিযায়ী শ্রমিক বুঝি বাজি রেখে
এই কি তবে বাচা
(২//২০২০ইং, আশুতোষ দাস)



ব্যবধান

ব্যবধানের দেয়াল ভাঙতে আছড়েপড়লো
ঝড়ো বৃষ্টি দাওয়ায়,
উঁচু নিচু এককরেছে সকলকিছু
বৃষ্টি ভিজে হাওয়ায়। 

তারই মাঝে রৌদ্র এখন দুহাত দিয়ে 
তোমায় আমায় ডাকলে,
পাখিগুলো পালক ফেলে নতুন ভুবন
রং মেখেযে আজকাকলে

ব্যবধানের পাপের চিহ্ন ঢেকে দিতে উড়ছে ধূলো বালি,
মনেরখো আমরা সবাই কর্মক্ষেত্রের
ফুলবাগানের মালি

বৃষ্টি ভিজে স্নানের শেষে বৃক্ষ গুলো
বললো দেবে সাক্ষ্য,
কক্ষনো নয় দ্বিধা দ্বন্দ্ব ছোট বড়
সাদা কালো বাক্য

সবনদীযে সাগর যাবে  একই পথে  একই তারই  লক্ষ্য,
একটু ছোঁয়ায়  কসুম ফোটে  হৃদয় হীনের
খুলে দিচ্ছে বক্ষ
(৩//২০২০ইং, আশুতোষ দাস)

যাওয়া

পশুপাখি ঘুরছে ফিরছে সবাই স্বাধীন
ঝড়ো বৃষ্টি হাওয়া,
বন্দী ঘরে একাকীত্বে চৌকি দিচ্ছে,
মিঠেরোদের দাওয়া। 

বাইরে গেলে জীবন যাবে হয়ে যাবে
একেবারে অক্কা,
ঘরে থাকো পেয়েযাবে জীবনখানি
একটুখানি রক্ষা

মেঘগুলোযে বললোএসে ঘরের ভেতর
কানামাছি খেলি,
জীবনটাযে অনেক বড়ো হৃদয় খোলে ময়ূরপাখা মেলি

হৃদয়টাকে পাথরকরে হয়েছিলাম
নিত্যবিকাশ যন্ত্রে,
একটুভাবো একটু করো দীক্ষা জপে ভালোবাসার মন্ত্রে

কবরখানায় লাশের সারি অশ্রুভেজা প্রিয়জনের স্বর,
জীবনযাপন বদলেগেল বাঁচারজন্যে  আঁকড়ে আছি ঘর

চাঁদটাএখন দেখিনাতো টিভিরপর্দায়
কালোমেঘে ঢাকে,
পাখিরঝাঁকের ঘুমভাঙানি তবু শুনি
 বদ্ধঘরের ফাঁকে। 

কখনজাগবে হৃদয়জুড়ে রামধনুটির
সপ্তরঙের ছায়া,
আবারকবে আগেরমতন ইচ্ছা মতন
যেমন খুশির যাওয়া

উঠবে জেগে চায়ের কাপে আড্ডাঘরে
কাব্য পাঠে মত্ত,
আমরা এখন ভয়ে ভীত জীবন মৃত
একেবারে সত্য

আবাহনের ঘন্টি বাজে বৃষ্টি নামে
অঝোর ধারা পানি
সকলকিছু শেষের পথে দুঃখ
গভীর তরো গ্লানি

কয়েক ফোটা অশ্রু আমার বৃষ্টি ধারায়
নিয়ে যাচ্ছে মেঘে
নতুন দিনের জন্য কেবল চেয়ে আছি
সারা রাত্তির জেগে

দীর্ঘশ্বাসের কথাগুলো বৃষ্টি ভিজে
কবরখানার পাশে
স্বপ্নগুলো টুকরো হলো ফুল ফুটেনা
আর কখনো ঘাসে

মনটা আমার বাইরে গিয়ে যখন তখন
করে কেবল প্রশ্ন,
আমরা কেনএমন হলামঘরে আছি
নিজের করি যত্ন

তারই সঙ্গে কথা ছিলো ডিঙিনৌকোয়
যাবোদেশে  দেশে
কী যে হলো বন্দী আমি অলুক্ষনে
আসলো সর্বনেশে

তারই হাসির হৃদয় কোনের কবজ টুকু
হলো বুঝি বৃথা
দেশে দেশে কবরখানা শোকাবহ
জ্বলছে আগুণ চিতা

তবু আমি হালছাড়েনি ডাকতে থাকি
যাবো ভুবন দেশটায়
নতুন ভাবে গড়বো এখন আবার পৃথি
আধার দিনের শেষ টায়
(৪//২০২০ইংআশুতোষ দাস)

কবি পরিচয : 

কবি আশুতোষদাস বরাক উপত্যকায় হাইলাকান্দি জেলার হাইলাকান্দি শহরের বাসিন্দাশিক্ষকতা থেকে সম্প্রতি অবসর নিয়েছেনসাহিত্যের বিভিন্ন ধরনেরসৃজনী কাজের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেনতার অনেক গুলো গদ্য পদের বই রয়েছেসিনেমাও নাটকের জন্য গল্প চিত্রনাট্য লিখেছেন নানা সময়ে জাতীয় আন্তর্জাতিক স্তরে তার কাজের জন্য তিনি পুরস্কৃত হয়েছেনমহা সঙ্কটের সময় মানুষ কে করোনা ভাইরাসের মারন ব্যাধি থেকে রক্ষা করতে সচেতনতা মূলক কবিতা লিখেছেন

No comments

Powered by Blogger.