Header Ads

সন্তোষ হোজাইর অপহরণ ও হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ডিএসপি সূর্যকান্ত মরান জড়িত, অভিযোগ সন্তোষ হোজাইর স্ত্রী জয়ন্তা হোজাইয়ের

নিজস্ব প্রতিনিধি, হাফলং ৭ মেঃ ভেঙ্গে দেওয়া ডিএইচডি জঙ্গি সংগঠনের প্রাক্তন নেতা তথা ঠিকাদার সন্তোষ হোজাইর অপহরণ ও হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ডিএসপি সূর্যকান্ত মরান জড়িত রয়েছে বলে হারাঙ্গাজাও থানায় মৃত সন্তোষ হোজাইর স্ত্রী জয়ন্তা হোজাই এজাহার দাখিল করেছেন। এরপর ও ডিমা হাসাও পুলিশ কোনও ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় ডিমা হাসাও জেলার বিভিন্ন দল সংগঠনের মধ্যে তীব্র ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। 
 
একজন ডিএসপির বিরুদ্ধে অপহরণ ও খুনের অভিযোগ ওঠার পরও বহাল তবিয়তে রয়েছেন ডিএসপি সূর্যকান্ত মরান। তাই এবার সন্তোষ হোজাইর খুনের ফাস্ট ট্র্যাক তদন্তের দাবি জানিয়ে অসমের মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সানোয়ালের উদ্দেশ্যে এক স্মারক পত্র প্রেরন করে ডিমা হাসাও জেলার বিভিন্ন জাতি জনগোষ্ঠীর প্রধান সংগঠন গুলিকে নিয়ে গঠিত যৌথ সমন্বয় সমিতি। ইতিমধ্যে গৌহাটি হাইকোর্টের নির্দেশে রাজ্যের পুলিশ প্রধান ভাষ্করজ্যোতি মহন্ত দক্ষিণ অসম প্রান্তের ডিজিপি দিলীপ কুমার দে-র নেতৃত্বে এসআইটি গঠন করে দিয়েছেন সন্তোষ হোজাইর খুনের ঘটনার তদন্ত করতে। এই অবস্থায় ডিআইজি দিলীপ কুমার দে-র নেতৃত্বে গঠিত এসআইটি যাতে সন্তোষ হোজাই হত্যাকান্ডের ঘটনার তদন্ত ফাস্টট্র্যাকে শেষ করার এদাবি জানানো হয় মুখ্যমন্ত্রীর উদ্দেশ্যে প্রেরন করা স্মারকপত্রে। উল্লেখ্য গত ২৪ এপ্রিল লকডাউনের মধ্যে হারাঙ্গাজাও থেকে সন্তোষ হোজাইকে বন্দুকের নলের মুখে একটি নম্বর বিহীন সাদা বলেরো গাড়ীতে করে পাঁচ জনের দূষ্কৃতিকারীর দল অপহরন করে নিয়ে যাবার সাতদিনের মাথায় গত ৩০ এপ্রিল মুপা রিজার্ভ ফরেষ্টের ২৭ নম্বর জাতীয় সড়কের পাশে লাইলিংয়ের জঙ্গলে মাটির নীচে পুতে রাখা অবস্থায় উদ্ধার হয় সন্তোষ হোজাইর মৃতদেহ। এই হত্যাকান্ড নিয়ে ডিমা হাসাও জেলার পুলিশসুপার বীরবিক্রম গগৈকে জিজ্ঞেস করা হলে তিনি এই খুনের ঘটনা নিয়ে মুখ খুলতে চান নি। পুলিশসুপার বলেন গৌহাটি হাইকোর্টের নির্দেশে রাজ্যের পুলিশ প্রধান ডিআইজি-র নেতৃত্বে এসআইটি গঠন করে দিয়েছে এবং গৌহাটি হাইকোর্টের নজরদারিতে এই সমগ্র ঘটনার তদন্ত হচ্ছে তাই এনিয়ে তিনি কিছু বলতে পারবেন না বলে সাংবাদিকদের জানান।

No comments

Powered by Blogger.