Header Ads

দশম শ্রেণিতে অসমীয়া শেখা বাধ্যতামূলক, বিধানসভায় বিল পাশ



অমল গুপ্ত, গুয়াহাটি : আজ বিধানসভায় আসামিজ ল্যাংগুয়েজ লার্নিং বিল ২০২০ বিলটি প্রায় বিনা বাধায় পাশ হয়ে যায়। শিক্ষ্যমন্ত্রী হিমন্তবিশ্ব শর্মা বিলটি উত্থাপন করে বলেন, ক্লাস টেন-এ অসমীয়া ভাষা পড়াশুনা করতে আইন আনা হচ্ছে, তবে বরাক উপত্যকা, ডিমা হাসাও, কার্বিয়ালঙ এবং বি টি এ ডি এলাকাকে বাদ দেওয়া হয়েছে। বরাকে বাংলা,   বিটি এ ডি তে বড়োভাষা চালু থাকবে। এই আই ইউ ডি এফের আমিনুল ইসলাম বরাকে লিঙ্ক ভাষা হিসাবে অসমীয়া ভাষা চালু করার দাবি জানান। বরাকের বিধায়ক কামলাখ্য দে  পুরকাস্থ বরাকের ইংরেজি মাধ্যম বিদ্যালয়গুলোর বাংলা ভাষা লাগু করার দাবি জানান। হিমন্ত জানান, অসমীয়া ভাষা বাধ্যতামূলক অন্য ভাষা চালু করতে গেলে আইনজ্ঞদের সঙ্গে কথা বলতে হবে। এই বিলটি আজ পাশ হয়ে যায়। মন্ত্রী জানান,  বিলটি নিয়ে পরেও আলোচনা করে সংশোধনী আনা যেতে পারে। আজ বিধানসভায় ২০২০ অর্থ বছরের অসম বিনিয়োজন বিল পাশ হয়ে যায়। লাখ তিনহাজার ৭৬১ কোটি টাকার বাজেটটি নিয়ে অর্থমন্ত্রী হিমন্তবিশ্ব শর্মা দাবি করেন লক্ষ্যমাত্রা থেকে বেশি টাকা খরচ করা হয়েছে। ইতিমধ্যে ৮০ হাজার কোটি টাকা খরচ হয়ে গেছে। রাজ্যের সার্বিক উন্নয়নে অনেক পথ পেরোতে হবে। প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী প্রফুল্ল কুমার মহন্তর এক অভিযোগের জবাবে জানান,  কোনো দালাল নয়, জেলার ডি সি এবং এম এল এ-দের সঙ্গে কথা বলে বাজেট প্রস্তুত করা হয়, রাজনীতি করা হয় না। বহরমপুরের বিধায়ক মহন্ত অভিযোগ করেন তার কেন্দ্রে চাপানালা, রত্নাবলির মত স্থানকে পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তুলতে বাজেট টাকা বরাদ্দ করা হলো না। অর্থমন্ত্রী দুটো কেন্দ্রে ১০ লাখ করে বরাদ্দের কথা ঘোষণা করেন। কামালাখ্য দে পুরকায়স্থ করিমগঞ্জএর হাসপাতালের দুরবস্থার কথা তুলে ধরলে অর্থ মন্ত্রী বলেন, করিমগঞ্জে এক মেডিক্যাল কলেজ স্থাপন করা হলে সব সমস্যা মিটে যাবে। করিমগঞ্জে ১০০ বিঘা জমি খোঁজা হচ্ছে। রাতাবাড়ির বিধায়ক,  পাথারকান্দির বিধায়ক নিজের নিজের জায়গাতে মেডিক্যাল কলেজ করতে চাইছেন, এক মত হতে পারছেন না। সবাই মিলে একটি জমি ঠিক করে দেবার জন্যে মন্ত্রী অনুরোধ করেন। আজ বিধানসভায় বেসরকারি বিদ্যালয়ের মাশুল বৃদ্ধি। সংক্রান্ত বিল,  প্রাথমিক, মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের টেট শিক্ষক হিসেবে নিয়োগপত্র পাওয়ার পর একই বিদ্যালয়ে কম করে ১০ বছর থাকতে হবে। বিল দুটি ও পাশ হয়ে যায়।

No comments

Powered by Blogger.