Header Ads

দেশে অৰ্থনীতিকে চাঙ্গা করতে গ্ৰামীণ ক্ষেত্ৰে গুরুত্ব দেওয়া হল কেন্দ্ৰীয় বাজেটে

নয়া ঠাহর ওয়েব ডেস্কঃ 
অৰ্থমন্ত্ৰী নিৰ্মলা সীতারমন শনিবার সংসদে সাধারণ বাজেট পেশ করেন। দেশে অৰ্থনীতি ঝিমোচ্ছে অবস্থা ফেরাতে কেন্দ্ৰীয় বাজেটে গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে গ্ৰামীণ ক্ষেত্ৰে। অৰ্থমন্ত্ৰী নিৰ্মলা সীতারমন জানিয়েছেন ফসল সংরক্ষণের জন্য দেশের গ্ৰামে গ্ৰামে তৈরি করা হবে গুদাম। সবজি ফসল নিয়ে যাওয়ার জন্য উত্তরপূৰ্বে চালু করা হবে কিষাণ রেলএবং বিমানের ব্যবস্থা করা হবে। রাসায়নিক সারে নিয়ন্ত্ৰিত ব্যবহারের ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। এদিন শিক্ষাক্ষেত্ৰে বড়সড় বদলের ইঙ্গিত দিয়েছেন অৰ্থমন্ত্ৰী। তিনি জানিয়েছেন- নতুন শিক্ষানীতি আনছে কেন্দ্ৰ। 


 ছবি, সৌঃ আন্তৰ্জাল
শিক্ষাক্ষেত্ৰে ৯৯ হাডার ৩০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করেছে কেন্দ্ৰ। গত আৰ্থিক বছর থেকে এক লাফে ৩৮ হাজার কোটি টাকা বেশি বরাদ্দ হল এবার। একইসঙ্গে প্ৰত্যক্ষ বিদেশী বিনিয়োগের পাশাপাশি পিপিপি মডেলে আরও মেডিক্যাল কলেজ চালু করা সিদ্ধান্ত নিয়েছে কেন্দ্ৰ সরকার। একইসঙ্গে জানিয়েছেন দেশের সব জেলা হাসপাতালগুলিতে মেডিক্যাল কলেজ করা হবে। ২০২৫ এর মধ্যে দেশে টিভি টিউবার কুলোসিস রোগ সম্পূৰ্ণ নিৰ্মূল করতে চাইছে কেন্দ্ৰ সরকার। এর জন্য ২০০০ ধরনের ওষুধ সরবরাহ করা হবে।  শিক্ষার মান বাড়াতে দেশে নতুন শিক্ষানীতির কথা ভাবছে কেন্দ্ৰ। অনলাইনে পড়যাশুনার ওপর জোর দেওয়া হবে। সেট পরীক্ষায় বসতে পারবেন এশিয়া এবং আফ্ৰিকার ছাত্ৰছাত্ৰীরা।

আয়কর কমানোর কথা ঘোষণা করেছেন নিৰ্মালা, সহজ কর কাঠামো আনা হবে। আয়কর আরও সহজ করা হবে। বাৰ্ষিক ৫ লক্ষ টাকা অবধি রোজগেরেদের কোনও কর দিতে হবে না। ৫ থেকে ৭.৫ লক্ষ টাকা পৰ্যন্ত আয়ে ১০ শতাংশ কর দিতে হবে। ৭.৫ লক্ষ থেকে ১০ লক্ষ টাকা আয়ে ১৫ শতাংশ কর। ১০ লক্ষ থেকে ১২ .৫ লক্ষ টাকা আয়ে ২০ শতাংশ কর দিতে হবে। সাড়ে ১২ লক্ষ থেকে ১৫ লক্ষ আয় হলে ২৫ শতাংশ কর দিতে হবে। ১৫ লক্ষের ওপর আয় হলে ৩০ শতাংশ কর দিতে হবে।
এলআইসি-র শেয়ার বিক্ৰির প্ৰস্তাব দেওয়া হয়েছে বাজেটে। জীবন বিমাতেও বেসরকারীকরণ চাইছে মোদী সরকার।
বেসরকারীকরণের রাস্তা আগেই খুলে দিয়েছে রেল। এবার সেই রাস্তা আরও প্ৰশস্ত করলেন কেন্দ্ৰীয় অৰ্থমন্ত্ৰক। আগামী কয়েক বছরে পিপিপি মডেলে তেজস-এর মতো আরও দেড়শ ট্ৰেন চালাবে কেন্দ্ৰ।  ২৭ হাজার কিমি. রেলপথ বিদ্যুতায়ন করা হবে। রেলের পরিকাঠামো উন্নয়নে বিনিয়োগ করা হবে ১৮০ লক্ষ কোটি টাকা।

নতুন বাজেটে দেশের প্ৰতিরক্ষা খাতে বিনিয়োগের পরিমাণ সামান্যই বেড়েছে। ফলত হতাশ করেছে অৰ্থনৈতিক মহলকে। দেশের প্ৰতিরক্ষা খাতে নয়া পরিকল্পনা বাধা পেতে পারে বলে তাদের ধারণা।

 নারীর ক্ষমতায়নের ওপর গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। বিশেষ করে অন্তঃসত্ত্বা মহিলা, শিশু সমেত মায়ের পুষ্টির ওপর জোর দেওয়া হবে। নারীর স্বাস্থ্য উন্নতিকরণে একটি টাস্ক ফোৰ্স গঠনের প্ৰস্তাব দেওয়া হয়েছে।

দেশে পৰ্যটন ক্ষেত্ৰে বিদেশের পৰ্যটকদের আকৰ্ষণ করতে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে। দেশের পাঁচটি রাজ্যে প্ৰত্নতাত্ত্বিক কেন্দ্ৰ তৈরি করা হবে। অসম,হরিয়ানা,উত্তরপ্ৰদেশ, গুজরাট, তামিলনাড়ুতে জাদুঘরের উন্নতিকরণ করা হবে। কোলকাতা মিউজিয়ামেরও উন্নতি ঘটানো হবে। সারা দেশে আরও ৪টি মিউজিয়াম রিনোভেশনের জন্য বেছে নেওয়া হবে। 

No comments

Powered by Blogger.