Header Ads

ক্ষতিপূরণ ইস্যু নিয়ে আলোচনায় আগামী ৫ ফেব্রুয়ারি বৈঠক ডাকলেন জেলাশাসক অমিতাভ রাজখোয়া

 বিপ্লব দেব, হাফলং ৩ ফেব্রুয়ারিঃ এন সি হিলস ইন্ডিজেনাস স্টুডেন্টস ফোরাম আগামী ১৭ ফেব্রুয়ারি থেকে লামডিং-শিলচর ব্রডগেজ রেলপথ অনিৰ্দিষ্টকালের জন্য অচল করে দেওয়ার হুমকি দিয়েছে। এরপরই ডিমা হাসাও জেলাপ্রশাসন এনিয়ে নড়ে চড়ে বসে। আগামী ৫ ফেব্রুয়ারি দুপুর ১ টায় ক্ষতিপূরণ ইস্যু নিয়ে আলোচনার জন্য জেলাশাসক অমিতাভ রাজখোয়া এক বৈঠক ডেকেছেন। আগামী ৫ ফেব্রুয়ারি জেলাশাসক কার্যালয়ের সভাকক্ষে অনুষ্ঠেয় ওই বৈঠকে জেলাশাসক ডিমা হাসাও জেলার পুলিশসুপার বীর বিক্রম গগৈ উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেল কর্তৃপক্ষ ইন্ডিজেনাস স্টুডেন্টস ফোরাম, ইন্ডিজেনাস পিপলস ফোরাম ও ইন্ডিজেনাস উইম্যানস ফোরামকে আমন্ত্রন জানিয়েছেন। 

এদিকে এই বৈঠক নিয়ে প্রতিক্রিয়া প্রকাশ করে ইন্ডিজেনাস স্টুডেন্টস ফোরামের সভাপতি ডেভিড কেভম বলেন- এর আগে ও বহুবার জেলাশাসকের কার্যালয়ে রেল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে বৈঠক হয়েছে কিন্তু এতে কোনও কাজ হয়নি। উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেল কর্তৃপক্ষ ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামবাসীদের ক্ষতিপূরণ মিটিয়ে দেওয়া নিয়ে অনেক প্রতিশ্রুতি দেওয়ার পর ও আজ অবধি ক্ষতিপূরণ মিটিয়ে দেয়নি রেল কর্তৃপক্ষ। এমনকি ২০১৯ সালের ৭ মার্চ পাহাড় লাইনে অনিৰ্দিষ্টকালের জন্য রেল অবরোধ গড়ে তোলার পর রদ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সানোয়াল আলোচনার জন্য ১১ মার্চ বৈঠকে ডাকার পর  ৯ মার্চ রেল অবরোধ প্রত্যাহার করে দেওয়া হয়। ডেভিড বলেন ১১ মার্চের ওই বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেল কর্তৃপক্ষকে ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামবাসীদের ক্ষতিপূরণ মিটিয়ে দিতে অবিলম্বে পদক্ষেপ গ্রহণ করার নির্দেশ দেওয়ার পর রেল কর্তৃপক্ষ মুখ্যমন্ত্রীর কথায় আমল দেয়নি।

 এমনকি আজ অবধি এই ক্ষতিপূরণের টাকা মিটিয়ে দেয়নি। তাই এবার আর বৈঠকে বা আলোচনা এমনকি প্রতিশ্রুতিতে কোনও কাজ হবেনা। ডেভিড কেভম বলেন আগামী ১৬ ফেব্রুয়ারির মধ্যে উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেল ক্ষতিপূরণ বাবদ ৪ কোটি ৫৮ লক্ষ টাকা ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামবাসীদের মিটিয়ে না দিলে ১৭ ফেব্রুয়ারি সকাল ৫ টা থেকে পাহাড় লাইনে অনিৰ্দিষ্টকালের রেল অবরোধ গড়ে তোলা হবে কোনও অবস্থায় তা প্রত্যাহার করা হবেনা। কারন গত ১০ বছর থেকে উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেল কর্তৃপক্ষ ক্ষতিপূরণের ইস্যু নিয়ে মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিয়ে আসছে। তাই এবার বৈঠক আলোচনা ও আর প্রতিশ্রুতিতে রেল অবরোধ প্রত্যাহার কোনও অবস্থায় করা হবেনা বলে জানান ডেভিড কেভম। 

উল্লেখ্য, লামডিং-শিলচর ব্রডগেজ প্রকল্পের কাজ করতে গিয়ে নিউহাফলং থেকে নিউহারাঙ্গাজাও পর্যন্ত প্রায় ৫০ টি গ্রামের কয়েকশো গ্রামবাসীর জুম ক্ষেতের জমি থেকে শুরু করে বাড়ি ঘর নষ্ট হয়ে যায়। কিন্তু দীর্ঘদিন থেকে গ্রামবাসীরা ক্ষতিপূরণের দাবি জানিয়ে আসলে ও উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেল কর্তৃপক্ষ এনিয়ে কোনও পদক্ষেপ গ্রহণ করেনি বলে অভিযোগ গ্রামবাসীদের।

No comments

Powered by Blogger.