Header Ads

দিলীপকে এড়িয়ে মুকুলের সঙ্গে কথা, জল্পনা বাড়াল মোদীর আচরণ !!

বিশ্বদেব চট্টোপাধ্যায়ঃ

দিলীপকে ছাপিয়ে মুকুলের গুরুত্ব কী বাড়ছে বিজেপি শিবিরে? কলকাতা বিমান বন্দরে মোদীর সঙ্গে মুকুলের আলাপচারিতা সেদিকেই জল্পনা বাড়িয়েছে। দমদম বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে স্বাগত জানাতে গিয়েছিলেন বিজেপির দিলীপ ঘোষ, রাহুল সিনহা এবং মুকুল রায়। দিলীপের সঙ্গে হাত মোলানোর পরেই মুকুলের দিকে এগিয়ে যান তিনি। মুকুলের সঙ্গে বেশ কয়েকটি কথা বলেন মোদী। এতেই চড়েছে জল্পনা। 

দমদম বিমানবন্দরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী যেভাবে মুকুলের দিকে এগিয়ে গিয়েছিলেন এবং তাঁর সঙ্গে কথা বলছিলেন তা দেখে মনে হচ্ছিল অনেক কিছু জানার আছে মুকুলের কাছে। অন্যদিকে রাজ্য সভাপতি হয়েও দিলীপ ঘোষের সঙ্গে কেবল মাত্র হাত মিলিয়েই এড়িয়ে গিয়েছেন মোদী। দলের হাইকমান্ডের এই আচরণ কারোরই নজর এড়ায়নি। লোকসভা ভোটের ফলাফলে পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির সাফল্যে মুকুলের গুরুত্ব যে দলের অন্দরে বেড়েছে তা মোদীর আচরণে আবারও স্পষ্ট হয়ে গেল।
দলের অন্দরেই কী তাহলে ক্রমশ কোণঠাসা হতে শুরু করেছেন দিলীপ ঘোষ! বিশেষ করে তাঁর কেন্দ্রে বিধানসভা উপনির্বাচনে বিজেিপ প্রার্থীকে যখন জেতাতে পারেননি দিলীপ তখনই তাঁর নেতৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। দিলীপ ঘোষ যে দক্ষ সংগঠকের কাজ করতে পারেননি সেটা অনেকটাই স্পষ্ট হয়ে গিয়েছিল বিধানসভা উপনির্বাচনের ফলাফলে।
মুকুল রায় তৃণমূল কংগ্রেস থেকে বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পরেই তৃণমূল কংগ্রেসে উথাল পাথাল শুরু হয়ে গিয়েছিল। একের পর এক নেতা মন্ত্রীদের দল বদল নজর টেনেছিল অমিত শাহদের। ব্যারাকপুরে অর্জুন সিং থেকে শুরু করে সব্যসাচী, শোভন চট্টোপাধ্যায় সহ একাধিক তৃণমূল কংগ্রেস সাংসদ বিধায়ক, পুর প্রতিনিধি দলে দলে যোগ দিয়েছেন বিজেপিতে। সেখানে দিলীপ ঘোষের ভূমিকা কিছুই ছিল না। সামনেই বিধানসভা ভোট পশ্চিমবঙ্গে। বিজেপির আসন বাড়াতে আবার সেই মুকুলেই কী ভরসা রাখতে চাইছে বিজেপি?

No comments

Powered by Blogger.