Header Ads

ক্যাব বিরোধী আন্দোলনে উত্তাল অসম, গুয়াহাটিতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্ৰণের বাইরে

নয়া ঠাহর ওয়েব ডেস্ক -- 11 ডিসেম্বর


রাজ্যসভায় নাগরিকত্ব সংশোধন বিল পেশ করার পর উত্তাল হয়ে উঠেছে অসমের পরিস্থিতি । উজান অসমের ডিব্রুগড়ে বিক্ষোভকারীদের হঠাতে রাবার বুলেট ছুঁড়তে হয় পুলিশকে । রাবার বুলেটের আঘাতে স্থানীয় টিভি চ্যানেলের সাংবাদিক রাতুল গোঁহাই ও এক তরুণী আহত হন। আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে ।

ছবি, সৌঃজিপ্লাস
তিনসুকিয়াতে গোলাগুলি হয়েছে। ক্যাব-এর বিরুদ্ধে গুয়াহাটিতে বুধবার সকাল থেকে বিভিন্ন জায়গায় প্ৰতিবাদ জানায় আন্দোলনকারীরা। দিসপুর জনতা ভবনের কাছে বাস জ্বালিয়ে দেয় প্ৰতিবাদকারীরা। একাংশ দুষ্কৃতী ছাত্ৰ সংগঠন আসু-কে বদনাম করতে বাসগুলোতে আগুন ধরিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এদিন জনতাভবনের সামনে ‘জয় আই অসম’ শ্লোগানে উত্তাল করে তোলে প্ৰতিবাদকারী ছাত্ৰছাত্ৰীরা। হাতে হাতে প্ল্যাকাৰ্ড নিয়ে বেড়িয়ে আসেন জনতা ভবনের কৰ্মচারীরা। এদিকে মহানগরের লাস্টগেটে প্ৰথিবাদকারীরা ব্যারিকেড জ্বালিয়ে দেয়। পুলিশের সঙ্গে খণ্ডযুদ্ধ হয়।

পরিস্থিতি সামাল দিতে জম্মু ও কাশ্মীর থেকে ২০ কোম্পানী সিআরপিএফ ইতিমধ্যেই এসে পৌঁছেছে বলে খবর। রাজ্যের পরিস্থিতি ক্ৰমশ খারাপের দিকে যাচ্ছে প্ৰশাসন উদ্বিগ্ন। সন্ধ্যে ৭ টা থেকে ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়া হবে বলে খবর মিলেছে। মহানগরে কাৰ্ফু জারি করা হয়েছে। প্ৰতিবাদের জেরে স্তব্ধ হয়েছে মহানগরের রাস্তাঘাট। ১৪৪ ধারা জারির পরও প্ৰতিবাদ থামেনি। বহু প্ৰতিবাদকারীকে গ্ৰেফতার করেছে পুলিশ।

ছাত্ৰ সংগঠন আসু-র উপদেষ্টা সমুজ্জ্বল কুমার ভট্টাচাৰ্য জানিয়েছেন - অহিংসার আন্দোলনে একটা দুষ্টচক্ৰ হিংসার চেষ্টা চালাবে। হিংসাকে প্ৰশ্ৰয়া না দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি সবাইকে অহিংস নীতিতে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন।

গুয়াহাটি পুলিশ কমিশনার দীপক কুমার জানিয়েছেন- ক্যাব বিরোধী আন্দোলনে অসামাজিক চক্ৰ জড়িয়ে আছে, ছাত্ৰ সংগঠনের আন্দোলনের পরে ওই চক্ৰটি গুয়াহাটিতে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছে। 

 ইতিমধ্যেই কেন্দ্ৰীয় স্বরাষ্টমন্ত্ৰী সংদসদে ক্যাব পাশ করতে গিয়ে বলেছেন- অসমিয়া ভাষার কৃষ্টি সংস্কৃতচি রক্ষায় সৰ্বতোভাবে চেষ্টা করা হবে। তার জন্য অসম চুক্তির ৬ নম্বর ধারা কাৰ্যকরীর জন্য এক উচ্চপৰ্যায়ের কমিটি গঠন করা হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গের দিতে তাকিয়ে বলেছেন পশ্চিমবঙ্গের বাঙালি হিন্দুরা যখনই আসুক ১৯১৪ সালের ৩১ ডিসেম্বরের আগে পৰ্যন্ত তাদের নাগরিকত্ব দেওয়া হবে। স্বরাষ্ট্ৰমন্ত্ৰী বারবার বলেছএন- মুসলিম জনগোষ্ঠীর ভয়ের কোনও কারণ নেই। যারা আছেন তাদের ভয়ের কোনও কারণ নেই।

ডিব্রুগড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সেনা নামানো হয়েছে । মেঘালয় - অসম সীমান্তের খানাপাড়াতে ভেটেরিনারি কলেজের ছাত্ররা সড়ক অবরোধ করে ।





No comments

Powered by Blogger.