Header Ads

গুয়াহাটির ব্যাপক ভাঙচুর,ও জনতা ভবন আক্রমণের ঘটনা তদন্তে রাজ্য সিট গঠন করলো, ঘটনায় কংগ্রেসের দিকে আঙ্গুল তুললেন হিমন্ত বিশ্ব শর্মা



অমল গুপ্তঃ গুয়াহাটী: গুয়াহাটি মহানগরে ব্যাপক ভাঙচুর, জনতা ভবন আক্রমণ প্রভৃতি ঘটনাকে  ভয়ানক ষড়যন্ত্র বলে অভিহিত করে  অসম সরকার  এ ডি জি পি  মৃদুল চন্দ্র শর্মার নেতৃত্বে  বিশেষ  তদন্তকারী দল বা সিট   গঠন করল,  এবং এই গভীর   চক্রান্ত  ভালোভাবে তদন্তের জন্যে সি বি আই বা  এন আই এ এর একজন  অভিজ্ঞ অফিসার কে সরকারের গঠিত সিট  এ সামিল করার জন্যে কেন্দ্রীয় সরকার কে অনুরোধ জানাবে অসম সরকার। আজ   দ্বিতীয়দিন সাংবাদিক সম্মেলন করে অর্থ মন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা একথা জানান। তিনি গুরুতর অভিযোগ করে, ভি ডি ও দেখিয়ে  প্রমাণ করার চেষ্টা করলেন, যুব  কংগ্রেস এর  সভাপতি  কাম রুল ইসলাম চৌধুরী ,  একজন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ,   পূর্বের সিমি বর্তমানে  পি এফ আই  এর   কর্মীরা দিসপুর জনতা ভবন জ্বালিয়ে দেবার গভীর চক্রান্তে লিপ্ত হয়েছিল। গতকাল বলেছিলেন শঙ্কারদেব কলাক্ষেত্র আক্রমণে কংগ্রেসের সংগঠন এন এস   ইউ  আই এর  ভাইস প্রেসিডেন্ট জড়িত ছিলেন।তিনি জানান , গুয়াহাটির ঘটনায় 200 জন কে আটক করা হয়েছিল, 107  জন কে গ্রেফতার করা হয়েছে। গুয়াহাটির ঘটনায় বরপেটা,  ধুবরী, গোয়ালপাড়া, নলবাড়ী প্রভৃতি নিম্ন অসমের মানুষ গুয়াহাটি মহানগরে  পরিকল্পনা করে   আক্রমণ  করেছে। আক্রমণ কারীদের মধ্যে 48 জন নিম্ন অসমের। আক্রমণ কারীরা এক বিশেষ জনগোষ্ঠীর সে কথা  বোঝাবার  চেষ্টা করলেন মন্ত্রী।  আসুর আন্দোলনের সঙ্গে কোনো সম্পর্ক না থাকা  এবং এই আন্দোলনে সুযোগ গ্রহণ করা   একাংশ দুস্কৃতিকারীর  এই  চক্রান্ত কে  এক ডিজাইন বলে ব্যাখ্যা করে মন্ত্রী জানান, নওগাঁ  থেকে একজন  হোয়াটস আপ বার্তা দিয়ে  আসুর আন্দোলন স্থান   নয়, জনতা ভবনের দুই নম্বর গেটে সকাল নয় টা 30 মিনিটে উপস্থিত থাকার   নির্দেশ   দেন।  কংগ্রেস সাংসদের সঙ্গে সেই ব্যাক্তির সম্পর্ক আছে বলে মন্ত্রী দাবি করলেন। তিনি  সরকারি কর্মচারীদের   হুঁশিয়ারি করে বলেন,  যারা আন্দোলন কারীদের সঙ্গে সামিল হতে চান তাদের    ক্যাজুয়াল   ছুটির আবেদন করে যেতে হবে। তবে কোনো   রাজনৈতিক দলের ব্যানারে যেতে পারবে না।  হাসপাতালে রুগী না দেখে, ছাত্র ছাত্রীদের  না পড়িয়ে  বিদ্যালয় ছেড়ে   আন্দোলনে  যোগ দেওয়া যাবে না।   কৃষক মুক্তি  সংগ্রামের নেতা অখিল গগই কে হাতকড়া পড়িয়ে  নিয়া আদালতে   হস্তান্তর করা হয়।  তিনি চিৎকার করে অভিযোগ  করেন তার উপর অত্যাচার করা হয়েছে  এই  গ্রেফতার নিয়ে মন্ত্রী  বেশি কথা বললেন না।   ইন্টারনেট সেবা সম্পর্কে জানান   বৃহস্পতিবার এর আগে  নেট খোলার সম্ভাবনা নেই , তবে আজ থেকে   বি এ এস এন এল এর ব্রডব্যান্ড নেট চালু হয়েছে। গুয়াহাটি কারফিউ  প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়েছে। আজও আসু তাদের আগের  প্রস্তাব অনুযায়ী গণ সত্যগ্রহ করে ,144 আইন ভঙ্গ করে  গ্রেফতার বরণ করে। সারা রাজ্যেও এই আন্দোলোন হয়। আসু র উপদেষ্টা সমুজ্জ্বল ভট্টাচার্য বলেন, রাজ্যে  লাগাতার   শান্তিপূর্ণ   আন্দোলন চলবে, সেই সঙ্গে সুপ্রিমকোর্টে আইনি যুদ্ধও চলবে।  কা বাতিল  না হওয়া পযন্ত আন্দোলন চলবে।

No comments

Powered by Blogger.