Header Ads

লরির চাপায় মৃত্যু হল দুই কিশোরী, ১৪৪ ধারা বলবৎ

নয়া ঠাহর প্রতিবেদন, শিলচর : নো-এন্ট্রি না মেনে সন্ধ্যা রাতেই তাণ্ডব পোস্থ বোঝাই ট্রাকের দূর্গাপল্লী এলাকায়।মৃত দুই কিশোরী। আহত ২১ জন মত। এর মধ্যে বেশিভাগ মহিলা। ঐ ঘটনায় ১৪৪ ধারা বলবৎ করলেন, কাছাড়ের জেলাশাসক।শিলচর বুধবার রাতে শহরতলীতে তাণ্ডব চালিয়ে ছিল ট্রাক নং NL-01k -9741- এর চালক প্রসন্ন রামসিয়ারী ও খালাসি রাজকুমার দাস। তাদেরকে পুলিশ আটক করে শিলচর আদালতে পাঠাতে সক্ষম হলেন। তাদের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধির 279/338/337/427/307/302 ধারার মামলা হল। 
সন্ধ্যা রাত পোস্থ বোঝাই ট্রাকটি কর্মরত ট্রাফিক পুলিশের  'সিগন্যাল ' না মেনে বেপোরোয়া ভাবে  চলিয়ে দূর্গাপল্লী কালী প্রতিমা নিয়ে বিসর্জনের  শোভযাত্রায় আঘাত করল লরিটি চালক।কালী প্রতিমার মূর্তি বিসর্জন যাত্রার আনন্দেকে মাঠি করল দুই স্কুলছাত্রী  কিশোরীর মৃত্যুতে। মৃত কিশোরীর যথাক্রমে নাম হল,সোনালী দাস (১৪) ও পম্পা দে (১৫)। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে শহর তলিতে একরাশ উত্তেজনা ও উচ্ছৃঙ্খলতা মাঝে প্রতিবাদ চলে। ঘাতক ট্রাকে জ্বালাল মারমুখি উগ্রজনতা। সঙ্গে আরও যানবাহন নষ্ট করলো উগ্র  কিছু লোক। 
এর জেরে ধৃত হল কয়েক জন দোষী ব্যক্তি। দুই  কর্মরত ট্রাফিক পুলিশকর্মিকেও 'ক্লোজ' করা হল। কাছাড়ের জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ভারতীয়  ফৌজদারি কার্যবিধির ১৪৪ ধারা বলবৎ করতে বাধ্য হলেন শান্তি রক্ষার্থে। ট্রাফিক পুশিসদের  'ডিউটি' বর্জনের পরিবেশের চিত্র সামনে এলো জনগণের।  বুধবার রাতে এইধরনের পরিস্হিতিকে বাগে আনতে  আসাম রাজ্যের উপাধ্যক্ষ আমিনুল হক লস্কর ও শিলচরের সাংসদ ডা: রাজদীপ রায়কে সক্রিয় থাকতে দেখা গেছে। এখন  বতর্মানে শিলচর সহর এলাকা শান্তি পরিবেশ চোখে পরছে। তবে জেলা প্রশাসন ও পুলিশবাহিনী সজাগ দৃষ্টি রাখছেন। আইন অমান্য করলে অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে  কঠোর শাস্তি প্রধান করার বার্তা দিলেন জেলা শাসক।
মর্মান্তিক দূর্ঘটনার জন্য শিলচরের প্রাক্তন  সাংসদ সুস্মিতা দেব গভীর শোক   প্রকাশ করেন। সম্প্রতি, এ ধরনের সড়ক দূর্ঘটনায় বলি হন চিত্র সাংবাদিক মলিন শর্মা, শিক্ষক জগদীশ চক্রবর্তী।

No comments

Powered by Blogger.