Header Ads

সড়ক নির্মাণের দাবিতে পথ অবরোধ ডিমাসা স্টুডেন্টস ইউনিয়নের

বিপ্লব দেব, হাফলংঃ লোয়ার হাফলং থেকে হাফলং মুখ্য ডাকঘর পর্যন্ত সড়ক নির্মানের দাবিতে এবং এই সড়ক নির্মান কাজে যুক্ত ঠিকাদারকে কালো তালিকাভূক্ত করার দাবিতে মঙ্গলবার হাফলং শহরের রাজপথে অবরোধ গড়ে তোলে ডিমাসা স্টুডেন্টস ইউনিয়ন। হাফলং শম্ভোধন প্রতিমূর্তির পয়েন্ট থেকে সিনড হাইস্কুল পর্যন্ত সড়ক পথে মঙ্গলবার সকাল ১০ টা থেকে দুপুর ১ টা পর্যন্ত সড়ক অবরোধের ডাক দেয় ডিমাসা স্টুডেন্টস ইউনিয়ন। সকাল ১০ টায় অবরোধ শুরু হলে শহরে প্রচণ্ড যানজটের সৃষ্টি হয়। 


এদিকে অবরোধের খবর পেয়ে জেলাপ্রশাসনের পক্ষ থেকে ম্যাজিষ্ট্রেট ইবন টেরন অবরোধ স্থলে ছুটে এসে ছাত্র সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক প্রমিত সেঙ্গইয়ংয়ের সঙ্গে আলোচনা করে অবরোধ তুলে নেওয়ার আহ্বান জানালে তিনি এতে রাজি হয়নি। অবশেষে ছুটে আসেন উত্তর কাছাড় পার্বত্য স্বশাসিত পরিষদের ইএম নিপোলাল হোজাই ও নন্দিতা গার্লোসা শুরু হয় অবরোধকারীদের সঙ্গে আলোচনা। নিপোলাল প্রমিত সেঙ্গইয়ংকে বলেন ডিসেম্বর মাসের মধ্যে সড়ক নির্মানের কাজ সম্পূর্ণ করা হবে এবং এই সময়ের মধ্যে যদি সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার যদি সড়ক নির্মাণের কাজ সম্পূর্ণ করতে না পারলে ঠিকাদারের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে এই আশ্বাস পাওয়ার পরও অবরোধকারীরা তাদের দাবিতে অটল থাকে প্রমিত বলেন পূর্ত বিভাগের কোন আধিকারিক অবরোধ স্থলে এসে তাদের প্রতিশ্রুতি না দিলে তারা অবরোধ প্রত্যাহার করবে না। 

অবশেষে পূর্ত বিভাগের অ্যাডিশনাল চিফ ইঞ্জিনিয়ার ও গৌতম কুমার সরকার ও এসি সত্যজিৎ নাথ অবরোধকারীদের আশ্বস্ত করে বলেন ডিসেম্বরের মধ্যেই সড়ক নির্মাণের কাজ সম্পূর্ণ করা হবে আর এ ক্ষেত্রে ঠিকাদার যদি সড়ক নির্মাণে ব্যর্থ হয় তাহলে ঠিকাদারের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে এই আশ্বাস পাওয়ার পরও অবরোধকারীরা তাদের দাবিতে অটল থাকে।

 প্রমিত বলেন পূর্ত বিভাগের কোন আধিকারিক অবরোধ স্থলে এসে তাদের প্রতিশ্রুতি না দিলে তারা অবরোধ প্রত্যাহার করবে না। অবশেষে পূর্ত বিভাগের অ্যাডিশনাল চিফ ইঞ্জিনিয়ার ও গৌতম কুমার সরকার ও এসি সত্যজিৎ নাথ অবরোধ কারীদের আশ্বস্ত করে বলেন ডিসেম্বরের মধ্যেই সড়ক নির্মানের কাজ সম্পূর্ণ করা হবে আর এ ক্ষেত্রে ঠিকাদার যদি সড়ক নির্মাণে ব্যর্থ হয় তাহলে ঠিকাদারের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে এবং এনিয়ে পূর্ত বিভাগের ভারপ্রাপ্ত ইঞ্জিনিয়ার কামিনী কুমার ডেকার সঙ্গে আলোচনা করা হবে। এই আশ্বাস পাওয়ার পরই ডিমাসা স্টুডেন্টস ইউনিয়ন দুপুর সাড়ে বারোটা নাগাদ তাদের সড়ক অবরোধ প্রত্যাহার করে নেয়। ডিমাসা স্টুডেন্টস ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক সাংবাদিকদের সামনে অভিযোগ করেন সড়ক অবরোধের কথা জানতে পেরে পূর্ত বিভাগের ইঞ্জিনিয়ার পালিয়ে গেছেন। কারন পূর্ত বিভাগের ব্যর্থতার দরুনই আজ হাফলং শহরের রাজপথের এই করুন দশা ধূলোর ঝড়ে নাকাল হয়ে পড়েছেন সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে স্কুল পড়ুয়ারা। তিনি বলেন লোয়ার হাফলং থেকে হাফলং মুখ্য ডাকঘর পর্যন্ত এই পূর্ত সড়ক নির্মানের দায়িত্ব ২০১৮ সালের মে মাসে পায় ঠিকাদার ডেভিড ফংলো এবং এই কাজ সম্পূর্ণ করার সময় সীমা ছিল ছয়মাস অর্থাৎ ২০১৮ সালের নভেম্বর কিন্তু এখন দেড় বছর অতিক্রম হয়ে যাওয়ার পর ও সড়ক নির্মানের কাজ সম্পূর্ণ করতে পারেনি সংশ্লিষ্ট ঠিকাদার। ৩ কোটি ৯১ লক্ষ টাকা ব্যয়ে এই ছয় কিলোমিটার রাস্তা নির্মান কাজ সম্পূর্ণ না করে ১ কোটি টাকার বেশি বিল তুলে নিয়েছে ঠিকাদার ডেভিড ফংলো। প্রমিতের আরো অভিযোগ একমাত্র পূর্ত বিভাগের ভারপ্রাপ্ত ইঞ্জিনিয়ার কামিনী কুমার ডেকার অকর্মণ্যতার দরুন ঠিকাদার নিজের খেয়াল খুশি মত করে কাজ করছে। তাই আগামী ডিসেম্বরের মধ্যে সড়ক নির্মাণের কাজ সম্পূর্ণ না হলে ডিমা স্টুডেন্টস ইউনিয়ন তীব্র আন্দোলন গড়ে তোলা হবে বলে হুঁশিয়ার করে দেন ডিমাসা স্টুডেন্টস ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক প্রমিত সেঙ্গইয়ং।

No comments

Powered by Blogger.