Header Ads

খাবার খাদ্য পরিবেশন করা হচ্ছে, অভিযোগ তুলে মিড ডে মিল মহিলা কর্মীদের বিক্ষোভ, আন্দোলন অব্যাহত

অমল গুপ্ত, গুয়াহাটি

কেন্দ্রীয় সরকারের নীতি অনুযায়ী সরকারি বিদ্যালয়ের প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশু ছাত্রছাত্রীদের দুপুরের খাদ্য প্রদান করা হয়। অসমে স্থানীয়ভাবে মাত্র এক হাজার টাকা করে পারিশ্রমিক দিয়ে প্রায় ১ লাখ ১৭ হাজার টাকায় মহিলা কর্মীকে নিয়োগ করা হয়। প্রাক্তন শিক্ষামন্ত্রী হিমন্ত বিশ্ব শর্মা কংগ্রেস আমলে অক্ষয় পাত্র নামে এক সংস্থার  মাধ্যমে বিদ্যালয়ে মিড ডে মিল দেওয়ার ব্যবস্থা করেছিলেন। তখন কিন্তু বড় ধরনের অভিযোগ ওঠেনি। গত ১ নভেম্বর থেকে ১৫ টি এনজিও এই খাদ্য সরবরাহ করছে। 

 প্ৰতীকী ছবি, সৌঃ ইন্টারনেট
 তারপর থেকে রাজ্যজুড়ে প্রতিবাদ বিক্ষোভ শুরু হয়েছে। খাদ্যের গুণমান খারাপ, ছাত্র অনুপাতে খাদ্যের পরিমাণ কম ইত্যাদি অভিযোগ করে রাজ্যে আন্দোলন চলছে। সামাগুড়ি, গোয়ালপাড়া, রঙ্গিয়া, সোনারী, নগাঁও, কাছাড়,তামুলপুর, ডিব্রুগর প্রভৃতি জায়গা থেকে রাঁধুনিদের আন্দোলোনের খবর পাওয়া গেছে। শিক্ষামন্ত্রী আজ ফের  স্মরণ করিয়ে করিয়ে দিয়েছেন,খাদ্যের গুণমান পরীক্ষা করা হবে। কারও চাকরি যাবে না।

তাদের বেতন বৃদ্ধির ক্ষমতা তাদের নেই। সব কিছু কেন্দ্রীয় সরকারের উপর নির্ভর করছে। তিনি অভিযোগ করেন একাংশ এনজিও সম্পর্কে ভুল তথ্য দিয়ে বিভ্রান্ত ছড়াচ্ছে।  এক কালো তালিকা থাকা এনজিও কে ঠিকা দেওয়া হয়েছে। এই অভিযোগ সম্পর্কে বলেন, অভিযোগ থাকলে খতিয়ে দেখা হবে। আসুর উপদেষ্টা সমুজ্জ্বল ভট্টাচার্য আজ বলেন, শিশু ছাত্রদের অখাদ্য খাবার দেওয়া হলে তা তারা কিছুতেই মানবে না।

No comments

Powered by Blogger.