Header Ads

ইমরান খান ইস্তফা দিলে ভালো, নাহলে কেড়ে নেব ক্ষমতা : মৌলানা ফজলুর রহমান

বিশ্বদেব চট্টোপাধ্যায় : নিজেকে বিশ্বের মুসলিমদের প্রতিনিধি মনে করা ইমরান খান এবার সমস্যায় পড়েছেন। প্রধানমন্ত্রী পদ থেকে ইমরান খান যেন ইস্তফা দেন তার জন্য দাবি জোরদার হচ্ছে। পরিস্থিতি এমন যে, ইমরান খানের সরকার মিডিয়ার উপর বিশেষ কিছু নিষেধাজ্ঞা জারি করে দিয়েছে। পাক মিডিয়া এখন আর নিজেদের ব্যাক্তিগত মতামত প্রকাশ করতে পারছে না। জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম (এফ) নেতা মৌলানা ফজলুর রহমানের নেতৃত্বে বিরোধীদের ‘আজাদি মার্চ’ ইসলামাবাদ পৌঁছে বড়ো আন্দোলন শুরু করেছে। পাকিস্তানে এখন তেহেরিক-এ-ইনসাফ এর পার্টি ক্ষমতায় রয়েছে।
কিন্তু চারিদিক থেকে এই সরকারকে ছুঁড়ে ফেলার জন্য চেষ্টা চলছে। কারণ পাকিস্তানের অর্থব্যবস্থা ভেঙে পড়েছে, মূল্যবৃদ্ধি চরম সীমায় পৌঁছে গেছে। সাধারণ মানুষজন দু’বেলা খাবারের জন্য প্রাণপাত করছে। পাক সরকার ক্ষমতায় আসার আগে যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল তার একটাও পূরণ হয়নি। উলটে পাকিস্তান বিক্রি হওয়ার মতো সংকটে এসে দাঁড়িয়েছে। মৌলানা ফজলুর রহমানের নেতৃত্বে বিরোধী পার্টিগুলো দেশে বৃহত্তর আন্দোলনের ডাক দিয়েছে। মৌলানা ফজলুর রহমান বলেছেন, জনগণ যেমন চাইবে ঠিক সেইভাবে আমরা এগিয়ে যাবো। রহমান বলেন, ইমরান খানের সরকার দূর্নীতি করে ক্ষমতায় এসেছিল।
অর্থাৎ ইমরানের ক্ষমতায় আসার পেছনে পাকিস্তানের সেনার হাত আছে বলে ইঙ্গিত করেন মৌলানা ফজলুর রহমান। অন্যদিকে ইমরান খান বলেছেন, তিনি কোনোভাবেই ইস্তফা দেবেন না। কারণ ইস্তফা দিলে দেশে অরাজকতার পরিবেশ তৈরী হবে।
মৌলানা ফজলুর রহমান বলেছেন, আমাদের ইস্তফা চাই আর সেটা আমার নেবো। ইসলামাবাদে সমস্ত বিরোধীরা জড়ো হয়ে ডাক দিয়েছেন যে তারা ইমরান খানকে ৩ দিনের সময় দেবেন। বৃহস্পতিবার সকালে পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) চেয়ারম্যান বিলাওয়াল ভুট্টো বলেন এবার ইমরান খানের সরকার ভেঙে ফেলার সময় চলে এসেছে। এই বার্তা দেওয়ার জন্য সমস্ত বিরোধী দল এক প্ল্যাটফর্মে এসেছে।

No comments

Powered by Blogger.