Header Ads

আতঙ্কের নাম 'বুলবুল' ! পশ্চিমবঙ্গ উপকূল থেকে সতর্কতা উত্তরপূর্বেও !!

বিশ্বদেব চট্টোপাধ্যায়
আতঙ্কের অপর নাম বুলবুল। আবহাওয়া দফতরের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, ক্রমেই শক্তি বাড়াচ্ছে এই ঘূর্ণিঝড়। ভোর ২.৩০ নাগাদ এর অবস্থান ছিল কলকাতা থেকে ৩৩৫ কিমি দক্ষিণ দক্ষিণ পশ্চিমে। পরবর্তী ছয় ঘন্টায় আরও শক্তি বাড়িয়ে উত্তরের পথে অগ্রসর হবে বলেই মনে করছে আবহাওয়া দফতর। মধ্যরাতের আগেই সাগরদ্বীপের কাছে আছড়ে পড়তে পারে।
আপাততঃ বুলবুলের দিক উত্তরমুখী থাকলেও এদিন সকালে পরে তা অভিমুখ পরিবর্তন করতে পারে। ভারতের সাগরদ্বীপ এবং বাংলাদেশের খেপুপাড়ার মধবর্তী জায়গা দিয়ে সেটি স্থলভাগে আছড়ে পড়তে পারে।


আবহাওয়া দফতরের দেওয়া পূ্র্বাভাস অনুযায়ী, শনিবার বিকেল থেকে রাতের মধ্যে ঘূর্ণিঝড় বুলবুল অতিপ্রবল রূপ নিয়ে স্থলভাগে আছড়ে পড়বে। সেই সময় এর বেগ থাকতে পারে ঘন্টায় ১৩৫ কিমি।
পশ্চিমবঙ্গের সাগরদ্বীপ ছুঁড়ে বেরিয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা বুলবুলের। এরপর বাংলাদেশের ওপর দিয়ে গিয়ে বুলবুল আছড়ে পড়তে পারে মিজোরাম, ত্রিপুরা, অসম, মেঘালয়ে। ঝড়ের পাশাপাশি রাজ্যগুলিতে হাল্কা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাতও হতে পারে বলে জানানো হয়েছে আবহাওয়া দফতরের তরফে। আপাতত এটি অতিপ্রবল ঘূর্ণিঝড়ের রূপে থাকলেও, স্থলভাগে প্রবেশ করার পর সেটি প্রথমে প্রবল ঘূর্ণিঝড় এবং পরে নিম্নচাপে পরিণত হবে।
উপকূলের বেশিরভাগ জায়গায় হাল্কা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত হলেও, কোনও কোনও জায়গায় ভারী বৃষ্টিপাত হবে বলে জানানো হয়েছে আবহাওয়া দফতরের সতর্কবার্তায়। যার মধ্যে রয়েছে উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা এবং পূর্ব মেদিনীপুরের অংশ। এছাড়াও, কলকাতা, পশ্চিম মেদিনীপুর, হাওড়া এবং হুগলিতেও বৃষ্টি হবে বলে জানানো হয়েছে। বুলবুলের প্রভাবে বৃষ্টি চলবে রবিবারও। সেদিন অবশ্য উপকূল এলাকা বাদ দিলে উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা এবং নদিয়ার বেশ কিছু জায়গায় ভারী বৃষ্টি হতে পারে বলে জানানো হয়েছে।
বুলবুলের জেরে প্রবল বেগে হাওয়া বয়ে যেতে পারে। ঘন্টায় যার বেগ হতে পারে ১৬৫ কিমি পর্যন্ত।
কলকাতা, উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা, হাওড়া, হুগলি, নদিয়া, মুর্শিদাবাদে কাঁচা বাড়ির ছাদ উড়ে যেতে পারে বলে সতর্কবার্তায় জানিয়েছে হাওয়া অফিস। গাছ পড়েও ক্ষতিক্ষতির আশঙ্কা করা হয়েছে। পাশাপাশি উপকূল এলাকায় ফসলেরও ক্ষতি হতে পারে বলে জানানো হয়েছে।
উত্তর, দক্ষিণ ২৪ পরগনা এবং পূর্ব মেদিনীপুরের মৎস্যজীবীদের প্রতি লাল সতর্কতা জারি করা হয়েছে। ৯ ও ১০ নভেম্বর সমুদ্রে না যেতে তাদের সতর্ক করা হয়েছে।

No comments

Powered by Blogger.