Header Ads

ইসরোর বিজ্ঞানীরা করেছেন দুর্দান্ত কাজ, প্রশংসায় মুখর চীনের মিডিয়া

বিশ্বদেব চট্টোপাধ্যায় : ইসরো’র চন্দ্রযান-২ নিয়ে অনেকের মনে ভুল ধারণা জন্মেছে। অনেকে ভেবে নিয়েছেন যে চন্দ্রযান-২ সফল হয়নি বা সামান্য সফল হয়েছে। কিন্তু প্রকৃত সত্য হল চন্দ্রযান-২ প্রায় ১০০% সাফল্যের কাছাকাছি পৌঁছে গেছে। এর কারণ, চন্দ্রযান-২’র মূলত দুটি উদেশ্য ছিল। এক, অর্বিটারকে সঠিকভাবে চাঁদের চারিদিকে চক্কর কাটানো। দুই, ল্যান্ডারকে চাঁদের বুকে নামিয়ে সেটার ভেতর থেকে রোভারকে বের করে চাঁদে চলাফেরা করানো। প্রথম উদেশ্য ১০০% সফল হয়েছে। আর এটাই ছিল মূল কাজ, অর্বিটার এবার ৭ বছর ধরে ইসরোকে চাঁদের ছবি ও নানা তথ্য প্রেরণ করতে থাকবে।
দ্বিতীয় উদেশ্য ছিল--টেকনোলজি পরীক্ষণ। অর্থাৎ চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে নামার জন্য টেকনোলোজি কাজ করছে কিনা। প্রথমে মনে করা হচ্ছিল যে লান্ডার ক্র্যাশ হয়েছে। কিন্তু এখন এটা স্পষ্ট যে লান্ডার চাঁদে নেমে গেছে এবং কোনো ক্ষতি ছাড়াই নেমেছে। সমস্যা একটাই যে ল্যান্ডারের সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়েছে। অর্থাৎ এটাও প্রায় ৯৮% এর উপরে সফল। যদি বাকি দিনের মধ্যে যোগাযোগ হয়ে যায় তাহলে এটাও ১০০% সফল হবে। 
কিন্তু বিষয়টি নিয়ে অনেকের মনে সংশয় ছড়িয়ে পড়েছে। যার জন্য অনেকে ভাবছেন যে মিশন অসফল হয়েছে। তবে বিশ্বের বিজ্ঞানীরা ইসরোর উপলব্ধিটা ধরতে পেরেছেন। যার জন্য নাসা থেকে শুরু করে অন্যান্য বিজ্ঞানীরা ইসরো বিজ্ঞানীদের প্রশংসায় পঞ্চমুখ হয়েছে। ভারতের বিজ্ঞানীরা দুর্দান্ত কাজ করেছে বলে দাবি চীনের বিজ্ঞানীদেরও।
চীনের সোশ্যাল মিডিয়াতেও ভারতের বিজ্ঞানীদের প্রশংসা ছড়িয়ে পড়েছে। চীনের এক বিজ্ঞানী বলেছেন, যারা মহাকাশ অন্বেষণ করার চেষ্টা করছেন তারা সবাই আমাদের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা ও প্রশংসার দাবিদার। চীনা সংবাদপত্র গ্লোবাল টাইমসে এক বিজ্ঞানী বিবৃতি দিয়ে বলেছেন  যে, চন্দ্রায়নের অ্যাটিচিউড কন্ট্রোল থ্রাস্টার (ACT) নিয়ন্ত্রণ না হওয়ায় ল্যান্ডারের সাথে যোগাযোগের বিচ্ছেদের কারণও হতে পারে।

No comments

Powered by Blogger.