Header Ads

অনুব্রত বিজেপিতে আসতে চাইছেন ! বিজেপি সাংসদের বিস্ফোরক মন্তব্যে জল্পনা তুঙ্গে

বিশ্বদেব চট্টোপাধ্যায় : অনুব্রত মণ্ডল বিজেপিতে আসতে চাইছেন। এমনই বিস্ফোরক মন্তব্য করে বসলেন বিজেপির নব নির্বাচিত সাংসদ। বিষ্ণুপুরের বিজেপি সাংসদ সৌমিত্র খাঁ দাবি করেন, বীরভূম জেলা তৃণমূল সভাপতি অনুব্রত মণ্ডল মামলার হাত থেকে বাঁচতে বিজেপিতে আসতে চাইছেন। মঙ্গলবার অনুব্রত-গড়ে দাঁড়িয়েই তিনি এই বার্তা দেন।
লোকসভায় বিষ্ণুপুর থেকে জেতার পর তাঁকে অনুব্রত-গড়ে পর্যবেক্ষক হিসেবে নিযুক্ত করেছে বিজেপি। মঙ্গলবার বিজেপির অবস্থান মঞ্চ থেকে তিনি অনুব্রত মণ্ডলের বিরুদ্ধে তোপ দেগে বলেন, ১২ দিন আগে ৩০০ গুন্ডা নিয়ে আমাকে হারাতে গিয়েছিল। আমি তা রুখে দিয়েছি।
তৃণমূল জেলা সভাপতিকে কয়লা চোর, বালি মাফিয়া বলে অভিযুক্ত করেন তিনি। অনুব্রত গড়ে দাঁডিয়েই দুঃসাহস দেখিয়ে তিনি বলেন, বিজেপি ক্ষমতায় এলে এসবের বিচার হবে। কেউ পার পাবে না। অনুব্রত মণ্ডলও তা বুঝতে পেরেছেন। তাই তিনি মামলার হাত থেকে বাঁচতে এখন থেকেই বিজেপিতে আসার চেষ্টা করছেন।
বিজেপির সাংসদ এদিন পুলিশকেও একহাত নেন। তিনি বলেন, জেলা পুলিশ সুপার শ্যাম সিং আসলে জেলা তৃণমূল সভাপতির মতো কাজ করছেন। ব-কলমে তিনিই যেন তৃণমূল জেলা সভাপতি। তবে সব পুলিশ সমান নয়। সব পুলিশ আমাদের বিপক্ষেও নয়।
এদিন জেলার পর্যবেক্ষক হিসেবে দলীয় কর্মীদের উদ্দেশ্যে তাঁর বার্তা, বিজেপির অবস্থান মঞ্চ থেকে দলীয় কর্মীদের জঙ্গি আন্দোলন করার নির্দেশ দেন। তিনি বলেন, জেলায় কোনও ঘটনা ঘটলেই জেলার সব বুথে একসঙ্গে আন্দোলনে নামতে হবে। এমন আন্দোলন করতে হবে যাতে পুলিশ দিয়েও থামানো না যায়।
এদিন বিষ্ণুপুরের সাংসদ চাঞ্চল্যকর দাবি করেন, বিধানসভা নির্বাচনের ছ-মাস আগে রাজ্যে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হবে। ফলে সমস্ত পুলিশ নিরপেক্ষভাবে কাজ করবে তখন। তাই নির্বাচন হলে তৃণমূলের হার অবধারিত হয়ে গিয়েছে। এই অবস্থায় আমাদের কোনও গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব রাখলে চলবে না।

No comments

Powered by Blogger.