Header Ads

মিশন চন্দ্রযান-২ ১০০% সফলতার অনেক কাছে ! বললেন ইসরো প্রমুখ কে সিভান

বিশ্বদেব চট্টোপাধ্যায় : ইসরোর মিশন চন্দ্রায়ণ -২ ইতিহাস রচনা করতে পারেনি মনে হলেও ভারতীয় বিজ্ঞানীরা কেবল দেশ নয় বিদেশ থেকেও সন্মান অর্জন করেছেন। ভারতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থা (ইসরো) চাঁদের দক্ষিণে অবতরণের আগেই চন্দ্রায়ণ -২ এর ল্যান্ডারের সাথে যোগাযোগ হারিয়ে ফেলেছিল। ডিডি নিউজকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে ইসরো প্রমুখ কে সিভান বলেন, আমরা বিক্রম ল্যান্ডারের সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করছি। সামগ্রিকভাবে চন্দ্রায়ণ ২ মিশন ১০০% সাফল্যের খুব কাছাকাছি।
ল্যান্ডার বিক্রম ২ সেপ্টেম্বর অর্বিটার থেকে পৃথক হয়েছিল। শনিবার ভোর দেড়টায় বিক্রমের চাঁদের দক্ষিণ মেরুতে অবতরণের কথা ছিল। পরে এর সময় পরিবর্তন  হয় সকাল ১.৪৫ এ। ল্যান্ডার খুব আরামে নেমে আসছিল। ল্যান্ডার সাফল্যের সাথে তার মোটামুটি ব্রেকিং পর্বটি সম্পন্ন করে একটি ভাল গতিতে চন্দ্র পৃষ্ঠের দিকে এগিয়ে চলেছিল। এর পরে, হঠাৎ পৃথিবীর সাথে তার যোগাযোগ ছিন্ন হয়ে যায়। কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ খবর এটাই যে, ল্যান্ডার মাটিতে ক্র্যাশ করেনি। কারণ অর্বিটার ও ল্যান্ডারের মধ্যে কমিউনিকেশন চ্যানেল এখনও অন আছে। ল্যান্ডার ক্র্যাশ হলে অর্বিটারের সাথে কমিউনিকেশন চ্যানেল অন থাকতো না।
তবে ৯৭৮ কোটি টাকা ব্যয়ে এই চন্দ্রায়ণ ২-এর মিশন এখনও শেষ হয়নি। চন্দ্রায়ণ -২ এর তিনটি অংশ ছিল – অরবিটার, ল্যান্ডার বিক্রম এবং রোভার প্রজ্ঞান। যদিও ল্যান্ডার বিক্রম যোগাযোগ হারিয়ে ফেলেছে, তবুও অরবিটরের কাছ থেকে আশা রয়েছে। এক বছরের মিশনের সময়কালীন একটি কক্ষপথ থেকে চন্দ্রের বেশ কয়েকটি ছবি ইসরোতে পাঠাতে পারবে। সেটি এখনও চন্দ্র পৃষ্ঠ থেকে ১১৯ কিমি থেকে ১২৭ কিমি উচ্চতায় ঘুরছে। এর ওজন ২৩৭৯ কিলোগ্রাম। এটিতেও ৮টি পেড রয়েছে।
অন্যদিকে, ভারত ঋষিমুনিদের দেশ, পুরো বিশ্ব যখন চাঁদ, মহাকাশ ইত্যাদি নিয়ে কিছুই জানতো না, তখন ভারতের ঋষি আর্যভট্ট মহাকাশের জ্ঞান দিয়েছিলেন। আর সেই ডিএনএ  ভারতীয়দের মধ্যে এখনও দৌড়াচ্ছে। এই কারণে নাসা-ও ভারতের ছেলে মেয়েদের তাদের সংস্থায় নিযুক্ত করে। ভারতীয় মস্তিষ্কের কাছে বিশ্বের কোনো মস্তিষ্ক দাঁড়াতে পারে না। পুরো ভারত আজ ইসরোর পাশে দাঁড়িয়ে আছে। চন্দ্রায়ণ-২-এর ল্যান্ডারের সঙ্গে ইসরোর যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ার পর দেশ ও বিশ্বের বিশিষ্ট ব্যক্তিরা ইসরোর বিজ্ঞানীদের উৎসাহিত করছেন।
এই ধারাবাহিকতায় নাসা ইসরোকে সমর্থন করে বলেছে, “মহাকাশ অভিযান খুব জটিল বিষয়। আমরা চন্দ্রের দক্ষিণ মেরুতে ভারতের চন্দ্রায়ণ-২ মিশনে অবতরণের জন্য ইসরোর’র প্রচেষ্টার প্রশংসা করি। আপনারা আমাদের অনুপ্রেরণা জুগিয়েছেন এবং ভবিষ্যতে আমরা সৌরজগতের অন্বেষণে একসাথে কাজ করার অপেক্ষায় রয়েছি।’’
ল্যান্ডার বিক্রমের সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার পর সারা দেশে হতাশা ছড়িয়ে পড়েছিল। এখন ইসরো চেয়ারম্যান কে সিভান একটি সুসংবাদ দিয়েছেন। তিনি জানিয়েছেন যে চন্দ্রায়ণ -২ সাফল্যের ১০০% এর খুব কাছাকাছি রয়েছে। ইসরো আরও জানিয়েছে যে চন্দ্রায়ণ -২ এর সঠিক উদ্বোধন ও মিশন পরিচালনা সঠিক ছিল। যার কারণে প্রদক্ষিণরত অর্বিটারটি সাত বছর ধরে কাজ চালিয়ে যাবে। আগের গণনাগুলিতে, এর বয়স এক বছর হিসাবে অনুমান করা হয়েছিল। আসলে চন্দ্রায়ণ -২ ছিল এক ধরণের ৩-ইন -১ মিশন। এটির কক্ষপথের সাথে ল্যান্ডার বিক্রম এবং রোভার প্রজ্ঞানও ছিল। এই একক মিশনের সাহায্যে ইসরোর প্রচেষ্টা ছিল চাঁদের পৃষ্ঠতল এবং বহির্মুখের নীচে গবেষণা করা।
চাঁদ প্রদক্ষিণকারী অর্বিটরটি আমাদের পরবর্তী সময়ে চাঁদকে বুঝতে সাহায্য করবে। এটির মানচিত্র করবে এবং চাঁদে উপস্থিত খনিজগুলির সন্ধান করবে। এর জন্য আটটি বৈজ্ঞানিক যন্ত্র বসানো হয়েছে। সুতরাং, দেশবাসীর হতাশ হওয়া উচিত নয়, ল্যান্ডারের সাথে যোগাযোগ হারিয়ে যাওয়ার পরেও প্রচুর তথ্য প্রাপ্তি অব্যাহত থাকবে। তাই ইসরোর কাজের প্রশংসা করে নাসা একসাথে কাজ করতে চেয়েছে।

No comments

Powered by Blogger.