Header Ads

তৃণমূল থেকে বিজেপিতে যোগ দেওয়ানো নিয়ে ভুল স্বীকার মুকুল-পুত্রের, দলছুটদের নিয়ে কড়া বিবৃতি

বিশ্বদেব চট্টোপাধ্যায় : তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর আক্ষরিক অর্থেই ভুল স্বীকার করলেন মুকুল-পুত্র শুভ্রাংশু রায়। বাবার দলবদলের পর থেকেই জল্পনা চলছিল, তার দেড় বছরের মাথায় দল ছাড়ার পর তিনি বলেন, কিছু মানুষকে বিশ্বাস করা আমার মস্তবড় ভুল হয়ে গিয়েছে। এজন্য কাউকে দোষ দিচ্ছি না, কারণ ভুলটা আমার ব্যক্তিগত।
২০১৯ লোকসভা নির্বাচনে কার্যত তৃণমূলের ভরাডুবি হয়েছে। বিজেপির উত্থান ঘটেছে রাজ্যে। তার জেরে তৃণমূলের ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলতে শুরু করেছে গেরুয়া শিবির। আর এই অবস্থায় তৃণমূলে ভাঙন সাংঘাতিক রূপ নিয়েছে। ইতিমধ্যে অনেকেই দল ছেড়ে বিজেপিতে চলে গেছেন। কিন্ত তারপরই মোড় ঘুরতে শুরু করেছে। বিজেপি ছেড়ে ফের তৃণমুলে ফেরার হিড়িক পড়ে গিয়েছে।
এই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়েই ভুল স্বীকার করে নিলেন মুকুল রায়ের ছেলে তথা সদ্য তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করা শুভ্রংশু রায়। সম্প্রতি দলছুট কাউন্সিলররা আবার তৃণমুল কংগ্রেসে ফিরে যাচ্ছেন। এই পরিস্থিতি নিয়ে মুকুল-পুত্র বলেন, যারা ফিরে যাচ্ছেন, তাঁদের ছাড়া বিজেপির প্রার্থী এই কেন্দ্রে ভোটে জিতেছিলেন। অতএব দলছুটরা তৃণমূলে ফিরে যাওয়ায় বিজেপি কোনও চাপের মুখে পড়বে না।
অভিযোগ, উত্তর ২৪ পরগনার কাঁচরাপাড়া, হালিশহর এলাকায় বেশ কিছু বিজেপির কার্যালয় ও বিজেপি প্রভাবিত ক্লাব তৃণমূল কর্মীরা পুলিশের সহযোগিতায় দখল করে নেয়। এমনকী বীজপুর এলাকায় সম্প্রতি উষ্ণ রাজনৈতিক পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে প্রশাসনের উদাসীনতার কারণে। অসংখ্য বিজেপিকর্মী তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীদের হাতে মার খাচ্ছে বলেও অভিযোগ।
পুলিশ নিরপেক্ষতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে ব্যারাকপুর সাংগঠনিক জেলা বিজেপি নেতৃত্বের পক্ষ থেকে শনিবার দলীয় কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে বীজপুর থানা ঘেরাও অভিযান চালানো হয়। পুলিশের বিরুদ্ধে স্লোগান ওঠে। উপস্থিত ছিলেন সাংসদ অর্জুন সিং, বীজপুরের বিধায়ক শুভ্রংশু রায়, বিজেপির ব্যারাকপুর সাংগঠনিক জেলা সভাপতি ফাল্গুনী পাত্র।
অর্জুন সিং অভিযোগ করেন, পুলিশ দাঁড়িয়ে থেকে বিজেপির পার্টি অফিস দখল করছে। তবে যা-ই করুক, হালিশহর পুরবোর্ড আমাদেরই হবে। আমরা শীঘ্রই অনাস্থা প্রস্তাব আনব পুরবোর্ডের বিরুদ্ধে। ভাটপাড়া বোর্ড আমাদের হয়েছে, এবারও বলছি হালিশহর পুরবোর্ড বিজেপিরই হবে।

No comments

Powered by Blogger.