Header Ads

ঘোষিত হল লোকসভা নির্বাচনের দিনক্ষণ



দেবযানী পাটিকর, গুয়াহাটিঃ মুখ্য নির্বাচন কমিশনার সুনিল আরোরা রবিবার দিল্লির বিজ্ঞানভবনে দেশের ১৭ তম লোকসভা নির্বাচনের দিন ঘোষণা করেন। ৭টি পর্যায়ে অনুষ্ঠিত হবে ১৭ সংখ্যক লোকসভা নির্বাচন। ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে ১০ লাখ ভোট কেন্দ্রে। এদিন বিকেলে দেশের রাজধানী দিল্লিতে নির্বাচন কমিশনার লোকসভা নির্বাচনের দিন ঘোষণা করার পর এই নিয়ে এখন দেশবাসীর মনে উৎসাহের শেষ নেই। এই লোকসভা নির্বাচনের সঙ্গে অনুষ্ঠিত হবে চার রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনও। একথা নির্বাচন কমিশন ঘোষণা করে। অন্ধ্রপ্রদেশ ,অরুণাচল, সিকিম এবং ওড়িশায় লোকসভা নির্বাচনের পাশাপাশি বিধানসভার নির্বাচনও অনুষ্ঠিত হবে। জম্মু-কাশ্মীরেও নির্বাচনের দিন ঘোষণা করা হয়েছে। রবিবার থেকে বলবৎ হবে নির্বাচনের নিয়মাবলী। এই নিয়মাবলী লংঘন করলে নেওয়া হবে কঠোর ব্যবস্থা। অসমে তিনটি পর্যায়ে অনুষ্ঠিত হবে লোকসভা নির্বাচন। বিহুর আগেই অনুষ্ঠিত হবে প্রথম পর্যায়ের নির্বাচন। পাঁচটি কেন্দ্ৰে হবে প্রথম পর্যায়ের ভোটগ্রহণ। পাঁচটি কেন্দ্ৰে হবে দ্বিতীয় পর্যায়ের ভোট গ্রহণ এবং  চারটে কেন্দ্ৰে হবে তৃতীয় পর্যায়ের ভোটগ্রহণ। ১১ এপ্রিল অনুষ্ঠিত হবে প্রথম পর্যায়ের নির্বাচন, ১৮ এপ্রিল হবে দ্বিতীয় পর্যায়ের ভোটগ্ৰহণ এবং ২৩ এপ্রিল অনুষ্ঠিত হবে তৃতীয় পর্যায়ের ভোটগ্ৰহণ। ১১ এপ্রিল কলিয়াবর, ডিব্রুগড়, লখিমপুর, যোরহাট এবং তেজপুর কেন্দ্ৰে হবে প্ৰথম পৰ্যায়ের ভোটগ্ৰহণ। উল্লেখ্য, আসন্ন নির্বাচনের জন্য বিশেষ কিছু নীতিনিয়ম পালনের নির্দেশ দিয়েছেন নির্বাচন কমিশনার । এর মধ্যে ইভিএমে থাকবে প্রার্থীর ফটো, থাকবে নটার বোতাম। মোট ভোটগ্রহণ কেন্দ্রের সংখ্যা ১০ লাখ। এবার প্রথম নির্বাচনে ব্যবহার করা হবে ভিভিপেট মেশিন। নির্বাচনী প্রচারের ক্ষেত্ৰে কড়া নিয়ম করা হয়েছে। ভোটগ্ৰহণের ৪৮ ঘন্টা আগেই বন্ধ করতে হবে নির্বাচনী প্রচার। নির্বাচনী প্রচারের নামে জনসাধারণকে অশান্তি করা ও উচ্চস্বরে শব্দ ব্যবহারে নিষেধাজ্ঞা রয়েছে। যে কোনও ভোটারই ভোটার লিস্ট তার নাম দেখার জন্য মোবাইলে ১৯৫০ নম্বরে কল করে যোগাযোগ করতে পারবেন। লোকসভা নির্বাচনের আচরণবিধি লঙ্ঘন করতে পারবে না সোশ্যাল মিডিয়াতেও। সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারের জন্য নিতে হবে নির্বাচন কমিশনের অনুমতি। রাত ১০ টা থেকে সকাল ৬ টা পর্যন্ত লাউড স্পিকার বন্ধ থাকবে। বিধিভঙ্গ আপত্তির জন্য রয়েছে মোবাইল অ্যাপ। এই অ্যাপের দ্বারা যে কোনও অভিযোগ দিতে পারবে ভোটার। ৯০ কোটি ভোটার এবার ভোট দান করবে। দেশে বাড়লো ৮.৫ নিযুত ভোটার। ১৮ থেকে ১৯ বছরের ভোটারের সংখ্যা ১.৫০ কোটি। ১.৬০ কোটি সরকারি চাকুরিরত ভোটারের সংখ্যা। এদিকে ৫ বছরে ভোটারের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে ৭ কোটি। অপরাধ সংক্রান্ত অভিযুক্ত প্রার্থীরা তাদের অপরাধ সংক্রান্ত খবর তিনবার করে খবরের কাগজে তথা বৈদ্যুতিন প্রচার মাধ্যমে প্রকাশ করতে হবে। আগামী ২৩শে মে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করা হবে।


আসুন এক নজরে দেখে নিই অসমে কখন কোথায় নিৰ্বাচন-----

১১ এপ্ৰিলঃ তেজপুর, কলিয়াবর, যোরহাট, ডিব্ৰুগড়, লখিমপুর, ১৮ এপ্ৰিলঃ করিমগঞ্জ, শিলচর, পাৰ্বত্য জেলা মঙ্গলদৈ, নগাঁও, ২৩ এপ্ৰিলঃ ধুবড়ি, কোকরাঝাড়, বরপেটা, গুয়াহাটি।


No comments

Powered by Blogger.