Header Ads

আইএসএফের অনিৰ্দিষ্টকালের রেল অবরোধের জেরে শুক্রবারও পাহাড় লাইনে রেল চলাচল ছিল স্তব্দ

বিপ্লব দেব, হাফলংঃ পাহাড় লাইনে রেল অবরোধের জেরে শুক্ৰবারও রেল চলাচল সম্পূর্ণ স্তব্দ ছিল। লামডিং-শিলচর ব্রডগেজ রেলপথে এন সি হিলস ইন্ডিজেনাস স্টুডেন্ট ফোরামের ডাকা অনিৰ্দিষ্টকালের রেল অবরোধের ফলে দক্ষিণ অসম সহ ত্রিপুরা, মনিপুর, মিজোরামের রেলযাত্রীরা প্রচন্ড দূর্ভোগের মধ্যে পড়েছেন। কবে নাগাদ এই রেল অবরোধ উঠবে এনিয়ে রয়েছে সম্পূর্ণ অনিশ্চয়তা। কারণ ইন্ডিজেনাস স্টুডেন্ট ফোরাম তাদের সিদ্ধান্তে অনড় রয়েছে। ছাত্র সংগঠনটির দাবি উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেলের জেনারেল ম্যানেজার যত সময় পর্যন্ত অবরোধ স্থলে না এসে ক্ষতিপূরণ মিটিয়ে দেওয়ার লিখিত প্রতিশ্রুতি না দেওয়া পর্যন্ত রেল অবরোধ কোনও অবস্থায় প্রত্যাহার করবে না বলে ছাত্র সংগঠনটি সাফ জানিয়ে দেয় শুক্রবার। এদিকে ফোরামের সভাপতি ডেভিড কেভম ও অবরোধকারীদের সঙ্গে হারাঙ্গাজাও স্টেশনে ডিমা হাসাও জেলার জেলাশাসক অমিতাভ রাজখোয়া পুলিশসুপার শ্রীজিৎ টি বদরপুরের এরিয়া ম্যানেজার এস উমেশ এডিএন মহীপাল শুক্রবার দফায় দফায় রেল অবরোধ প্রত্যাহার করার জন্য আলোচনা করলে ও ইন্ডিজেনাস স্টুডেন্টস ফোরাম এতে রাজি হয়নি কার্যত সব আলোচনাই ব্যর্থ হয়। ডেভিড কেভম জেলাশাসককে জানিয়ে দেন ডিমা হাসাও জেলাপ্রশাসনের সঙ্গে তাদের কোনও ঝামেলা নেই। তাদের সমস্যা উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আগে অনেকবার জেলাপ্রশাসনের কথায় সাড়া দিয়ে জেলাশাসককে সন্মান জানিয়ে তারা এভাবে রেল অবরোধ প্রত্যাহার করে নেওয়ার পর রেল কর্তৃপক্ষ তাদের ক্ষতিপূরন প্রতিশ্রুতি মত মিটিয়ে দিতে কোনও পদক্ষেপ গ্রহন করেনি। তাই এবার ক্ষতিপূরণ মিটিয়ে দেওয়া নিয়ে জেনারেল ম্যানেজারের কাছ থেকে লিখিত প্রতিশ্রুতি না পেলে  তারা তাদের রেল অবরোধ প্রত্যাহার করবে না। এদিকে জেলাশাসক অমিতাভ রাজখোয়া জানিয়েছেন এবার বল জেলাপ্রশাসনের কোর্টে নয় বল এখন উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেলের কোর্টে। এদিকে ইন্ডিজেনাস স্টুডেন্টস ফোরামের অনিদৃষ্টকালের রেল অবরোধের জেরে শুক্রবার ও পাহাড় লাইনে ট্রেন চলাচল বাতিল করে দেয় উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেল কর্তৃপক্ষ। অন্যদিকে ইন্ডিজেনাস স্টুডেন্টস ফোরামের সদস্য ও গ্রামবাসীরা গত ৪৮ ঘন্টা থেকে হারাঙ্গাজাও স্টেশনে রেলট্র্যাকের উপর বসে রয়েছেন। গতকাল রাতে অবরোধকারীরা রেলট্র্যাকের উপর শুয়ে ছিলেন। এদিকে ১৪৪ ধারা অমান্য করে প্রায় তিন থেকে চারশো অবরোধকারী হারাঙ্গাজাও স্টেশনে রেলট্র্যাকের উপর ঠায় বসে থাকেন শুক্রবার। উল্লেখ্য, নিউহাফলং থেকে নিউহারাঙ্গাজাও স্টেশন পর্যন্ত প্রায় ৫০ টি গ্রামের ৫০০ পরিবার  ব্রডগেজের কাজের দরুন ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন। অভিযোগ এই ৫০০ পরিবারের কৃষি জমি বসতবাড়ি ব্রডগেজের কাজের জন্য ক্ষতিগ্রস্থ হয়। এনিয়ে উত্তর কাছাড় পার্বত্য পরিষদের ভূমি ও রাজস্ব বিভাগ জেলাপ্রশাসন এবং রেল কর্তৃপক্ষ যৌথ ভাবে জরিপ করার পর পরিষদের ভূমি ও রাজস্ব বিভাগ ক্ষতিপূরণ বাবদ ৬ কোটি ৪৬ লক্ষ টাকার বিল পাঠায় উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেলের কাছে। কিন্তু রেল কর্তৃপক্ষ এই টাকার মধ্যে জিরাত ভ্যালু বাবদ ১১ টি গ্রামের বাসিন্দাকে ১ কোটি ৭৮ লক্ষ  টাকা মিটিয়ে দিলে ও ল্যান্ড ডেভলপম্যান্ট বাবদ ৪ কোটি ৫৮ লক্ষ টাকা গ্রামবাসীদের মিটিয়ে দেয়নি। গত ২৪ জানুয়ারি উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেলের লামডিং ডিভিশনের নির্মান শাখার ডিভিশনাল ম্যানেজার এক চিঠি দিয়ে জানিয়ে দেন ল্যান্ড ডেভলপম্যান্ট বাবদ ৪ কোটি ৫৮ লক্ষ টাকার ক্ষতিপূরণ উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেল মিটিয়ে দিতে পারবে না। একমাত্র জমি অধিগ্রহণ করলেই উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেল ক্ষতিপূরণ মিটিয়ে দেয়। আর এতেই সমস্যা দেখা দেয়। তাই এবার ক্ষতিপূরণ মিটিয়ে না দিলে ইন্ডিজেনাস স্টুডেন্টস ফোরাম রেল অবরোধে থেকে সড়ে আসবে না বলে জানিয়েছেন ইন্ডিজেনাস স্টুডেন্টস ফোরামের সভাপতি ডেভিড কেভম। পাহাড় লাইনে রেল অবরোধের জেরে বৃহস্পতিবার শিয়ালদহ থেকে শিলচরগামী কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেস ট্রেন নিউ হাফলং স্টেশনে আটকে থাকার পর রাতে ডিমা হাসাও জেলাপ্রশাসনের পক্ষ থেকে বাস ও ক্রুইজার দিয়ে প্রায় ৭০০ রেলযাত্রী শিলচর পাঠানো হয়। তারপর রাতেই কাঞ্চনজঙ্ঘা এক্সপ্রেস ট্রেনটিকে লামডিং ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়।

No comments

Powered by Blogger.