Header Ads

ঘরবন্দি সময়ের রক্ষাকবচ এগুলো...!!

বিশ্বদেব চট্টোপাধ্যায় 
 
বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে মহামারি চলছে। ইতিহাসের দীর্ঘতম লকডাউন দেখছে বিশ্ববাসী। বিশ্বজুড়ে বেশিরভাগ দেশ এই মারাত্মক ভাইরাস ছড়ানোকে কমিয়ে আনার লক্ষ্যে লকডাউনের পক্ষে গেছে। এই লকডাউনটি বেশিরভাগ লোককে বাড়ির অভ্যন্তরে সীমাবদ্ধ রাখায় গণ-বিচ্ছিন্নতা দেখা দিয়েছে। ভবিষ্যতে আরও কি হবে তা নিয়ে মানুষের মধ্যে ব্যাপক আতঙ্ক ও উত্তেজনা রয়েছে।
 
 
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অভিমত, স্বাস্থ্যকে পুরোপুরি শারীরিক, মানসিক এবং সামাজিক কল্যাণকর অবস্থা হিসাবে বর্ণনা করা উচিত। কেবল রোগ বা অসুস্থতার অভাব হিসেবে নয়। তাই প্রতিদিনের রুটিনে সামান্য কিছু পরিবর্তন দীর্ঘমেয়াদে আরও বেশি লাভ দিতে পারে।
দেখা যাক কিভাবে...
 
আপনার ডায়েট দেখুন---
আপনি যদি নিয়মিত খাবার এড়ান বা একনাগাড়ে খান তবে এটা পুরোপুরি বন্ধ করার সময় এসেছে। আপনার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ানোর এবং সুস্বাস্থ্য রাখার জন্য অন্যতম মূল স্তম্ভ হল সুষম খাদ্য আর ডায়েটরি প্যাটার্ন। আপনাকে দিনে কমপক্ষে ৩ বার খাবার খাওয়া নিশ্চিত করতে হবে যা আপনাকে সুষম পুষ্টি দেয়। জাঙ্ক ফুড এবং অস্বাস্থ্যকর খাবারের অভ্যাস পুরোপুরি এড়িয়ে চলুন।
 
'হাইড্রেটেড' থাকুন---
আপনাকে প্রচুর পরিমাণে জল বা অন্য জলীয় খাবার খাওয়া নিশ্চিত করতে হবে এবং পর্যাপ্ত পরিমাণে 'হাইড্রেটেড' থাকতে হবে। যেকোনো ধরণের জলবাহিত সংক্রমণ এড়াতে আপনার পানীয় পরিষ্কার এবং পানযোগ্য কিনা তা নিশ্চিত করতে হবে।
 
ভালো ঘুম---
আপনার ঘুমের চক্রটি নিয়মিত করতে এবং আপনার জৈবিক ঘড়িটিকে পুনরায় সেট করতে গৃহবন্দির এই সময়কে ব্যবহার করুন। আপনি দিনে কমপক্ষে ৬ থেকে ৮ ঘন্টা ঘুমাচ্ছেন কিনা তা নিশ্চিত করুন। আপনার ঠিকঠাক ঘুমের ছন্দ আপনাকে আপনার জীবনের জন্য সেরা উপহার হতে পারে।
 
আসক্তিগুলি থেকে বিরত থাকুন---
আপনার প্যানিকের বোতামটি চালু রয়েছে ! কিন্তু, ধূমপান এবং অ্যালকোহলের প্রতি আপনার আসক্তিটিকে অনুঘটক করতে দেবেন না। বাড়িতে থাকাকালীন, আপনি স্পষ্টতই আপনার পরিবার এবং বন্ধুদের কাছ থেকে অনুপ্রেরণা চাইতে পারেন এবং এই পদার্থগুলির অপব্যবহার এড়াতে নিজেকে তৈরি করতে পারেন।
 
বর্তমান স্বাস্থ্য পরিস্থিতি বিবেচনা করুন---
৬৫ বছরের বেশি বয়সী লোকেরা এবং কিছু রোগে আক্রান্ত লোকেরা যেমন দীর্ঘস্থায়ী ফুসফুসের সংক্রমণ, হাঁপানি, ডায়াবেটিস, গুরুতর হার্টের পরিস্থিতি এবং স্থূলত্বের মতো সমস্যায় আক্রান্ত লোকেদের করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি বেশি। সুতরাং, এই ধরনের দুর্বল ক্ষেত্রে তাদের স্বাস্থ্যের পরিস্থিতি পরিচালনায় অত্যন্ত সচেতন এবং সতর্ক হওয়া উচিত।
 
একটি সক্রিয় জীবনধারা মেনে চলুন---
এই লকডাউন আপনাকে যেন অলস না বানিয়ে দেয়। দৈহিক অনুশীলন করুন, লিফটের জায়গায় সিঁড়ি ব্যবহার করুন। সর্বাগ্রে আপনি নিজেকে শারীরিকভাবে সক্রিয় রাখতে কথা বলার সময় হাঁটুন।
 
শখগুলি অনুসরণ করুন---
এই লকডাউনে আপনার গৃহ কারাবাসের সময় আপনার দীর্ঘ হারিয়ে যাওয়া শখগুলি পূরণ করার যথেষ্ট ভাল সুযোগ দিতে পারে। কে জানে যে আপনি নিজের মানসিক স্বাস্থ্যকে শক্তিশালী করার সঙ্গে সঙ্গে আপনি নিজেকেই নতুনভাবে আবিষ্কার করতে পারছেন !
 
সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন তবে সামাজিকভাবে দূরত্ব বাড়াবেন না---
হ্যাঁ, সামাজিক দূরত্ব প্রকৃতপক্ষে আজকের মন্ত্র, তবে মানুষ যেমন আমরা সবাই জানি একটি সামাজিক জীব। যদিও আমরা আমাদের সমস্ত প্রিয়জনের সঙ্গে শারীরিক সান্নিধ্যে নাও থাকতে পারি, আমরা অবশ্যই তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতে এবং আমাদের অনুভূতিগুলি ভাগ করে নেওয়ার জন্য এখনকার প্রযুক্তিগুলি ব্যাবহার করতে পারি। 
 
দৈনিক প্রার্থনা---
কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন আপনার সামগ্রিক স্বাস্থ্যের সুরক্ষার জন্য অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ দিক। আপনার কাছে যা কিছু রয়েছে তার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশের জন্য প্রার্থনার চেয়ে আর কী ভালো হতে পারে? আপনাকে শক্তি, স্বাস্থ্য এবং শান্তি দেওয়ার জন্য প্রতিদিন সেই অদৃশ্য শক্তির কাছে প্রার্থনা করুন যার প্রতি আপনার নিজের বিশ্বাস রয়েছে।



No comments

Powered by Blogger.