Header Ads

কাশ্মীরে নিরাপত্তা বাহিনীর গুলিতে বিচ্ছিন্নতাবাদী হিজবুল প্রধান নিহত !!

বিশ্বদেব চট্টোপাধ্যায়
করোনা লকডাউনের মধ্যেও সংঘর্ষে ছেদ পড়েনি জম্মু-কাশ্মীর উপত্যকায়। ভারতের নিরাপত্তাবাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে কাশ্মীরের বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন হিজবুল মুজাহিদীনের প্রধান কমান্ডার রিয়াজ নাইকু নিহত হয়েছে। বুধবার সকালের দিকে কাশ্মীরের পুলওয়ামা জেলায় এনকাউন্টারে হিজবুল মুজাহিদীনের প্রধানসহ অন্তত দু'জনের প্রাণহানি ঘটেছে।

জম্মু-কাশ্মীরের পুলওয়ামা জেলার বেইঘপুরা এলাকায় সেনাবাহিনী এবং পুলিশের সন্ত্রাস-বিরোধী যৌথ অভিযানে নিহত হয়েছে নাইকু।
গত কয়েকদিন ধরেই কাশ্মীরে নিরাপত্তাবাহিনীর সঙ্গে হিজবুল মুজাহিদ বাহিনীর সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে ভারতীয় নিরাপত্তাবাহিনীর মেজর-কর্নেলসহ একাধিক উচ্চপদস্থ অফিসার নিহত হয়েছেন। এই পরিস্থিতিতে কাশ্মীরে পৃথক তিনটি যৌথ অভিযান শুরু করেছে ভারতীয় সেনাবাহিনী। বুধবার সকালের দিকে পুলওয়ামার প্যাম্পোর এলাকায় অন্য একটি অভিযানে আরও দুই সন্ত্রাসী নিহত হয়েছে বলে জানানো হয়েছে ভারতীয় বাহিনীর পক্ষ থেকে।
পুলওয়ামা জেলার বেইঘপুরা এলাকায় হিজবুল মুজাহিদীনের প্রধান কমান্ডার রিয়াজ নাইকুর অবস্থান নিশ্চিত হওয়ার পর সেনাবাহিনী যৌথ অভিযানে যায়। এ সময় কাশ্মীর উপত্যকার অন্তত ১০টি জেলায় মোবাইল ফোন নেটওয়ার্ক ও ইন্টারনেট সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়।
এর আগে ভারতীয় নিরাপত্তা বাহিনী হিজবুল মুজাহিদীনের এই প্রধানের মাথার দাম ১২ লাখ টাকা নির্ধারণ করে। হিজবুল প্রধানের দায়িত্ব নেয়ার পর থেকে রিয়াজ নিরাপত্তা বাহিনীর প্রধান টার্গেটে ছিল। জম্মু-কাশ্মীর পুলিশের প্রাক্তন মহাপরিচালক এসপি ভেইড বলেন, ২০১৬ সালের জুলাইয়ে এনকাউন্টারে হিজবুল মুজাহিদীনের প্রধান বুরহান ওয়ানির মৃত্যুর পর নাইকুকে মোস্ট ওয়ান্টেড ঘোষণা করা হয়েছিল।
গত মাসে কাশ্মীর উপত্যকায় বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সঙ্গে সংঘর্ষে ভারতীয় সেনাবাহিনীর কর্মকর্তাসহ অন্যান্য নিরাপত্তাবাহিনীর অন্তত ২২ সদস্য নিহত হয়।

No comments

Powered by Blogger.