Header Ads

শ্ৰীরামপুর চেক পোস্টে চরম দুৰ্ভোগের মধ্যে দিয়ে সময় কাটাচ্ছে ভিন রাজ্য থেকে আসা অসমের শ্ৰমিকরা

নয়া ঠাহর ওয়েব ডেস্ক, ২২ মেঃ অসম-বাংলা সীমান্ত শ্ৰীরামপুর চেক পোস্টে চার দিন আগে ভিন রাজ্য থেকে হাজার হাজার শ্ৰমিক এসে পৌঁছেছে। শ্ৰমিকদের সঙ্গে শিশু, অন্তঃসত্তা মহিলা, বৃদ্ধ সকলেই রয়েছে। লকডাউনের মধ্যে  প্ৰাকৃতিক দুৰ্যোগ, লাগাতার বৃষ্টি সব মিলিয়ে গত চারদিন ধরে তারা চরম দুৰ্ভোগের মধ্যে দিয়ে কাটাচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

 প্ৰতীকী ছবি, সৌঃ ইন্টারনেট


 সেখানে তারা পাচ্ছে না পৰ্যাপ্ত পরিমাণে খাবার, না আছে সেখানে ভালো থাকার ব্যবস্থা, নেই কোনও ধরনের চিকিৎসা পরিষেবাও, নিৰ্বিকার প্ৰশাসন ঠিক এমনটাই অভিযোগ উঠেছে। 


চতুৰ্থ পৰ্যায়ের লকডাউনের মধ্যেই ভিন রাজ্য থেকে দরিদ্ৰ এই শ্ৰমিক পৰ্যায়ের লোকগুলো নিজের গাটের কড়ি খরচ করে ভিড়ে ঠাসা ট্ৰাক, ট্ৰ্যাকটারে করে কোনওমতে শ্ৰীরামপুরে এসে পৌঁছেছে। এবার যে ভাবেই হোক নিজের বাড়িতে পৌঁছনোর জন্য তারা অস্থির হয়ে পড়েছে। প্ৰশাসনের তরফ থেকে তারা কোনও ধরনের সহযোগিতা পাচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। সেখানে পৌঁছনো বেশির ভাগ শ্ৰমিকই কোকরাঝাড় এবং ধুবড়ি জেলার প্ৰত্যন্ত অঞ্চলের দরিদ্ৰ শ্ৰেণির বলে জানা গেছে। তাদের কোকরাঝাড় জেলা এবং গোসাঁইগাঁও মহকুমার প্ৰশাসন যত্ন নিতে ব্যৰ্থ হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

উল্লেখ্য যে , ভিন রাজ্য থেকে হাজার হাজার শ্ৰমিক ক্ৰমশ অসমে প্ৰবেশ করছে । এই পরিস্থিতিতে এতো লোকের একসঙ্গে থাকা খাওয়া, তথা কোয়ারেন্টাইন করার ব্যবস্থা করতে রীতিমতো হিমসিম খাচ্ছে প্ৰশাসন। আরও ১২ লক্ষ শ্ৰমিক ভিন রাজ্য তথা করোনা সংক্ৰমিত রাজ্য থেকে অসমে প্ৰবেশ করবে বলে সরকারের তরফ থেকে জানানো হয়েছে। এক্ষেত্ৰে পরিস্থিতি সামাল দেওয়া সরকারের কাছে একটা বড় চ্যালেঞ্জ হয়ে দাড়িয়েছে। 

এক্ষেত্ৰে সাধারণ মানুষ যদি সরকারের বেঁধে দেওয়া নীতি নিয়ম মেনে না চলে, সামাজিক দূরত্ব বজায় না রাখলে তাহলে ভবিষ্যতে পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ হয়ে উঠবে বলে উদ্বেগ প্ৰকাশ করেছে সচেতন মহল। 


 

No comments

Powered by Blogger.