Header Ads

রেল অবরোধ প্রত্যাহার এবং ক্ষতিপূরণ ইস্যু নিয়ে জেলাপ্রশাসন ও রেল কর্তৃপক্ষের সঙ্গে ইন্ডিজেনাস স্টুডেন্টস ফোরামের বৈঠক ভেস্তে যায় বুধবার

 বিপ্লব দেব, হাফলং ৫ ফেব্রুয়ারিঃ  
 
এন সি হিলস ইন্ডিজেনাস স্টুডেন্টস ফোরাম আগামী ১৭ ফেব্রুয়ারি থেকে লামডিং-শিলচর ব্রডগেজ রেল অচল করে দেওয়ার হুমকি দেওয়ার পর পাহাড়ে রেল অবরোধ ঠেকাতে বুধবার দুপুর ১ টায় ডিমা হাসাও জেলার জেলাশাসক অমিতাভ রাজখোয়া জেলাশাসক কার্যালয়ের সভা কক্ষে ক্ষতিপূরণের ইস্যু নিয়ে আলোচনার লক্ষ্যে উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেল কর্তৃপক্ষ ও এন সি হিলস ইন্ডিজেনাস স্টুডেন্টস ফোরাম ইন্ডিজেনাস পিপোলস ফোরাম ও ইন্ডিজেনাস উইম্যান ফোরামের প্রতিনিধিদের নিয়ে এক বৈঠক ডাকলে ও বৈঠক সম্পূর্ণ নিষ্ফলা হয় একমাত্র উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেলের উদাসীনতার দরুন। জেলাশাসকের ডাকা বৈঠকে উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেলের মালিগাঁও স্থিত মুখ্য কার্যালয় উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেলের লামডিং ডিভিশনের কোনও উচ্চ আধিকারিক উপস্থিত হয়নি। তার বদলে হাফলং স্থিত রেলের এডিএন মহীপাল ওই বৈঠকে উপস্থিত হয়েছেন। রেলের এমন উদাসীন মনোভাব দেখে ক্ষুদ্ধ হয়ে ওঠেন জেলাশাসক অমিতাভ রাজখোয়া ও পুলিশসুপার বীর বিক্রম গগৈ। 
 

বৈঠকে রেলের পক্ষ থেকে এমন একজন অফিসারকে বৈঠকে পাঠিয়েছেন যিনি কিনা ক্ষতিপূরণ মিটিয়ে দেওয়া নিয়ে বৈঠকে কোনও প্রতিশ্রুতি দিতে অপারগ। আর এতেই বৈঠক উত্তপ্ত হয়ে উঠে। অবশেষে বৈঠক সম্পূর্ণ ভেস্তে যায়। বৈঠকে রেল অবোরধ প্রত্যাহার করা নিয়ে কোনও সিদ্ধান্তই হয়নি। বৈঠকে ইন্ডিজেনাস স্টুডেন্টস ফোরামের সভাপতি ডেভিড কেভম সোজাসোজি জানিয়ে দেন ১৬ ফেব্রুয়ারির মধ্যে রেল কর্তৃপক্ষ ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামবাসীদের ক্ষতিপূরণ মিটিয়ে না দিলে অনিদৃষ্টকালের অবরোধ হবেই। কিন্তু বৈঠকে উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেলের এডিএন মহীপাল ১৬ ফেব্রুয়ারির মধ্যে  ক্ষতিপূরণ মিটিয়ে দেওয়ার ব্যাপারে কোনও প্রতিশ্রুতি দিতে পারেন নি। আর এতেই ক্ষুদ্ধ হয়ে জেলাশাসক অমিতাভ রাজখোয়া বলেন আগামী ১৬ ফেব্রুয়ারির মধ্যে যদি রেল কর্তৃপক্ষ ক্ষতিগ্রস্থ গ্রামবাসীদের ক্ষতিপূরণ মিটিয়ে দিতে পদক্ষেপ না নেয় পরবর্তীতে ১৭ ফেব্রুয়ারি থেকে পাহাড়ে রেল অবরোধের ফলে কোনও অপ্রিতকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয় তার জন্য উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেল কর্তৃপক্ষ সম্পূর্ণ ভাবে দায়ী থাকবে। এমনকি বৈঠকে পুলিশসুপার বীর বিক্রম গগৈ ও একই কথা বলেন। কারন বুধবারের বৈঠক থেকেই প্রমানিত যে ক্ষতিপূরণের ইস্যু নিয়ে সমস্যা সমাধান করা নিয়ে উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেলের সদিচ্ছার অভাব রয়েছে। এদিকে বৈঠক শেষে ইন্ডিজেনাস স্টুডেন্টস ফোরামের সভাপতি ডেভিড কেভম বলেন এখন পর্যন্ত রেলের সঙ্গে প্রায় ২২ বার বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছে কিন্তু আজ পর্যন্ত কোনও বৈঠকই ফলপ্রসু হয়নি এমনকি অসমের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ক্ষতিপূরন ইস্যু নিয়ে উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেলের ক্ষতিপূরণ ইস্যুতে দুবার বৈঠক হওয়ার পরও রেল কর্তৃপক্ষ মুখ্যমন্ত্রী কথাকে আমল দেয়নি। রেল ইচ্ছা করেই এই ক্ষতিপূরণের ইস্যুকে জিয়িয়ে রাখতে চাইছে বলে অভিযোগ করে ডেভিড কেভম বলেন লামডিং-শিলচর ব্রডগেজ নির্মান কাজ করতে গিয়ে নিউহাফলং থেকে নিউহারাঙ্গাজাও পর্যন্ত যে সব গ্রামের গ্রামবাসীদের ক্ষেতের জমি বাড়িঘর ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে এসব গ্রামবাসীদের ক্ষতিপূরণ বাবদ ৪ কোটি ৫৮ লক্ষ টাকা আগামী ১৬ ফেব্রুয়ারির মধ্যে উত্তর পূর্ব সীমান্ত রেল কর্তৃপক্ষ মিটিয়ে না দিলে কোনও অবস্থায় রেল অবরোধ প্রত্যাহার করা হবেনা ১৭ ফেব্রুয়ারি সকাল ৫ টা থেকে পাহাড়ে অনিদৃষ্টকালের জন্য রেল পরিষেবা সম্পূর্ণ ভাবে অচল করে দেওয়া হবে বলে স্পষ্ট করে দেন ইন্ডিজেনাস স্টুডেন্টস ফোরামের সভাপতি ডেভিড কেভম।

No comments

Powered by Blogger.