Header Ads

প্রধানমন্ত্রীকে 'চা কুমার' ও মুখ্যমন্ত্রীকে 'চপ কুমারী' বলে কটাক্ষ অধীরের !!

বিশ্বদেব চট্টোপাধ্যায়ঃ

এনআরসি ও নাগরিকত্ব আইনের প্রতিবাদে শুক্রবার মেদিনীপুরে একটি সভায় যোগ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে 'চা কুমার' ও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে 'চপ কুমারী' বলে কটাক্ষ করলেন সাংসদ তথা লোকসভায় কংগ্রেসের দলনেতা অধীর চৌধুরী। এই সঙ্গে তিনি বলেন যে দেশের ও রাজ্যের মূল সমস্যা গুলি এড়িয়ে যেতে চাইছেন দুজনেই। 

কেন্দ্রের বিজেপি সরকার ও রাজ্যের তৃণমূল কংগ্রেসের সরকারের তীব্র সমালোচনা করেন তিনি। পাশাপাশি তৃণমূল কংগ্রেসের নেওয়া 'দিদিকে বলো' কর্মসূচিকে আক্রমণ ও সমালোচনা করেন অধীর চৌধুরী। তাঁর দাবি, এই কর্মসূচিতে ফোন করে কেউ কোন সমস্যার সমাধান পান নি। ' কারণ তিনি ফোন করতে বলেছেন, মানুষের সমস্যা শুনবেন ও তার সমাধান করবেন তা বলেননি।'
এই সঙ্গে তিনি চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়ে বলেন, "দিদিকে বলো-তে ফোন করে যাও, বলে যাও, বলেই যাও। তিনি ও তার দলের লোকজন, ভাড়া করে আনা 'কিশোর কুমার' বলছেন কাজ হয়েছে। দিদিকে বলোতে ফোন করে কাজ হয়েছে বললেই তো হবে না। কাজ হয়েছে তার প্রমাণ দিন। যদি কাজ হয়েছে তার প্রমাণ দিতে পারেন তাহলে আমি সাংসদ পদ থেকে ইস্তফা দেব।"
অধীর চৌধুরীর এই কথার জবাব দিয়েছেন রাজ্যসভার তৃণমূল কংগ্রেসের সাংসদ মানস ভুঁইঞা। এই দিন মেদিনীপুরে এসেছিলেন মানস ভুঁইঞা। মানস ভুঁইঞা বলেন, অধীরবাবু সব সময় এই ধরনের অসংলগ্ন ও মিথ্যা কথা বলেন। তিনি জানেন না যে দিদিকে বলো তে ফোন করে মানুষ কত সমস্যার সমাধান পেয়েছেন। না জেনেই এত বড় চ্যালেঞ্জ নিলেন। ভালো কথা। এবার কাগজ কলম প্যাড নিয়ে বসে পদত্যাগ পত্র লিখে রাখা ভালো।"
 এই দিন মেদিনীপুরের পাশাপাশি ঝাড়গ্রাম শহরেও সভা করেন অধীর চৌধুরী। তিনি বলেন, মূল যে সব সমস্যা আছে তার কোন জবাব না দেওয়া ও সেগুলো এড়িয়ে যাওয়ার জন্য মোদী এনআরসি’র কথা বলছেন আর দিদি তার বিরোধিতা করে রাস্তায় ঘন্টা বাজিয়ে হাঁটছেন। কিন্তু শিল্প, অর্থনীতি, স্বাস্থ্য, শিক্ষা নিয়ে কেউ কোন কথা বলছেন না।
এই রাজ্যে ও দেশের অনুপ্রবেশকারীদের হঠাতে হলে তাদের কোন দেশে পাঠানো হবে তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন অধীর চৌধুরী। বিজেপির মতো তীব্র আক্রমণ করেন তৃণমূল কংগ্রেসেরও। বলেন, এই রাজ্যে দুর্নীতি শিল্প উপহার দিয়েছেন দিদি। যিনি নিজেই হামলা ভাঙচুর করে অগ্নিকন্যা হয়েছিলেন, বিধানসভাতে গিয়ে ভাঙচুর করেছিলেন সেই তিনি এখন এই রাজ্যে আন্দোলন করতে বাধা দিচ্ছেন!

No comments

Powered by Blogger.