Header Ads

চিনে করোনা ভাইরাসে আক্ৰান্তের ফলে মৃতের সংখ্যা ক্ৰমশ বাড়ছে, আতঙ্ক ছড়িয়েছে ভারতের বিভিন্ন রাজ্যেও

নয়া ঠাহর ওয়েব ডেস্কঃ
চিনে করোনা ভাইরাসে আক্ৰান্তের ফলে দিন দিন মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে। গোটা বিশ্বে দশটি দেশে ছড়িয়েছে করোনা ভাইরাসের আতঙ্ক। চিনে এখনও পৰ্যন্ত মৃতের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১০৬।  চিন ছাড়া আরও ন’টি দেশের মানুষ এই ভাইরাসে আক্ৰান্ত হয়েছেন। ভারতের বিভিন্ন রাজ্যে এই করোনা ভাইরাসের আতঙ্ক ছড়িয়েছে। কেরলে হাসপাতালে আলাদা ওয়াৰ্ডে বিশেষ পৰ্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে চিন ফেরত ৪৩০ জনকে । এই ভাইরাসে আক্ৰান্ত রোগীরা জ্বর, সৰ্দি-কাশি এবং শ্বাসকষ্ট নিয়ে হাসপাতালে ভৰ্তি হচ্ছে। মুম্বইয়ে বিভিন্ন জায়গায় করোনা ভাইরাসে আক্ৰান্ত সন্দেহে ৫ জনকে ভৰ্তি করা হয়েছে হাসপাতালে। করোনা ভাইরাসের আতঙ্কে সতৰ্কীকরণ বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে ভারত-নেপাল সীমান্তে।

 ছবি, সৌঃ আন্তৰ্জাল
সোমবার পৰ্যন্ত চিন থেকে আসা ১৫৫টি বিমানের ৩৩ হাজার জন যাত্ৰীর রক্ত পরীক্ষা করা হয়েছে। এই ভাইরাস যাতে অন্য দেশে দ্ৰুত ছড়িয়ে না পড়ে তার জন্য চিন সরকার দেশের নাগরিকদের আপাতত খুব প্ৰয়োজন না হলে বিদেশে যেতে নিষেধ করেছে। সোমবার দিল্লির হাসপাতালে থাইল্যান্ডের এক মহিলার মৃত্যুর পর মারাত্মক এই ভাইরাসে আক্ৰান্ত সন্দেহে তিন জনকে মঙ্গলবার দিল্লির রামমোহন লোহিয়া হাসপাতালে ভৰ্তি করা হয়েছে।

এদিকে চিনে আটকে পড়া ভারতীয় ছাত্ৰদের এয়ার লিফ্ট করা হবে তার জন্য প্ৰস্তুতি শুরু করে দিয়েছে বিদেশ মন্ত্ৰক। বেজিং ছাড়পত্ৰ দিলেই তাদের উদ্ধার করা হবে। করোনার প্ৰভাব সবচেয়ে বেশি চিনের উহান এবং তার পাৰ্শ্ববৰ্তী অঞ্চলে এখনও আটকে রয়েছেন আড়াই থেকে তিন শ জন পড়ুয়া। জানা গিয়েছে করোনার প্ৰতিশোধক তৈরির কাজে নেমেছে চিন। তবে উদ্বেগ কিছুতেই কমছে না। বেজিংয়ে ভারতীয় দূতাবাস সোশ্যাল মিডিয়ায় জানতে চেয়েছে কে কোথায় আছে জানাতে। উদ্ধারের কাজে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে পড়ুয়াদের।

No comments

Powered by Blogger.