Header Ads

উজনি থেকে নামনি সর্বত্র বন্ধের সর্বাত্মক প্রভাব ,গুয়াহাটিতে স্তব্ধ জনজীবন, টায়ার জ্বালিয়ে প্রতিবাদ, পুলিশের লাঠি চালনা



দেবযানী পাটিকর,গুয়াহাটি। 
নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল (ক্যাব) সম্পূর্ণরূপে বাতিলের দাবিতে মঙ্গলবার উত্তর-পূর্ব ছাত্র সংস্থা সংক্ষেপে (নেসো) ও আসুর যৌথভাবে আহবান করা ১১ ঘন্টা বন্ধের ব্যাপক প্রভাব পড়ে সমগ্র উত্তর পূর্বাঞ্চলে। জোরহাট ,শিবসাগর কোকরাঝাড় ,মঙ্গলদৈ ,ডিব্রুগড়,  ধেমাজি তামুলপুর,শিলচরে বন্ধের ব্যাপক প্রভাব দেখা যায় ।প্রতিবাদকারীরা টায়ার জ্বালিয়ে  প্রতিবাদ প্রদর্শন করে ।রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তের সাথে গুয়াহাটিতে বন্ধের সর্বাত্মক প্রভাব পড়ে। ভোর বেলা থেকেই বন্ধের প্রভাবে  স্তব্ধ হয়ে পড়ে জনজীবন।দোকান, বাজার স্কুল-কলেজ সব  বন্ধ থাকে।বন্ধ থাকে তেল ডিপোও । সকাল বেলা থেকেই নগরের বিভিন্ন এলাকায় টায়ার জ্বালিয়ে পথ অবরোধ করে প্রতিবাদ প্রদর্শন করে বিক্ষোভকারীরা। নগরে শুধু দু চাকার বাহন ও  ব্যক্তিগত বাহন  চলাচল করা ছাড়া সমস্ত যাত্রীবাহী ও মালবাহী গাড়ী চলাচল বন্ধ ছিল। হাতিগাতে জ্বালিয়ে দেওয়া হয় দু চাকার বাহন।ওদিকে  নেসোর ডাকা  বন্ধের সমর্থনে রাজ্যের সমস্ত তেল ডিপো বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে নর্থইস্ট পেট্রোলিয়াম ডিলার এসোসিয়েশন।  তেল ডিপো বন্ধ থাকার ফলে মহা বিপদে পড়েছে লোক। 
                                 



সকালবেলায় জালুকবাড়ি বাসস্ট্যান্ডে বিক্ষোভকারীরা ঢিল ছোড়ে ও মারুতি গাড়ির কাচ ভেঙে দেয় এরপরে প্রতিবাদকারীরা মালিগাঁও, আদাবাড়ি জালুকবাড়ি ,সাতমাইল খানামুখ ইত্যাদি বিভিন্ন জায়গায় টায়ার জ্বালিয়ে প্রতিবাদ প্রদর্শন করে। প্রতিবাদকারীর বিক্ষোভের ফলে কিছু কিছু জায়গায় আটকে পড়ে এম্বুলেন্স ও সংবাদমাধ্যমের গাড়ি । ওদিকে গোপীনাথ বরদলৈ আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের ভিতরে হাজারো যাত্রীরা আটকে পড়ে দেশ-বিদেশের থেকে আসা বিভিন্ন জাতির বিমানবন্দরের ভিতরে বসে থাকেন। এবং তারা বাইরে বেরোতে পারেননি।  বাতিল করা হয়েছে  বেশ কয়েকটি ট্রেন ফলে ট্রেন যাত্রীরা বিপদে পড়েছে ।দিসপুর ,বৈশিষ্ট্য, খানাপারা,কুুুমারপাড়াতেও, বন্ধের সর্বাত্মক প্রভাব পড়ে। প্রতিবাদকারীরা রাস্তায় টায়ার জ্বালিয়ে ও বিভিন্ন স্লোগানে দিয়ে প্রতিবাদ প্রদর্শন করে। উত্তর-পূর্ব সীমান্ত রেলের মুখ্য কার্যালয়়় মালিগাঁও তে  অফিসের কর্মচারীরা কার্যালয়ে ঢুকতে গেলে প্রতিবাদকারীরা বাধা প্রদান করে ফলে আরপিএফ প্রতিবাদকারীদের মধ্যে হাতাহাতি শুরু হয় পরে ধীরে ধীরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে পুলিশ। চানমারি তে টায়ার জ্বালিয়ে প্রতিবাদ ,জুতিনালিতে  টায়ার জ্বালিয়ে প্রতিবাদ, বামুনি মৈদাম রেলওয়ে কলোনিতে  টায়ার জ্বালিয়ে প্রতিবাদ । 
                                       



জুতিনালীতে একটি রেস্টুরেন্ট লন্ডভন্ড করে প্রতিবাদকারী। ডাউনটাউনের সমীপে প্রতিবাদকারীদের নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য শূন্যে গুলি চালনা করে পুলিশ সাথে কাঁদানো গ্যাসের প্রয়োগ করে। নুন মাটিতে একাংশ বন্ধের সমর্থককারীরা আক্রমণ করে কয়েকটি বাহন কে। ভাঙ্গে গাড়ির কাচ টায়ার জ্বালিয়ে করে প্রতিবাদ। ওদিকে মুখ্যমন্ত্রীর কনভয় প্রতিবাদকারীর জন্য রাস্তা বদলে অন্য রাস্তা দিয়ে চালানো হয় ।শিক্ষা মন্ত্রী সিদ্ধার্থ ভট্টাচার্যের কনভও অন্য রাস্তা দিয়ে যেতে বাধ্য হয় ।রাজ্যের প্রভাব শালী বিত্ত মন্ত্রী  হিমন্ত বিশ্ব শর্মা বাড়ির সামনেও বিক্ষোভ প্রদর্শন করে প্রতিবাদকারীরা ।পুলিশের শীর্ষ অধিকারীরা প্রতিবাদকারীর কবল থেকে ছাড়া পান না। প্রতিবাদকারীরা তাদেরও ঘেরাও করে । সাংসদ কুইন ওঝার বাড়ি ঘেরাও করে প্রতিবাদকারীরা। বিকেলের দিকে  ও কয়েকটি জায়গায় উত্তপ্ত পরিস্থিতি  বিরাজ করে । ওদিকে অসমীয়ার প্রতিবাদকে উপেক্ষা করে লোকসভাতে গৃহীত হয় নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল। এরপর রাজ্যের পরিস্থিতি আরো উত্তপ্ত হয়ে পড়ে। তবে এই বন্ধের প্রতি অনেক  দল সংগঠন ও রাজনৈতিক দল সংগঠন সমর্থন জানিয়েছে । 

No comments

Powered by Blogger.