Header Ads

৩০ বছর ধরে মৃত্যু এড়াতে শাড়ি-চুড়ি পরে ঘুরেছেন এই ব্যক্তি! নেপথ্যের কারণ অবাক করার মতো

বিশ্বদেব চট্টোপাধ্যায় : এই খবর জালালপুরের হাউজখাসের চিন্তাহরণ চৌহানের। যাঁর 'চিন্তার' ধরণই খবর ঘিরে চাঞ্চল্য ফেলে দিয়েছে। কুসংস্কার আর অন্ধবিশ্বাসের বশবর্তী হয়ে চিন্তাহরণ গত ৩০ বছর ধরে মহিলাদের মতো সেজে থাকেন। তার নেপথ্যে রয়ে গিয়েছে তাঁর পরিবারের ১৪ জন আত্মীয়র মৃত্যুর কাহিনি।
চিন্তাহরণের পরিবারের ১৪ জন আত্মীয়র মৃত্যু ঘিরে জন্ম দেয় রহস্য। ঐ বাড়ি জুড়ে মৃত্যু মিছিল সেদিনই বন্ধ হয় , যেদিন থেকে চিন্তাহরণ মেয়ের সাজে সাজতে থাকেন। শাড়ি, কানে দুল, নাকে নথ পরে গত ৩০ বছর ধরে 'মৃত্যু আটকাতে' ব্যস্ত। ১৪ বছর আগে প্রথমবার বিয়ে করেন চিন্তাহরণ। বিয়ের কয়েক মাসের মধ্যেই তাঁর স্ত্রীর মৃত্যু হয়। এরপর থেকে বাড়িতে শুরু হয় মৃত্যুমিছিল। 
এরপর, ২১ বছর বয়সে পশ্চিমবঙ্গের দিনাজপুরে শ্রমিক হিসাবে আসেন চিন্তাহরণ। সেই সময় একটি বাঙালি মেয়েকে তাঁর বাড়ির অমতে বিয়ে করেন চিন্তাহরণ। এরপর সেই স্ত্রী ছেড়েই তিনি ফিরে আসেন। এরপর সেই বাঙালি স্ত্রী আত্মহত্যা করেন। 
এরপর তৃতীয় বিয়ে হয় চিন্তাহরণের। কিন্তু পরিবারে একের পর এক মৃত্যু কিছুতেই বন্ধ করতে পারেন না চিন্তাহরণ। ঘটনাক্রম এরপর থেকে এগিয়ে যায় অন্যপথে। চিন্তাহরণের দাবি, ঘুমের ঘোরে স্বপ্নে চিন্তাহরণ দেখতে থাকেন ওই বাঙালি স্ত্রী তাঁকে অভিশাপ দিচ্ছেন। চিন্তাহরণকে ওই স্ত্রী স্বপ্নে বলেন, অভিশাপ মুক্ত হতে আর মৃত্যু এড়াতে হলে ওই বাঙালি স্ত্রীর মতো করেই সাজতে হবে চিন্তাহরণকে। আর তারপর থেকে বধূবেশে থেকে গত ৩০ বছর কাটিয়েছেন চিন্তাহরণ।

No comments

Powered by Blogger.