Header Ads

অসমের ডিমা হাসাও জেলায় জাটিঙ্গা উৎসবকে ঘিরে সৃষ্টি হয়েছে তীব্র বিতর্কের

    বিপ্লব দেব, হাফলংঃ  জাটিঙ্গা উৎসবকে ঘিরে ডিমা হাসাও জেলায় তীব্র বিতর্কের সৃষ্টি হয়েছে ডিমা হাসাও জেলায়।  ২০১০ সালে প্রথমবার অনুষ্ঠিত হয়ে ছিল জাটিঙ্গা উৎসব। নয় বছর পর এবার আবার অনুষ্ঠিত হচ্ছে জাটিঙ্গা উৎসব। জাটিঙ্গাতে আশা দেশ বিদেশের পরিযায়ী পাখীর সুরক্ষা ও ডিমা হাসাও পর্যটন শিল্পকে চাঙ্গা করে তুলতেই এবার উত্তর কাছাড় পার্বত্য স্বশাসিত পরিষদ জাটিঙ্গা মহাসড়কের টপ ডাউনের কাছে জাটিঙ্গা উৎসবের আয়োজন করেছে। ইতিমধ্যে ২০ অক্টোবর উত্তর কাছাড় পার্বত্য স্বশাসিত পরিষদের সিইএম দেবোলাল গার্লোসার হাত ধরে জাটিঙ্গা উৎসবের উদ্ধোধন হয়ে গেলেও এই জাটিঙ্গা উৎসবকে ঘিরে শুরু হয়েছে তীব্র বিতর্কের।

 আর বিতর্কের সূত্রপাত হয়েছে জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট তথা ডিমা হাসাও জেলার জেলাশাসক অমিতাভ রাজখোয়া এক নির্দেশে জাটিঙ্গা ও দিহিংয়ে জারি করা ১৪৪ ধারা নিয়ে। গত ৩০ সেপ্টেম্বর জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট জাটিঙ্গা ও দিহিংয়ে ১৪৪ ধারা জারি করেছিলেন। জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট নির্দেশে উল্লেখ করে ছিলেন আগষ্ট মাস থেকেই জাটিঙ্গা দিহিংয়ে দেশ বিদেশ থেকে পরিযায়ী পাখীর আসা যাওয়া শুরু হয়ে গেছে এবং ডিসেম্বর মাস পর্যন্ত সেখানে পরিযায়ী পাখি আসতে থাকে তাই এই পরিযায়ী পাখীদের সুরক্ষা দিতে এবং চোরা শিকারীরা যাতে পাখীর হত্যা করতে না পারে তারজন্য ১৪৪ ধারা বলবৎ থাকবে এবং ১৪৪ ধারার অধীনে উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন হেলোজিন লাইট সার্চ লাইট ব্যবহারের উপর নিষেধাজ্ঞা থাকবে তা ছাড়া এয়ারগান কেটিবল নিয়ে কেউ জাটিঙ্গাতে প্রবেশ করতে পারবে না এই আইন কেউ অমান্য করলে এনিয়ে ওয়াইল্ড লাইফ আইনে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে নির্দেশে উল্লেখ ছিল। 



এনিয়ে এবার উত্তর কাছাড় পার্বত্য স্বশাসিত পরিষদের কংগ্রেস সদস্য ডেনিয়েল লাংথাসা প্রশ্ন উত্থাপন করে বলেন জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট জাটিঙ্গাতে ১৪৪ ধারা জারি করে আবার জেলাশাসক হিসেবে কি করে জাটিঙ্গা উৎসব আয়োজনের নির্দেশ দেন উদ্যোগতাদের। বুধবার হাফলং রাজীব ভবনে এক সাংবাদিক সন্মেলন ডেকে কংগ্রেস নেতা ডেনিয়েল লাংথাসা বলেন জাটিঙ্গা উৎসবে রাতে উচ্চ ক্ষমতা সম্পন্ন লাইট জ্বালিয়ে জাটিঙ্গাতে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হচ্ছে আর এই আলোর রশ্নিতে বিভিন্ন প্রজাতির পাখী আসছে জাটিঙ্গাতে আর জাটিঙ্গা উৎসবে আসা অতিথিরা এই সব পাখীকে ধরে ছবি তুলে সোসিয়েল মিডিয়াতে এই সব ছবি ভাইরাল করে তুলেছেন। ডেনিয়েল বলেন পাখিকে হত্যা করা বা ধরা ওয়াইল্ড লাইফ আইনে এক বিরাট অপরাধ হিসেবে গন্য করা হয়। কিন্তু জাটিঙ্গাতে ১৪৪ ধারা অমান্য করে পাখী ধরাতে ব্যস্ত উৎসবে আসা অতিথিরা। তিনি বলেন ২০১০ সালে ও জাটিঙ্গা উৎসব অনুষ্ঠিত হয়েছিল কিন্তু সে বছর পাখীদের সুরক্ষার দিকটি বিবেচনা করে দিনের বেলা জাটিঙ্গাতে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করে রাতের অনুষ্ঠান হাফলং এন এল দাওলাগাপু স্পোর্টস কমপ্লেক্সে আয়োজন করা হয়েছিল। তাই জাটিঙ্গাতে দেশ বিদেশ থেকে আসা বিভিন্ন প্রজাতির আসা পরিযায়ী পাখীর নিরাপত্তার দিকটি বিবেচনা করে জাটিঙ্গাতে রাতের অনুষ্ঠান বন্ধ রাখতে জেলাশাসক অমিতাভ রাজখোয়ার কাছে এক পত্র প্রদান করেন ডেনিয়েল লাংথাসা। অন্যদিকে ১৪৪ ধারা ভঙ্গ করে জাটিঙ্গাতে এভাবে জাটিঙ্গা উৎসব আয়োজন করা নিয়ে আয়োজকদের বিরুদ্ধে হাফলং থানায় এক এজাহার দাখিল করেন কংগ্রেস নেতা আচিং জেমি। উল্লেখ্য জাটিঙ্গা উৎসবের আয়োজক হচ্ছে উত্তর কাছাড় পার্বত্য স্বশাসিত পরিষদ। আর এখানে লক্ষনীয় বিষয় হচ্ছে জেলাশাসক অমিতাভ রাজখোয়া নিজেই পার্বত্য পরিষদের প্রধান সচিব জেলাশাসক ও জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট। প্রধান সচিব হিসেবেই জাটিঙ্গা উৎসবের অনুমতি চেয়ে তিনিই জেলাপ্রশাসনের কাছে আবেদন করেছিলেন এবং জেলাশাসক হিসেবে তিনিই জাটিঙ্গা উৎসব আয়োজনের অনুমতি প্রদান করেন। আবার জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট হিসেবে গত ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে জাটিঙ্গা ও দিহিংয়ে ১৪৪ ধারি জারি করার নির্দেশ দেন বলে সাংবাদিক সন্মেলনে অভিযোগ করেন কংগ্রেস নেতা ডেনিয়েল লাংথাসা ও আচিং জেমিরা। এদিকে উত্তর কাছাড় পার্বত্য স্বশাসিত পরিষদের কংগ্রেস সদস্য ডেনিয়েল লাংথাসার অভিযোগের ভিত্তিতে এবং কংগ্রেস নেতা আচিং জেমির এজাহারের ভিত্তিতে গত ৩০ সেপ্টেম্বর জেলা ম্যাজিষ্ট্রের জারি ১৪৪ ধারা অমান্যকারীদের কঠোর ব্যবস্থা গ্রহন করার জন্য পুলিশসুপার শ্রীজিৎ টিকে নির্দেশ দেন জেলাশাসক অমিতাভ রাজখোয়া।

No comments

Powered by Blogger.