Header Ads

আর্যরা ‘বহিরাগত’ নন, ৪৫০০ বছরের মহিলার ‘কঙ্কালে’ই পরিবর্তন হরপ্পার ইতিহাস !

বিশ্বদেব চট্টোপাধ্যায় : আর্য কারা, তাঁরা কোথা থেকেই বা এসেছিলেন, তা নিয়ে বিতর্ক রয়েছে। সাম্প্রতিক এক গবেষণাপত্র জানিয়ে দিল আর্যরা বহিরাগত নন। তাঁরা হরপ্পা জাতিরই অন্তর্গত। আর তাঁদের অন্য কোথাও থেকে আসার কোনও প্রশ্নই নেই। বরং তাঁরা পূর্ব থেকে পশ্চিমে পাড়ি দিয়েছিল। সম্প্রতি এক মানব কঙ্কালের ডিএনএ পরীক্ষা করে এই তথ্য পেয়েছেন গবেষকরা।
ইতিহাসে বর্ণিত ছিল, যারা হরপ্পা সভ্যতার শেষ পর্যায়ে বসবাস শুরু করেছিল মধ্যপ্রাচ্যে, তারাই আর্য। তাদের মাধ্যমেই দক্ষিণ এশিয়ার বিস্তীর্ণ অঞ্চলে চাষবাস ছড়িয়ে পড়েছিল। কিন্তু সাম্প্রতিক ডিএনএ পরীক্ষা ও গবেষণা দ্বারা এই ইতিহাস মিথ্যা বলে প্রমাণিত করেছেন গবেষকরা। 
তাঁদের দাবি আর্যরা যেমন বাইরে থেকে আসেননি, তেমন এ দেশে চাষবাসও বাইরে থেকে এসে কেউ শুরু করেননি। হরপ্পা সভ্যতার ইতিহাস নিয়ে চাঞ্চল্যকর যে তথ্য সম্প্রতি গবেষণায় উঠে এসেছে, তা নিয়ে চর্চা শুরু হয়েছে। একদল গবেষকদের দাবি, বাইরে থেকে আর্য জাতির লোকজন আসেননি বা এ দেশ আক্রমণ করেননি। তাঁরা আগে থেকেই হরপ্পা সভ্যতার সময় ছিল। তাঁরা হরপ্পা জাতিরই লোক। 
সম্প্রতি ডেকান কলেজের উপাচার্য ড. বসন্ত আচার্য, লখনউয়ের বীরবল সাহানি ইনস্টিটিউটের গবেষক নীরজ রাই, হাভার্ড মেডিকেল স্কুলের গবেষক ভিএম নরসিংহম, নাদিন রোল্যান্ড, ডেভেড রেক, নিক পিটারসনরা দলবদ্ধ হয়ে এই গবেষণা চালান। তিন বছর ধরে গবেষমালব্ধ ফল হল আর্যরা বহিরাগত নন, তাঁরা এদেশীয়ই। 
এই গবেষক দলের পক্ষ থেকে জানানো হয়, সাড়ে চার হাজার বছরের পুরনো এক মহিলার কঙ্কালের ডিএনএ পরীক্ষা করে জানা যায় আর্যদের অস্তিত্ব। ফলে আর্যদের আগমনের থিওরি নিয়ে প্রশ্ন উঠে পড়ে। এই পরীক্ষা থেকেই তাঁরা সিদ্ধান্ত উপনীত হন যে, বৈদিক যুগের মানুষ হরপ্পা জাতিরই অন্তর্গত।

No comments

Powered by Blogger.