Header Ads

মিনি ইন্ডিয়াতে পরিণত শক্তিপীঠ কামাখ্যা ধাম, অগণিত ভক্তের ঢল, মুখ্যমন্ত্রী পরিদর্শন করলেন মন্দির, বন্ধ হল মন্দিরের কপাট


  দেবযানী পাটিকর ,গুয়াহাটিঃ নীলাচল পাহাড় স্থিত  বিশ্ব বিখ্যাত শক্তিপীঠ কামাখ্যা ধামে অম্বুবাচী মেলা শুরু হয়েছে ।শনিবার রাত ১ টা বেজে ৪০ মিনিট ১৮ সেকেন্ডের  প্রবৃত্তির পরই  মন্দিরের কপাট বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। শুক্রবার থেকেই  কামাখ্যা ধামে ভক্তের ঢল নেমেছে। বাইরেই চলছে পূজার্চনা,জপ ও যজ্ঞ। শনিবার সন্ধ্যার পর মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোয়াল কামাখ্যা মন্দির  পরিদর্শন করেন। মুখ্যমন্ত্রী সম্পূর্ণ মন্দির প্রদক্ষিণ করার পর সামগ্রিক পরিবেশ খতিয়ে দেখেন। দর্শন করেন নাগা বাবাদের। মার আশীর্বাদ নিয়ে তিনি বললেন বিশ্ব শান্তির কথা, করলেন সবার মঙ্গল কামনা।

অম্বুবাচীতে কামাখ্যা ধামে এখন ভক্তের ভিড়, যেন মিনি ইন্ডিয়ায় পরিণত হয়েছে শক্তিপীঠ। চারদিকে জনসমুদ্র। হাজারো দর্শনার্থীরা উপস্থিত হয়েছেন শক্তিপীঠ কামাখ্যা ধামে, মার আশীর্বাদ গ্রহণ করতে। চারদিকে শুধু লাল আর গেরুয়া রং যেন ভক্তির সাগরে ডুব দিয়েছে সবাই।  প্রশাসন এবং বিভিন্ন এনজিওর সহায়তায় চলছে ভান্ডারা ও চিকিৎসা সেবা । উল্লেখ্য শুক্রবার বিকেলে মেলার উদ্বোধন করেন কেন্দ্রীয় স্বাধীন দায়িত্বপ্রাপ্ত পর্যটন মন্ত্রী প্রহ্লাদ সিং প্যাটেল । উপস্থিত ছিলেন মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সোনোয়াল। ২৬জুন বুধবার দুপুরে ২টা বেজে ৪মিনিট ২২সেকেন্ডে নিবৃত্তি হবে। এরপরে দর্শনার্থীর জন্য মন্দিরের দরজা খুলে দেওয়া হবে। 


প্রসঙ্গত পশ্চিমবঙ্গের তারাপীঠ থেকে আগত এক সাধক বলেন যে  তন্ত্র সাধনা ও জপ তাপ  সমস্তই খুব গুপ্ত ভাবে করতে হয়। কামাখ্যাতে অম্বুবাচীর সময় হাজারো সাধক আসেন সাধনা করতে। এবং এরা গুপ্তভাবে সাধনা করেন। কিন্তু এত লোকের ভিড় আর কোলাহলের ফলে সেই সাধকদের সাধনায় অসুবিধার সৃষ্টি হয় বলেই বলেন তিনি।
আগে কামাখ্যাতে এত কোলাহল ছিল না। বিভিন্ন জায়গা থেকে সাধকরা আসতেন ও  এবং খুব গোপনে নীরবে সাধনা করে আবার চলে যেতেন। সময়ের সাথে সাথে ব্যবস্থার অনেক পরিবর্তন হয়েছে। তবে নিরবতা তেমন ভাবে এখন আর পালন করা হচ্ছে না ।
উল্লেখ্য যে কামাখ্যা মন্দিরে অম্বুবাচী মেলা তে নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে অসামরিক পোষাকে নিরাপত্তারক্ষীরা টহলদারি করছেন। মন্দির এর তরফ থেকে ৩০০ সিসি টিভি ক্যামেরা লাগানো হয়েছে এবং প্রশাসনের তরফ থেকেও লাগানো হয়েছে আরও ২০০ বেশি ক্যামেরা । ১৪০ টি পরিবহনের গাড়ি চলাচল করবে অম্বুবাচী মেলা তে । দর্শনার্থীর জন্য ছয়টা শিবির তৈরি করা হয়েছে ।সমস্ত শিবিরগুলোতে বর্তমানে দেশের  বিভিন্ন স্থান থেকে তীর্থযাত্রীরা শিবিরগুলো  এসেছেন ।


শিবিরগুলোতে আগের থেকে অনেক বেশী বড় করে তৈরি করা হয়েছে । এখানে একসাথে ৪০ হাজার লোক থাকতে পারবে। তবে উপরে কামাখ্যা ধাম পর্যন্ত ব্যক্তিগত কোন গাড়ি উঠতে দেওয়া হবেনা। এছাড়া৪০টি ফেরির ব্যবস্থা করা হয়েছে। সকাল ৬টা থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত চলবে ফেরি। মেলার জন্য ২৫০জন ট্রাফিক নিযুক্ত করা হয়েছে।

No comments

Powered by Blogger.