Header Ads

তেজপুরের সাংসদ আর পি শৰ্মার পদত্যাগ, দোষমুক্ত না হওয়া পৰ্যন্ত নগাঁও কেন্দ্ৰে প্ৰতিদ্বন্দ্বিতা করবেন না রাজেন গোহাঁই





ক্ষোভ উগরিয়ে পদত্যাগী আর পি শৰ্মা অভিযোগ করেন অভিজ্ঞ, বরিষ্ঠ বিজেপি নেতাদের তাড়িয়ে হিমন্ত অসমে রাজ করতে চাইছেন, দেশে বিরূপ প্ৰভাব পড়বে


অমল গুপ্তঃ গুয়াহাটি,
কন্যা আসাম পাব্লিক সাৰ্ভিস কমিশনে নিৰ্বাচিত হয়ে অসদুপায় অবলম্বন করেছিলেন বলে তাকে শাস্তির মুখে পড়তে হয়। তার পর থেকেই সেই কন্যার বাবা তেজপুর লোকসভা কেন্দ্ৰের সাংসদ রাম প্ৰসাদ শৰ্মার সঙ্গে সরকারের মনোমালিন্যের সৃষ্টি হয়। মুখ্যমন্ত্ৰী সৰ্বানন্দ সনোয়াল এবং অৰ্থমন্ত্ৰী হিমন্ত বিশ্ব শৰ্মার সঙ্গে আর পি শৰ্মার দূরত্ব তৈরি হয়। মাস ছয়েক আগে থেকে তেজপুর নিৰ্বাচন কেন্দ্ৰের প্ৰতি হিমন্ত বিশ্ব শৰ্মার দৃষ্টি পরে। তিনি তেজপুরের বিভিন্ন জনহিতকর কাজের সঙ্গে জড়িয়ে পড়েন। সেই সব প্ৰসঙ্গ তুলে পরিস্থিতি তার বিরুদ্ধে যাচ্ছে বলে ভেবে নিয়ে আকস্মিকভাবে আর পি শৰ্মা বিজেপির প্ৰাথমিক সদস্য পদ থেকেও পদত্যাগ করে বসেন। তিনি আজ মুখ্যমন্ত্ৰীর প্ৰতি ক্ষোভ উগরিয়ে দিয়ে বলেন, সৰ্বানন্দ সনোয়াল যাতে মুখ্যমন্ত্ৰীর পদে বসতে পারে, তার জন্য আমি বিজেপির কেন্দ্ৰীয় নেতৃত্বের সঙ্গে রীতিমতো লড়াই করি। বিজেপি নেতা রাম মাধব এবং রাষ্ট্ৰীয় সভাপতি অমিত শাহের কাছে সৰ্বানন্দ সনোয়ালের পক্ষে ওকালতি করার জন্য আমাকে বহিস্কার করার জন্য প্ৰস্তুতি চালাচ্ছিল। আমি বিজেপি নেতৃত্বেকে প্ৰতিশ্ৰুতি দিয়েছিলাম, সৰ্বানন্দকে মুখ্যমন্ত্ৰীর পদে বসানো না হলে রাজ্যে বিজেপির ভরা ডুবি ঘটবে। তার কল্যাণের জন্য প্ৰতিদিন ১০-১৫ মিনিট আমি ঈশ্বরের কাছে প্ৰাৰ্থনাও করেছিলাম। সেই মুখ্যমন্ত্ৰী সৰ্বানন্দ সনোয়াল নিৰ্বাচন কমিটিতে আমার নামটি পৰ্যন্তও উল্লেখ করেন নি। আমার মনে হয় হিমন্ত বিশ্ব শৰ্মা এবং অন্যান্যদের কথা শুনে মুখ্যমন্ত্ৰী সৰ্বানন্দ সনোয়াল আমাকে ‘ব্ল্যাকমেল' করছেন। হিমন্ত এবং মুখ্যমন্ত্ৰীর বিরুদ্ধে বিষোদগার করে সদ্য পদত্যাগী নেপালী জনগোষ্ঠীর প্ৰতিনিধি আর পি শৰ্মা বলেন, তিনি রাজ্যের অন্যতম পুরনো বিজেপি সদস্য। উত্তর পূৰ্বাঞ্চলের অন্যতম আইনজীবী হিসাবে প্ৰচুর অৰ্থ উপাৰ্জন করেছেন, প্ৰায় সব টাকায় বিজেপির সংগঠন করতে ঢেলেছি। তিনি বলেন, রাজ্যে ২৬ লক্ষ নেপালী জনগোষ্ঠীর মানুষ আছে। তেজপুর লোকসভা কেন্দ্ৰে নেপালী ভোটারের সংখ্যা ৪ লক্ষর বেশি। তাকে টিকিট না দিয়ে বিজেপি অসন্মান করল, তার বিরূপ প্ৰভাব সারা দেশে পড়বে। তিনি শুধু নন, মঙ্গলদৈর বিজেপির অভিজ্ঞ সাংসদ রমেন্দ্ৰ ডেকার অবস্থাও একই হবে। তাকেও টিকিট না দেওয়ার সম্ভাবনা আছে। এই জন্য বিজেপিকে কেউ ক্ষমা করবেনা। তেজপুরে তিনি কংগ্ৰেস সমৰ্থন নিয়ে প্ৰতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারেন বলে ইঙ্গিত দিলেন। তার অভিযোগ বিজেপির বয়োজ্যেষ্ঠ অভিজ্ঞ বিজেপি নেতাদের তাড়িয়ে দিয়ে হিমন্ত অসমে রাজ করতে চাইছেন, তা কখনও সফল হবে না বলে বিক্ষুব্ধ শৰ্মা মন্তব্য করেন। এদিকে বিজেপির সৰ্বভারতীয় নেতৃত্ব বিশেষ করে রাষ্ট্ৰীয় সভাপতি অমিত শাহ রাজ্যের ‘সেকেণ্ড কমাণ্ডার ইন চিফ' হিমন্ত বিশ্ব শৰ্মাকে রাজ্য রাজনীতির অঙ্গন ছাড়তে মানা করেছে বলে বিজেপির এক সূত্ৰে প্ৰকাশ। অমিত শাহ অসমকে বিজেপির শক্ত ঘাঁটি হিসাবে গড়ে তোলার লক্ষ্যে হিমন্তকে ছাড়তে চাইছেন না, তাকে অসমেই রাখতে চাইছেন। তাই হিমন্ত তেজপুর থেকে লোকসভা কেন্দ্ৰে প্ৰতিদ্বন্দ্বিতা করবেন কি না, তা আগামী ১৮ মাৰ্চ'-র আগে জানা যাবে না। কারণ ১৮ তারিখে বিজেপির প্ৰাৰ্থীদের তালিকা প্ৰকাশ পাবে। বিজেপির সঙ্গে অগপর নিৰ্বাচনী সমঝোতা হয়ে গেছে বলে দিল্লী সূত্ৰ থেকে জানা গেছে। রাষ্ট্ৰীয় সভাপতি অমিত শাহের পৌরহিত্যে অনুষ্ঠিত বৈঠকে অগপকে বরপেটা, ধুবড়ি এবং কলিয়াবরকে অগপকে টিকিট দেওয়া হবে। এদিকে নগাঁওয়ের বিজেপি সাংসদ রাজেন গোহাঁইও আজ দিল্লীতে হঠাৎই সাংবাদিক সম্মেলন ঘোষণা করেন, তিনি নগাঁও কেন্দ্ৰ থেকে প্ৰতিদ্বন্দ্বিতা করবেন না। যৌন কেলেঙ্কারীর অভিযোগে অভিযুক্ত গোহাঁই এখনও দোষী সাব্যস্ত হন নি। তবু তিনি আজ বলেন, দোষমুক্ত না হওয়া পৰ্যন্ত তিনি প্ৰতিদ্বন্দ্বিতা করবেন না। আগামী ২৫ মাৰ্চ এই মামলা সম্পৰ্কে পরবৰ্তী শুনানীর দিন ধাৰ্য্য করা হয়েছে। ২৪ তারিখে তাকে মনোনয়ন পত্ৰ দাখিল করতে হত। এর ফলে দলের ভাবমুৰ্তি খারাপ হত। দলের ক্ষতি তিনি চান না। তিনি চান, দেশের পুনরায় প্ৰধানমন্ত্ৰী পদে বসুক নরেন্দ্ৰ মোদী। আইনগতভাবে প্ৰতিদ্বন্দ্বিতা করায় কোনও বাধা ছিল না, তবে নৈতিক কারণে তিনি মানসিকভাবে প্ৰস্তুত নন, কারও চাপে পরে নয়, নিজের বিবেকের সিদ্ধান্ত। নগাঁও কেন্দ্ৰে রাজেন গোহাঁইয়ের পত্নী রীতা গোহাঁইকে প্ৰাৰ্থী করার কথা চলছে।

No comments

Powered by Blogger.