Header Ads

আইনজীবি তপাদারের চেষ্টায় লুবাব লস্কর ভারতীয় নাগরিকের স্বীকৃতি পেলেন

গুয়াহাটিঃ অসমের জাতীয় নাগরিকপঞ্জী নিয়ে চূড়ান্ত বিশৃংঙ্খলা চলছে। এন আর সি কৰ্তৃপক্ষ, সরকার এবং জাতীয় সংগঠনগুলি এন আর সি থেকে বাদ পরা লক্ষ লক্ষ মানুষের জীবন নিয়ে ছিনিমিনি খেলছে। বৈধ নথিপত্ৰ থাক সত্বেও এন আর সি সেবা কেন্দ্ৰগুলি তা গ্ৰাহ্য করছে না। সরকারের সদৃচ্ছা নিয়ে প্ৰশ্ন উঠেছে। রাজ্যে কাগজে কলমে ১০০টি বিদেশী শনাক্তকরণ ট্ৰাইব্যুনাল আছে। কিন্তু প্ৰকৃতাৰ্থে অধিকাংশ ট্ৰাইব্যুনালে পরিকাঠামো নেই। কাজ-কৰ্মে স্বচ্ছতা নেই। আজ পৰ্যন্ত বিদেশী ট্ৰাইব্যুনালগুলিতে ৪ লক্ষাধিক মামলা ঝুলে আছে। ডিটেনশন ক্যাম্পগুলিতে বন্দী করে রাখা হয়েছে ১০৬১ জনকে। ১ লক্ষ ৯৭ হাজার ‘ডি' ভোটার আছে। অধিকাংশ হিন্দু-মুসলিম সংখ্যালঘু ধৰ্মাবলম্বী মানুষ। তারা নানা ভাবে প্ৰশাসনিক হয়রানির শিকার হচ্ছে। বিদেশী ট্ৰাইব্যুনালগুলি প্ৰায় ১০০টি মামলার পিছনে মাত্ৰ ১-২ টি মামলা নিষ্পত্তি করছে। নানা অজুহাতে মামলাগুলি দীৰ্ঘায়িত করা হচ্ছে। সেই সঙ্গে সংখ্যালঘু মানুষদের যন্ত্ৰণাও দীৰ্ঘয়িত হচ্ছে। করিমগঞ্জ জেলার ঐতিহাসিকভাবে পরিচিত লস্করবাড়ি গ্ৰামের স্থায়ী বাসিন্দা, কেন্দ্ৰীয় ডাক বিভাগের কৰ্মী প্ৰয়াত ইমদাদ লস্করের পুত্ৰ লুবাব লস্কর প্ৰকৃত ভারতীয় নাগরিক, নাগরিকত্বের বৈধ নথি থাকা সত্বেও আড়াই বছর ধরে তার মামলা গুয়াহাটির বিদেশী ট্ৰাইব্যুনালে ঝুলিয়ে রেখে তার ওপর মানসিক নিৰ্যাতন করা হয়। আৰ্থিকভাবে বিপৰ্যস্ত লুবাব লস্কর  শেষ পৰ্যন্ত করিমগঞ্জের স্থানীয় প্ৰাক্তন মন্ত্ৰী সিদ্দেক আহমেদের শরণাপন্ন হন। প্ৰাক্তন মন্ত্ৰী সিদ্দেক আহমেদ করিমগঞ্জের বাসিন্দা তথা গৌহাটি হাইকোৰ্টের বিশিষ্ট আইনজীবি এ এস তপাদারের কাছে মামলাটি নিয়ে উপযুক্ত পদক্ষেপ গ্ৰহণ করার জন্য গুয়াহাটিতে পাঠান। আইনজীবি তপাদার সম্পূৰ্ণ বিনামূল্যে ভূক্তভোগী লুবাব লস্করকে সহযোগিতা করেন। শেষ পৰ্যন্ত তার একান্ত চেষ্টায় লুবাব লস্করকে ভারতীয় নাগরিক হিসাবে ঘোষণা করা হয়। এই জয়ে উৎফুল্লিত আইনজীবি তপাদার বলেন, তার এই জয়ের পেছনে আইনজীবি মান্নান, আইনজীবি নেকিব, আইনজীবি দায়ান, আইনজীবি চিঙ্কি ডেকা এবং প্ৰাক্তন মন্ত্ৰী আইনজীবি নুরজামাল সরকার প্ৰমুখদের সহযোগিতা ছিল। আইনজীবি তপাদার সহ অন্যান্য আইনজীবিদের প্ৰতি কৃতজ্ঞতা প্ৰকাশ করে লুবাব লস্কর বলেছেন তাদের একান্ত চেষ্টার ফলে দীৰ্ঘ যন্ত্ৰণা থেকে তিনি মুক্তি পেলেন। অবশেষে ভারতীয় নাগরিক হিসাবে তিনি স্বীকৃতি পেলেন।

No comments

Powered by Blogger.