Header Ads

কেন্দ্রীয় বাজেট অসমের শিবসাগর জেলাকে প্রত্নতাত্ত্বিক ক্ষেত্র হিসাবে স্বীকৃতি, শদিয়া ধুবড়ি জলপথে জাহাজ চলবে, স্কিল ইন্ডিয়া প্রকল্পে লাভবান হবে



অমল গুপ্ত, গুয়াহাটি : অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমন আজ শনিবারের বারবেলায় সংসদে 2020 অর্থবছরের বাজেট পেশ করে দাবি করলেন, এই বাজেট দেশবাসীর প্রত্যাশা পূরণ করবে, মানুষের আয় ও ক্রয় ক্ষমতা বাড়বে, সার্বিক বিকাশের ফলে কর্মসংস্থানের প্রসার ঘটবে। অর্থমন্ত্রী অসম তথা উত্তর পূর্বাঞ্চলের জন্য বেশ কিছু প্রকল্প ঘোষণা করেছেন দেশের 5টি স্থানকে ঐতিহ্যবাহী বা আইকনিক বলে স্বীকৃতি দিয়েছে, তার মধ্যে অসমের শিবসাগর জেলাকে ধরা হয়েছে, এই জেলার চড়াইদেওয়ে আহোম রাজাদের সমাধি ক্ষেত্র আছে,  1800 দশকের রাজাদের প্রশাসনের কেন্দ্র মাটির তল ও উপরে তলাতল ভবন, কারেঙ ঘর, প্রাচীন শিবদৌল, শিবসাগর, গৌরিসাগর প্রভৃতি বৃহৎ জলাশয় প্রভৃতি দেশের অন্যতম ঐতিহ্যবাহী জেলা, কেন্দ্র প্রত্নতাত্ত্বিক স্থান হিসেবে মর্যাদা দেওয়ার ফলে উন্নতি হবে। অসমের জল সম্পদকেও গুরুত্ব দেওয়া হয়েছে বাজেটে। সাদিয়া থেকে ধুবড়ি পর্যন্ত 890 কিলোমিটার দীর্ঘ ব্রহ্মপুত্রের জলপথকে জাতীয় জলপথ হিসাবে গণ্য করে জাহাজ চালাবে, বরাক নদীর জলপথ ব্যবহার করার কথাও বলা হয়েছে। উত্তর পূর্বাঞ্চলের উৎপাদিত সামগ্রী বাইরে রপ্তানির জন্যে কৃষাণ রেল চালু করবে কেন্দ্র, সরকারি-বেসরকারি উদ্যোগে এই রেলগাড়ি চলবে, দেশে ছোট ছোট বিমানবন্দর স্থাপন করা হবে, তার মধ্যে অসম ও উত্তর পূর্বাঞ্চলে কয়েকটি হবেবাইরে থেকে মাছ-মাংস, দুধ, ফল, শাক-সব্জি আমদানি রপ্তানির কৃষাণ রেল ছোট ছোট বিমান ব্যাবহার করা হবে। বছরে 200 লক্ষ টন মাছ উৎপাদনের লক্ষ্যে প্রতি ব্লকে সাগর প্রকল্প গড়ে বেকার যুবকদের মাছ উৎপাদনে কাজে লাগানো হবে, এই প্রকল্পের ফলে অসম উপকৃত হবে, ইতিমধ্যে রাজ্যের মৎস্যমন্ত্রী পরিমল শুক্লবৈদ্য মাছ উৎপাদনের জন্য ঘরে ঘরে পুকুর নামে এক প্রকল্প গ্রহণ করেছেন। অসমের উৎপাদিত সামগ্রী বাইরে রপ্তানির জন্য বাজেট প্রকল্প কৃষাণ উড়ানের সুযোগ নিতে পারবে। ইতিমধ্যে অসমের ফলমূল, শাক-সব্জি দুবাই, লন্ডন সিঙ্গাপুর প্রভৃতি জায়গায় পাঠানো হচ্ছে। এবার আরও গতি পাবে। স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিমন্তবিশ্ব শর্মার ড্রিম প্রজেক্টগুলো এবার গতি পাবে। কেন্দ্রীয় সরকার পি.পি.পি. মডেল অর্থাৎ বেসরকারি অর্থে হাসপাতাল নির্মাণ করবে, 112 জেলাতে আয়ুষ্মান হাসপাতাল নির্মাণ হবে, তার দুই তিনটি অসমও পাবে। কেন্দ্র দক্ষতা বিকাশ বা স্কিল ইন্ডিয়ার জন্য 3000 কোটি টাকা ব্যায় করবে। অসম সরকার মঙ্গলদৈয়ে স্কিল ইন্ডিয়া প্রকল্প রূপায়ণে এক বিশ্ববিদ্যালয় স্থাপন করার প্রস্তাব গ্রহণ করেছে। ইতিমধ্যে 100 বিঘা জমি অধিগ্রহণ করা হয়েছে। দেশের 5টি স্মার্ট সিটি ঘোষণা করা হয়েছে। গুয়াহাটিকেও স্মার্টসিটি ঘোষণা করা হয়েছিল, কিন্ত এখন পর্যন্ত 191 কোটি টাকা রিলিজ করে দিলেও আজও প্রকল্প সম্পূর্ণ হয়নি। আজ অর্থমন্ত্রী হিমন্তবিশ্ব শর্মা আজ দিল্লি যাবার আগে বলে গেলেন, এই বাজেটে অসম লাভবান হবে। স্বাস্থ্যখাতে বহু প্রকল্পের সুযোগ নিতে পারবে।

No comments

Powered by Blogger.