Header Ads

ফের মামলার জালে মুকুল রায় ! এবার নাম জড়াল সিপিএম-এর ৩ ভাইয়ের খুনে

বিশ্বদেব চট্টোপাধ্যায় : ফের মামলার জালে মুকুল রায়। এবার তাঁর নাম ঢুকে গেল লাভপুরে তিন ভাই খুনের চার্জশিটে! বোলপুর আদালতে লাভপুর খুনের সাপ্লিমেন্টারি চার্জশিট জমা দিয়েছে পুলিশ। সেই চার্জশিটে মুকুল রায় ছাড়াও নাম রয়েছে মূল অভিযুক্ত সেখানকার বিধায়ক মণিরুল ইসলামের। তবে জেলা বিজেপি সভাপতির দাবি, তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়াতেই প্রতিহিংসামূলক আচরণ করছে সরকার। 
২০১০-এর ৪ জুন ৩ সিপিএম কর্মীকে নৃশংসভাবে খুন করা হয়েছিল। তিন ভাই, তরুক শেখ, ধানু শেখ, কুটুন শেখকে পিটিয়ে মারার অভিযোগ উঠেছিল মণিরুল বাহিনীর বিরুদ্ধে। ২০১৪ সালে সাঁইথিয়ায় এক জনসভায় মণিরুল ইসলাম তিনভাইকে পিষে মারার কথা বলেছিলেন। খুনের পরেই মণিরুলকে বহিষ্কার করে ফরওয়ার্ডব্লক, সেই সময় বর্তমান লাভপুরের বিধায়ক মণিরুল ইসলাম ছিলেন লাভপুরে ফরওয়ার্ড ব্লক নেতা। তিনিই সালিশি সভা ডেকে খুন করেছিলেন বলে অভিযোগ ওঠে। এর পরেই মণিরুল ইসলামকে ফরওয়ার্ড ব্লক থেকে বহিষ্কার করা হয়। পরে তিনি তৃণমূলের যোগ দিয়ে, বিধায়ক হন। 
লাভপুরে সিপিএমের  তিন কর্মী খুনে ২০১৪ সালে ৫২ জনের নামে চার্জশিট জমা দিয়েছিল পুলিশ। তাতে অবশ্য মণিরুল ইসলামের নাম ছিল না। নিহত তিনজনের দাদা প্রথমে এই ঘটনায় মামলা করেও তুলে নিয়েছিলেন। তখন অভিযোগ ওঠে মণিরুল বাহিনীর চাপেই তিনি মামলা তুলে নিয়েছেন। এরপর মৃতদের মা মামলা করেন। সেই মামলা গড়ায় হাইকোর্টে। তিনমাসের মধ্যে সাপ্লিমেন্টারি চার্জশিট জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল হাইকোর্ট। বোলপুর আদালতে গত ৪ ডিসেম্বর বোলপুর আদালতে সাপ্লিমেন্টারি চার্জশিট জমা পড়ে। 
বীরভূমের পুলিশ সুপার জানিয়েছেন, যে চার্জশিট জমা পড়েছিল তা গৃহীত হয়েছে। কিন্তু চার্জশিটে মুকুল রায়ের নাম কীভাবে চলে এল তা অবশ্য তিনি বলতে চাননি বলেই সূত্রের খবর।   
বিজেপি অবশ্য এই সাপ্লিমেন্টারি চার্জশিটকে কটাক্ষ করেছে। তারা বলছে তৃণমূলে থাকার সময় মণিরুল ইসলামের বিরুদ্ধে কোনও চার্জশিট জমা দেয়নি তৃণমূল সরকার। এখন তাঁর নাম চার্জশিটে দেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে তৃণমূল সরকার একাধিক মামলা করেছে। এবার যুক্ত হল লাভপুরের খুনের মামলায়। যদিও মুকুল রায়কে কোণঠাসা করার চেষ্টা করে কোন লাভ হবেনা, মন্তব্য বিজেপি নেতৃত্বের !

No comments

Powered by Blogger.