Header Ads

ভারতকে ঐক্যের সূত্রে গাঁথতে সংসদে সর্বসম্মতিক্রমে ৩৭০ ধারা বাতিল করা হয়, অথচ এক বিভেদকামী শক্তি কাশ্মীরে অশান্তি সৃষ্টি করতে চাইছেঃ উপরাষ্ট্রপতি এম ভেঙ্কাইয়া নাইডু

অমল গুপ্ত,  গুয়াহাটি

সর্দার  বল্লভ ভাই প্যাটেল, মহাত্মা গান্ধী, নেতাজী সুভাষ চন্দ্র বসু প্রমুখ ভারতকে ঐক্য সংহতি, একতার সূত্রে বেঁধেছেন, দেশের অখণ্ডতা রক্ষা করতে ৩৭০ ধারা বাতিল করে জম্মু কাশ্মীর লাদাখকে এক সূত্রে গাঁথা হয়েছে। সংবিধান মেনে গণতান্ত্রিক পরম্পরা মেনে সংসদে তা পাশ করা হয়েছে। সংখ্যাগরিষ্ঠতা না থাকা সত্তেও রাজ্যসভাতেও  সর্বসম্মত ৩৭০ ধারা বিলুপ্তির বিলটি পাশ হয়েছে। এরপরেও দেশের কিছু মানুষ এর বিরোধিতা করছে, আভ্যন্তরীণ পরিবেশ বিনষ্ট করছে। আজ গুয়াহাটিতে ২১ তম উত্তর পূর্ব গ্রন্থমেলা উদ্বোধন করে দেশের উপরাষ্ট্রপতি এম ভেঙ্কাইয়া নাইডু এই মন্তব্য করেন। 

কাশ্মীর প্রসঙ্গে আরও বলেন, এক বিভেদকামী শক্তি বাইরে থেকে অর্থ এনে, ধর্মের ভিত্তিতে কাশ্মীরে অশান্তি করতে চাইছে। আমাদের এক দেশ, এক জাতি এক মিশনকে বিফল করার চক্রান্ত করতে চাইছে, তা কোনও দিন সফল হবে না। অসমের ভাষা   কৃষ্টি সংস্কৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে মাতৃভাষার উপর গুরুত্ব আরোপ করে বলেন,আমাদের প্রত্যেককে বাড়িতে মাতৃভাষাতে কথা বলা উচিত। ঘরে বাইরে মাতৃভাষাতে কথা  বলতে হবে। প্রথম ভাষা হিসাবে মাতৃভাষা,পরে হিন্দি,ইংরেজি প্রভৃতি ভাষাতে কথা বলা যেতে পারে। স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন,তিনি কোনও ভাষার বিরুদ্ধে নন। গ্রন্থমেলার   প্রয়োজনের কথা বলেন। 


যুব প্রজন্মের মধ্যে বই পড়া কমে যাওয়ায় উদ্বেক প্রকাশ করে উপ রাষ্ট্রপতি বলেন, ইন্টারনেটের উপর নির্ভরশীলতা বেড়েছে। অথচ সোশ্যাল মিডিয়ায় বহু ভুয়ো খবর পরিবেশন করা হয়। তিনি প্রতি জেলাতে গ্রন্থমেলা আয়োজন করতে বলেন। এছাড়া ধর্ম ভাষা জাতপাত নির্বিশেষে প্রতিটি জনগোষ্ঠীর সম্প্রীতি সুদৃঢ়  করতে প্রতি গ্রামে সেবালয়, দেবালয় এবং গ্রন্থাগার স্থাপনের পরামর্শ দেন। বলেন দেবালয় মানে হিন্দু ধর্ম নয়,সব ধর্মের মানুষ এক সাথে বসে প্রাৰ্থনা করতে পারবে এমন প্রাৰ্থনা স্থলের কথা বলছি। প্রতিদিন এবং সাদিন গোষ্ঠীর কর্ণধার জয়ন্ত বরুয়াকে পণ্ডিত শশী চন্দ্র বুজর বড়ুয়া স্মৃতি পুরস্কার তুলে দেন উপরাষ্ট্রপতি। মুখ্যমন্ত্রী সর্বানন্দ সনোয়াল, রাজ্যপাল জগদীশ মুখী প্রমুখ ভাষণ দেন। পাবলিশার্স এবং বুক সেলার্স-এর পক্ষ্যে সভাপতি ইমরান আহমেদ উপ রাষ্ট্রপতিকে সংবৰ্ধনা জানান। শিক্ষামন্ত্রী, মুখ্যমন্ত্রীর মিডিয়া উপদেষ্টা ঋষিকেশ গোস্বামী প্রমুখ চাঁদমারী ময়দানের গ্রন্থমেলার উদ্বোধনী সভায় উপস্থিত ছিলেন।

No comments

Powered by Blogger.