Header Ads

ওম শিব আশ্রমের ১৩তম প্রতিষ্ঠা দিবস সম্পন্ন

দেবযানী পাটিকর, গুয়াাহাটিঃ ‘যদি তোর ডাক শুনে কেউ না আসে তবে একলা চলো রে’- কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর বলেছেন যে অপরের সহায়তা না থাকলেও যাত্রী যেন তার যাত্রা বন্ধ না করে। ওম শিব আশ্রমের প্রতিষ্ঠাতা ওম দেব তাঁর যাত্রা শুরু করেছিলেন ওম শিব আশ্রম স্থাপনের মধ্য দিয়ে। বর্তমানে এই আশ্রম ১৩ বছর পার করে ১৪তে পা দিয়েছে। তার পরিবারও হয়েছে বড়। সপ্তাহ দুয়েক আগে ১৩ মাইলের তমুলকুচিতে অবস্থিত ওম শিব আশ্রম ও শ্রীখুম্বা বিদ্যাপীঠের স্থাপন দিবস পালিত হয়। ১০ দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের শুরু হয় ১১ জানুয়ারি। রবিবার অন্তিম দিনে বিভিন্ন কার্যক্রমের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠান শেষ হয়। প্ৰসঙ্গত, ওম শিব আশ্রমের স্থাপন ২০০৬ সালে হয়েছিল। বর্তমানে এই আশ্রমের অন্য একটি শাখা কার্বি আংলঙ্গের হাবাঙ্গে রয়েছে দুটো আশ্রম মিলিয়ে প্রায় ৪০জন অনাথ শিশু রয়েছে। ওদিকে তামুলপুরের আশ্রমের পরিসরেই তৈরি হচ্ছে অনাথ ছেলে মেয়েদের থাকার জন্য একটি গৃহ। সমাজের কিছু উদার ও পরপোকারী লোকেরা সাহায্যের হাত এগিয়ে দিয়েছেন। তাদের আৰ্থিক সহায়তায় তৈরি হচ্ছে এই গৃহ। খুব শিঘ্ৰই গৃহ নিৰ্মাণের কাজ শেষ হবে, জানিয়েছেন এ প্রজেক্টের সঙ্গে জড়িত সিদ্ধার্থ শংকর দে। তিনি বলেন- অনাথ ছেলে মেয়েদের জন্য তৈরি এই আশ্রমে সবাই যাতে নিরাপদে থেকে ভাল সংস্কার নিয়ে সমাজ ও দেশের উন্নতির কাজ করতে পারে তার প্রচেষ্টা চলছে। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ভারত সেবাশ্রম সংঘের স্বামীজী পূর্ণব্রতানন্দ মহারাজ। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন - সত্যের প্রাপ্তি আমাদের প্রকৃত আনন্দ দেয়। সত্যের আরাধনা করাই হল ভক্তি। আর ভক্তির পথেই ভগবানকে পাওয়া যায়। গৌহাটি হাইকোর্টের প্রবীণ আইনজীবী সিদ্ধার্থ শঙ্কর দে বলেন- উত্তম জীবন তাদেরই প্রাপ্ত হয় যারা অন্যের উপকার করে সুখ অনুভব করে। শ্ৰেষ্ঠ কাজের দিকে সমাজকে প্রেরিত করার জন্য কাজ করা দরকার। আমরা যতই প্রাণীহিতের জন্য প্ৰতিশ্ৰুতিবদ্ধ হব ততই আমাদের বৌদ্ধিক ও আত্মিক উত্থান হবে। প্রত্যেক ব্যক্তি সমাজের এক গুরুত্বপূর্ণ অংগ, শিক্ষা ব্যক্তিকে সৎ, চিত আর আনন্দের অনুভব করায়। ওম শিব আশ্রম ও শ্রীখুম্বা বিদ্যাপীঠের প্রতিষ্ঠাতা ওম দেব নিজের অনুভব ব্যক্ত করে বলেন- যোগ আর ধ্যানের কথা। তিনি বলেন- তিনি কঠিন পরিশ্রম ও অধ্যবসায়ের মাধ্যমে নিজের লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে চলেছেন। অনেক সমস্যার সম্মুখীন তাঁকে হতে হয়েছে। আরও বহুদূর চলতে হবে। অনুষ্ঠানে ভজন পরিবেশন করেন প্রামাক্ষী দেব। অনুষ্ঠানে গুয়াহাটির রিদীপ দাস, শিলংয়ের প্ৰবীণ আইনজীবী বিভান কিনটা, লায়ন্স ক্লাব গুয়াহাটির অনমলের বরখা আগরওয়াল ও প্রেম প্রকাশ শাহ, ওম শিব আশ্রম গুয়াহাটির সভাপতি অরুণা ঠাকুরী, বৰ্ণিহাটের মহেন্দ্র গার্গ, শিলংয়ের নিলেশ টাইব্রিয়াল, শিলংয়ের শ্রীখুম্বা সেবা সমিতির সভাপতি রাধিকা সুব্বা, সহ এলাকার তথা শিলং ও কার্বি আংলং, অরুণাচল প্রদেশ, এন সি হিল, মণিপুর, মেঘালয়, অসম ও নাগাল্যান্ড থেকে আসা বহু গণ্যমান্য ব্যক্তি উপস্থিত ছিলেন।

No comments

Powered by Blogger.