Header Ads

গোয়ালপাড়ার ডিটেনশন ক্যাম্পে ২৭ জন ‘ডি’ ভোটার আমরণ অনশনে সামিল, কয়েকজনের শারীরিক অবস্থার অবনতি


বিক্ৰমজিৎ সরকার, গোয়ালপাড়া
১৯৯৭ সালের পর থেকে অসমে বাংলাভাষি হিন্দু-মুসলিম সংখ্যালঘু একাংশ মানুষদের নামের পাশে ‘ডি' চিহিত করে ভোটাধিকার হরন করা হয়েছে। ‘ডি' অৰ্থাৎ ডাউটফুল অথবা ডিসপিউটেড ভোটার অথচ ভোট দানের অধিকার নেই। যার নজির ভূভারতে নেই। বিদেশী ট্ৰাইব্যুনালগুলি বিচারের নিরপেক্ষতা নিয়ে প্ৰশ্ন তুলেছে মানবাধিকার সংগঠনগুলি। সেই ট্ৰাইব্যুনালের বিচারে প্ৰকৃত ভারতীয় নাগরিক হওয়া সত্বেও এক বৃহৎ সংখ্যক সংখ্যালঘু মানুষকে ‘ডি' ভোটার সাজিয়ে তথাকথিত ডিটেনশন ক্যাম্পের জেলখানার অন্ধকার কুঠুরিতে ঠেলে দেওয়া হচ্ছে। কেন্দ্ৰীয় স্বরাষ্ট্ৰমন্ত্ৰক পৰ্যন্ত জেলখানার অপরাধীদের সঙ্গে ‘ডি' ভোটারদের বন্দী করে রাখায় ক্ষোভ প্ৰকাশ করেছে। দেশ বিদেশের মানবাধিকার সংগঠনগুলিও হাজার অভিযোগকেও সরকার গুরুত্ব দিচ্ছে না। প্ৰধানমন্ত্ৰী নরেন্দ্ৰ মোদি অসমে এসে ঘোষণা করেছিলেন ১৬ মে'র পর রাজ্যের সব ডিটেনশন ক্যাম্প গুঁড়িয়ে দেওয়া হবে। প্ৰতিশ্ৰুতি রক্ষা করেন নি। রাজ্যের ৬ টি জেলে ১০০০ র বেশি ‘ডি' ভোটারকে বন্দী করে রাখা হয়েছে। যাদের মধ্যে ৯০ শতাংশ ভারতীয় নাগরিক বলে প্ৰাক্তন মুখ্যমন্ত্ৰী তরুণ গগৈ দাবি করেছিলেন। এন আর সি কৰ্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ‘ডি' ভোটারদের সন্তান-সন্ততিদেরও এন আর সি তালিকায় নাম উঠবে না। এইসব ক্যাম্পের বন্দীদের ঠিকমতো খাওয়া দাওয়ার ব্যবস্থা নেই, পোশাক পরিচ্ছদ দেওয়া হয় না, চিকিৎসার ভালো ব্যবস্থা নেই, শৌচাগারের অবস্থাও খারাব বলে জাতীয় পৰ্যায়ের মানবাধিকার সংগঠনগুলো অভিযোগ করেই যাচ্ছে। গোয়ালপাড়া ডিটেনশন ক্যাম্পে বন্দীরা পুনরায় আমরণ অনশন শুরু করেছে। গোয়ালপাড়া ক্যাম্পে মোট ২০৮ জন কারাবন্দী ‘ডি’ ভোটার আছে। তার মধ্যে আজ পৰ্যন্ত ২৭ জন ‘ডি' ভোটার আমরণ অনশনে সামিল হয়েছে। অনেককে বুঝিয়ে সুঝিয়ে অনশন থেকে বিরত করা হয়েছে। বেশ কয়েকজনের শারিরীক অবস্থার অবনতি ঘটেছে। এর আগেও এই জেলে ‘ডি' ভোটাররা আমরণ অনশনে সামিল হয়েছিল। তারা দাবি করেছে, ভারতীয় নাগরিকত্বের সব প্ৰমাণ নথিপত্ৰ তাদের হাতে আছে। তাদের আত্মপক্ষ সমৰ্থনের সুযোগ দিতে হবে। একপক্ষীয় রায়ে তাদের জেলে ভরে দেওয়া হয়েছে। পূর্ব গোয়ালপাড়া কেন্দ্ৰের কংগ্ৰেস বিধায়ক এ.কে.রশিদ আলম এবং রূপহীহাট কেন্দ্ৰে কংগ্ৰেস বিধায়ক নুরুল হুদার নেতৃত্বে সাংবাদিক সাহজাহান তালুকদার এবং সাংবাদিক শাকিল আহমেদ আজ ডেপুটি কমিশনার বর্ণালী ডেকার সঙ্গে সাক্ষাৎ করে কারাবন্দী অনশনকারীদের সাক্ষাৎএর অনুমতি চান। কিন্তু  ডেপুটি কমিশনার সরকারের এক নির্দেশে র কথা জানিয়ে বলেছেন রাজনীতিবিদ এবং সাংবাদিকদের কারাবন্দীদের সঙ্গে দেখা করার নিষেধ আছে।

No comments

Powered by Blogger.