Header Ads

সংবিধানে ষষ্ট তশিলির ১২৩ সংশোধনী বিল ২০১৫ নিয়ে আপত্তি তুলল ষষ্ট তপশিলি রূপায়ন কমিটি


বিপ্লব দেব
হাফলংঃ  ভারতীয় সংবিধানের ষষ্ট তপশিলি তুলে দিয়ে ভিলেজ কাউন্সিল গঠন করে পঞ্চায়েত রাজ নিয়ে আসার জন্য লোকসভার আগামী শীতকালীন অধিবেশনে সরকার যে প্রস্তাবিত ভারতীয় সংবিধানের ষষ্ট তপশিলির ১২৩ সংশোধনী বিল ২০১৫ পাস করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে এতে অনেক গলদ রয়েছে বলে অভিযোগ তুলেন  হাফলঙের প্রবীন নাগরিক তথা ষষ্ট তপশিলি রূপায়ন কমিটির সভাপতি বহিম চন্দ্র লাংথাসা। বুধবার সন্ধ্যায় শৈল শহর হাফলঙের এক হোটেলে সাংবাদিক সন্মেলন ডেকে বহিম চন্দ্র লাংথাসা বলেন লোকসভার আগামী শীতকালীন অধিবেশনে সংবিধানের ষষ্ট তপশিলির ১২৩ সংশোধনী বিল ২০১৫ পাস করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ওই বিলে অনেক সংশোধনের প্রয়োজন রয়েছে। বহিমবাবু বলেনু ওই সংশোধনী বিলের মাধ্যমে পাহাড়ি জেলাতে ভিলেজ কাউন্সিল গঠন করে পঞ্চায়েত রাজ কায়েম করার যে চেষ্টা করছে কেন্দ্রীয় সরকার এতে তীব্র আপত্তি রয়েছে ষষ্ট তপশিলি রূপায়ন কমিটির। বহিম লাংথাসার মতে এই বিলে এমন কিছু বিষয় রয়েছে যা উপজাতিদের অধিকার কেড়ে নেওয়া হবে। তিনি বলেন ওই সংশোধনী বিল থেকে অনেক ক্লজ তুলে নেওয়ার জন্য সরকারের কাছে অনেক বার স্মারকপত্র দেওয়ার পরও এনিয়ে সরকার কোন পদক্ষেপ এই সংশোধনী বিল নিয়ে উত্তর কাছাড় পার্বত্য পরিষদ কর্তৃপক্ষ যে খসড়া প্রস্তাব পাঠিয়েছিল এতে উল্লেখ ছিল ভিলেজ কাউন্সিল হলে ভোটে শুধু উপজাতি জনগোষ্ঠীর মানুষ দাঁড়াতে পারবে এবং এবং ভোটাধিকার থাকবে শুধু উপজাতি জনগোষ্ঠীর মানুষের কিন্তু কেন্দ্রীয় সরকার এই গুলি বাদ দিয়ে এই বিল পাস করাতে চাইছে আর এখানেই আপত্তি ষষ্ট তপশিলি রূপায়ন কমিটির। সাংবাদিক সন্মেলনে মার পিপোল ইউনিয়নের সভাপতি এইচ কে হেইথাও বলেন কেন্দ্রীয় সরকার সংবিধানের ষষ্ট তপশিলির ১২৩ সংশোধনী ২০১৫ পাস করিয়ে উপজাতি ষষ্ট তপশিলির অধিকার খর্ব করার চেষ্টা করছে তিনি অভিযোগ করে বলেন এই সংশোধনী বিলের মাধ্যমে উপজাতি জনগোষ্ঠীর মানুষের জমির অধিকার ও কেড়ে নেওয়ার চেষ্টা চলছে যা কোনও অবস্থায় মেনে নেওয়া হবে না তাই সরকার এই বিল নিয়ে এখনই উপযুক্ত ব্যবস্থা গ্রহন না করে তাহলে ষষ্ট তপশিলি রূপায়ন কমিটি এনিয়ে তীব্র আন্দোলন গড়ে তুলবে বলে সাংবাদিক সন্মেলনে মন্তব্য করেন এইচ কে হেইথাও। তাই  সংবিধানের ষষ্ট তপশিলির ১২৩ সংশোধনী বিল ২০১৫ থেকে পাহাড়ের উপজাতি জনগোষ্ঠীর অধিকার খর্ব হওয়ার যে সব ক্লোজ রয়েছে তা বাদ দেওয়ার জড়ালো দাবি জানানো হয়। এদিনের সাংবাদিক সন্মেলনে অনান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন কুকি ইনপি আসামের সম্পাদক এস গুইতে ও রাংখল এপেক্স বডি রাংখল হালম দেওয়ানের সম্পাদক এস রাংখল।

No comments

Powered by Blogger.