Header Ads

ইতিহাস মনে না রাখলে কোন জনগোষ্ঠীর উন্নয়ন সম্ভব নয় : পরিমল শুক্লবৈদ্য


বিপ্লব দেব, হাফলংঃ কোনও জাতি জনগোষ্ঠী যদি নিজের ইতিহাস কে মনে না রাখে তাহলে সেই জাতি বা জনগোষ্ঠীর উন্নয়ন কোনও দিনই সম্ভব নয় তাই হারাঙ্গাজাওয়ে রাজকুমারী দিসরুর প্রতিমূর্তি স্থাপন করে ডিমাসা জনগোষ্ঠীর ইতিহাসকে সবার সামনে তুলে ধরলেন ডিমা হাসাও বাসী বলে মন্তব্য করেন রাজ্যের বন ও আবগারি মন্ত্রী পরিমল শুক্লবৈদ্য। শনিবার হারাঙ্গাজাওয়ে  ডিমাসা রাজ কন্যা দিসরুর ১২ ফুট উচ্চতার প্রতিমূর্তির আনুষ্ঠানিক ভাবে উন্মোচন করে হারাঙ্গাজাও খেলার মাঠে এক সভায় মন্ত্রী পরিমল শুক্লবৈদ্য বলেন ডিমা হাসাও বাসীর জন্য আজ এক ঐতিহাসিক দিন। আজকের এই দিনটি নবপ্রজন্ম চিরকাল মনে রাখবে বলে মন্তব্য করে মন্ত্রী বলেন যেখানে মানব সভ্যতা বিদ্যমান এবং উন্নয়ন প্রকৃতি ও জৈব্য বৈচিত্র রয়েছে সেখানে রয়েছে ঈশ্বরের বাস। আর ঈশ্বরই আমাদের জীবশ্রেষ্ট করে পাঠিয়েছেন। মানুষকে বেঁচে থাকতে হলে জৈব্য বৈচিত্রের প্রয়োজন। আর যারা মানুষ তারা জীবশ্রেষ্ট এ কথাই ভেবে ছিলেন রাজকন্যা দিসরু বলে উল্লেখ করেন পরিমল শুক্লবৈদ্য। ডিমাসা রাজকন্যা দিসরু সমাজ ব্যবস্থাকে সভ্যতার দিকে নিয়ে গিয়ে মহিলাদের স্বভিমান রক্ষা করা থেকে শুরু করে মহিলাদের উন্নয়নে কাজ করে গিয়েছেন। এবং সমাজকে সঠিক দিশায় এগিয়ে নিয়ে যেতে রাজকুমারী দিসরুর অবদান অনস্বীকার্য তিনি বলেন দিসরু শুধু রাজ পরিবারের সঙ্গে যুক্ত ছিলেন তিনি এর বাইরে সাধারন মানুষের সঙ্গে সামাজিক কাজে অতঃপ্রোত ভাবে জড়িয়ে ছিলেন বলে সভায় মন্তব্য করেন মন্ত্রী পরিমল শুক্লবৈদ্য।
রাজকুমারী দিসরুর প্রতিমূর্তিতে শ্রদ্ধা জানাচ্ছেন মন্ত্রী পরিমল শুক্লবৈদ্য
এদিন ভাষন প্রসঙ্গে রাজ্যের বনমন্ত্রী বলেন যোগাযোগ ব্যবস্থা থেকে শুরু করে স্বাস্থ্য শিক্ষা সব ক্ষেত্রেই উত্তর কাছাড় পার্বত্য স্বশাসিত পরিষদ কাজ করে চলছে। তাছাড়া অসমের অন্যতম পাহাড়ি জেলাতে দেশ-বিদেশের পর্যটকরা এসে কিভাবে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য উপভোগ করতে পারে এরজন্য পাহাড়ি জেলার যোগাযোগ ব্যবস্থাকে উন্নত করার চেষ্টা চলছে। তাছাড়া এই পাহাড়ি জেলাকে অসমের অন্যতম পর্যটন কেন্দ্রস্থল হিসেবে গড়ে তুলতে রাজ্যসরকারের সঙ্গে মিলে পার্বত্য পরিষদ নিরলস কাজ করে চলছে বলে মন্তব্য করেন পরিমল শুক্লবৈদ্য। সভায় বিজেপি কাছাড় জেলা বিজেপির সভাপতি কৌশিক রাই বলেন রাজকুমারী দিসরুর প্রচন্ড দূরদর্শীতা ছিল। তাই আজকের নবপ্রজন্ম যাতে রাজকন্যাকে মনে রাখতে পারে তার জন্য রাজকুমারী দিসরুর যে মর্মর মূর্তি স্থাপন করা হয়েছে তা অতি প্রশংসনীয়। রাজ্যের বনবিভাগের পি সি সি এফ এন কে বাসু ডিমা হাসাওকে দেবভূমি হিসেবে অভিহিত করেন। এদিকে অনুষ্ঠানে অনান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উত্তর কাছাড় পার্বত্য স্বশাসিত পরিষদের সিইএম দেবোলাল গার্লোসা পরিষদের চেয়ারপার্সন রানু লাংথাসা ইএম আমেন্দু হোজাই প্রমুখ। এদিন রাজকুমারী দিসরুর প্রতিমূর্তি উন্মোচনে অনান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বিজেপি ডিমা হাসাও জেলা কমিটির সভাপতি নিপোলাল হোজাই বিজেপি ধলাই মন্ডল কমিটির সভাপতি শশাঙ্ক শেখর পাল ভূষন পাল কাছাড় কলেজের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক বিধান চন্দ্র ভট্টচার্য ও সুনিত কুমার বর্মন।

No comments

Powered by Blogger.