Header Ads

মমতাকে অসমের বাঙালিদের জন্য চিন্তা করতে হবে না, অসমীয়ারা বাঙালিদের কথা চিন্তা করেঃ কিরিপ চলিহা

উসকানিমূলক মন্তব্য করে আতঙ্ক না ছড়ানোর জন্য রাজ্যবাসীর কাছে আবেদন জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্ৰী সৰ্বানন্দ সনোয়াল 

গুয়াহাটিঃ শিলচর বিমান বন্দরে গতকাল পশ্চিমবঙ্গের মমতা টীমের কাণ্ডকে ঘিরে রাজ্যের বৈদ্যুতিন মাধ্যম এবং ছাপা মাধ্যমের তীব্ৰ প্ৰতিক্ৰিয়ার সৃষ্টি হয়েছে। সংবাদমাধ্যম বিশেষ করে তৃণমূল বিধায়িকা মহূয়া মৈত্ৰের আচরণের তীব্ৰ নিন্দা করেছে। বৈদু্যতিন মাধ্যমে সতৰ্কবাৰ্তার মতো বলা হেচ্ছ, ‘‘অসমে দিদির দাদাগিরি চলবে না।'' মমতা টীমের কাণ্ড কারখানার প্ৰতিবাদে তৃণমূল কংগ্ৰেসেরই রাজ্য সভাপতি দ্বীপেন পাঠকের পদত্যাগের পর আজ দলের সাধারণ সুব্ৰত সরকারও পদত্যাগ করেন। দ্বীপেন পাঠকের অভিযোগ করিমগঞ্জের কংগ্ৰেস বিধায়ক কমলাক্ষ দে পুরকায়স্থের আমন্ত্ৰণ ক্ৰমে তৃণমূলের দলটি বরাক সফরে এসেছিল। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্ৰী মমতা বেনাৰ্জি অসম সম্পৰ্কে সাম্প্ৰদায়িক প্ৰরোচনমূলক  মন্তব্য করেছেন। তৃণমূলের বৰ্তমান সাধারণ সম্পাদক সোনারুল শাহ মোস্তাফা অবশ্য বলেন, সুব্ৰত সরকার বৰ্তমানে দলের কেউই নন। গণতান্ত্ৰিক দেশে যে কোনও রাজ্যের প্ৰতিনিধি যে কোনও জায়গা সফরে আপত্তি থাকার কথা নয়। বরাক উপত্যকার ডিআইজি মুকেশ আগরওয়ালা আজ আবার বলেছেন, ‘‘তৃণমূল প্ৰতিনিধি দলটির সঙ্গে পুলিশ ভালোই ব্যবহার করেছিল, হাতজোড় করে অনুনয় বিনয়ও করেছিল, ১৪৪ ধারা জারি থাকা স্পৰ্শকাতর শিলচর শহরে না ঢোকার অনুরোধ জানানো হয়েছিল। তারপরেও পুলিশের সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়ে, দুই জন পুলিশ কনষ্টেবল সামান্য আহত হন।'' আজ সংসদে কেন্দ্ৰীয় স্বরাষ্টমন্ত্ৰী রাজনাথ সিংও একই কথা বলেছেন, তৃণমূলের প্ৰতিনিধি দলের সঙ্গে পুলিশ ভালো ব্যবহার করেছিল। আজ কংগ্ৰেসের প্ৰাক্তন সাংসদ কিরিপ চলিহা পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্ৰী মমতা বেনাৰ্জির সমালোচনা করে বলেন, তাঁর সাম্প্ৰাদায়িক উসকানিমূলক মন্তব্য করা উচিত হয় নি। অসমের বাঙালিদের জন্য চিন্তা করতে হবে না। রাজ্যের অসমীয়ারা বাঙালিদের কথা চিন্তা করে। মমতা বেনাৰ্জির হাতে অসম সম্পৰ্কে প্ৰকৃত কোনও তথ্য নেই। অসমের প্ৰাক্তন মুখ্যমন্ত্ৰী তরুণ গগৈ এন আর সির কাজ আরম্ভ করেছিলেন। তিনি আজ সাংবাদিক সন্মেলনে স্বীকার করেন, রাজ্যের বহু বাংলাভাষি মানুষ নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছে। আসুর নাম না করে কিরিপ চলিহা বলেন, এন আর সির চূড়ান্ত তালিকা প্ৰকাশের আগে মিস্টি খাওয়া চলছে, এন আর সির কৃতিত্ব নেওয়ার প্ৰতিযোগিতা চলছে। এখনও এন আর সির চূড়ান্ত তালিকা প্ৰকাশ হয় নি। বহু মানুষের নাম বাদ পড়েছে। তিনি বলেন, বিদেশী সমস্যা শুধু অসমের নয়, সারা দেশের সমস্যা। কিন্তু এন আর সি নিয়ে নানা অপপ্ৰচার চলছে। অসমের সুরক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্ৰী ঘৃণ্য রাজনীতি করছেন বলে মন্তব্য করেন শিল্প বাণিজ্যমন্ত্ৰী চন্দ্ৰমোহন পাটোয়ারী। তৃণমূলের প্ৰতিনিধি দলটি পুলিশের সঙ্গে দূৰ্ব্যবহার করেছেন। শালীনতার সীমা ছাড়িয়ে গেছে। অসম পশ্চিমবঙ্গের মতো নয়। এখানে সব জনগোষ্ঠীর মধ্যে, সম্প্ৰদায়, ভাষাভাষির মধ্যে মিলন প্ৰীতি আছে। সেই জনমতের বিরুদ্ধে গিয়ে ঘৃণ্য রাজনীতি করছেন মমতা। আইন হাতে তুলে নিলে অসম সরকার কাউকে সহ্য করবে না। অসমকে অশান্ত হতে দেওয়া হবে না। তৃণমূল রাষ্ট্ৰীয় নিরাপত্তার কথা চিন্তা না করে দলের রাজনীতি মুনাফার কথা চিন্তা করেছে। অসমে সাম্প্ৰদায়িক বীজ বপন করতে চাইছে। অসমে শান্তিপ্ৰীয় মানুষের মধ্যে অশান্তি ছড়ানো হলে সরকার কঠোর স্থিতি অবলম্বন করবে বলে তৃণমূল দলকে চন্দ্ৰমোহন হুঁসিয়ারি দেন।মুখ্যমন্ত্ৰী সৰ্বানন্দ সেনোয়াল উসকানিমূলক মন্তব্য করে আতঙ্ক না ছড়ানোর জন্য রাজ্যবাসীর কাছে আবেদন জানিয়েছেন।  

1 comment:

  1. হুম, নেলীর কথা এখন কারো মনে নেই মনে হচ্ছে ।

    ReplyDelete

Powered by Blogger.