Header Ads

শিলচর-সৌরাষ্ট্র ইষ্ট-ওয়েষ্ট করিডর নির্মান কাজের গুনগত মান নিয়ে ব্যাপক অভিযোগ উঠতে শুরু করেছে



বিপ্লব দেবঃ হাফলং ডিমা হাসাও জেলার মুপার কাছে মহাসড়কের চারলেন রাস্তা নির্মান কাজ সম্পূর্ণ করার একমাসের মধ্যেই রাস্তার বিভিন্ন অংশে বিশাল বিশাল ফাটল দেখা দিয়েছে। এনিয়ে এবার বড়াইল পাহাড়ের মধ্য দিয়ে চলতে থাকা শিলচর-সৌরাষ্ট্র ইষ্ট-ওয়েষ্ট করিডর নির্মাণ কাজের গুনগত মান নিয়ে ব্যাপক অভিযোগ উঠতে শুরু করেছে। বিশেষ করে মহাসড়কের কাজে যুক্ত এনকেসি নির্মান সংস্থার কাজের গুনগত মান নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। মুপার কাছে চারলেন রাস্তা নির্মাণ কাজের দায়িত্বে রয়েছে এনকেসি নির্মাণ সংস্থা গত একমাস আগে মুপায় চারলেন রাস্তার নির্মাণ কাজ সম্পূর্ণ করে এনকেসি নির্মাণ সংস্থা রাস্তার দায়িত্ব তুলে দেয় জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষ (নাহাই)-র হাতে কিন্তু রাস্তা নির্মাণের একমাসের মধ্যেই রাস্তার বিভিন্ন অংশে বিশাল বিশাল ফাটল দেখা দিয়েছে একমাত্র নিম্নমানের কাজের দরুন রাস্তা বিভিন্ন অংশ ফেঁটে চৌচির হয়ে যাচ্ছে।  এবার এই ফাটল ঢাকতে তার উপর হালকা পিচের প্রলেপ দেওয়ার চেষ্টা করছে এনকেসি নির্মাণ সংস্থা। দীর্ঘদিন থেকে নির্মাণ সংস্থা এনকেসির বিরুদ্ধে নিম্নমানের কাজ করার অভিযোগ রয়েছে কিন্তু তারপরও জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষ (নাহাই) এনকেসি নির্মাণ সংস্থার বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা গ্রহন করছেনা বলে অভিযোগ। এমনকি বারবার এনকেসি নির্মাণ সংস্থার বিরুদ্ধে নিম্নমানের কাজ করার অভিযোগ উত্থাপিত হয়ে আসার পর ও কেন্দ্র বা রাজ্যসরকার ওই নির্মাণ সংস্থার বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নিচ্ছেনা যা নিয়ে স্থানীয় মানুষের মধ্যে তীব্র ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। শুধু মুপা নয় মাইবাঙের পর ইনরিম বাংলো থেকে জাটিঙ্গা পর্যন্ত অংশে এনকেসির নিম্নমানের কাজের দরুন চারলেন সম্পূর্ণ নিশ্চিহ্ন হয়ে যায়। নিম্নমানের গার্ড ওয়াল তৈরী করার দরুন পাহাড় ধসে চারলেন রাস্তা সম্পূর্ণ নিশ্চিহ্ন হয়ে পড়ে তারপরও এনকেসি নির্মাণ সং এনকেসি নির্মাণ সংস্থার বিরুদ্ধে কোনও পদক্ষেপ গ্রহন করতে দেখা যায়নি নাহাইকে আর এতেই বোপোরয়া হয়ে উঠেছে এনকেসি নির্মাণ সংস্থা নিজের মর্জি মাফিক সরকারী গাইড লাইন না মেনে নিজের খেয়াল খুশি মত কাজ করছে বলে অভিযোগ করেন স্থানীয় বাসিন্দারা। এভাবে সরকারী গাইড লাইন না মেনে নিজের মর্জি মাফিক কাজ করা এনকেসি নির্মাণ সংস্থার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহন করার জন্য কেন্দ্র ও রাজ্য সরকারের কাছে দাবি জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। 

No comments

Powered by Blogger.