Header Ads

মাছে নিষেধাজ্ঞার ফলে ১০ দিনে লোকসান হবে ৩০ কোটি টাকা


গুয়াহাটিঃ আমদানিকৃত চালানি মাছ আমদানির উপর ১০ দিনের নিষেধাজ্ঞা আরোপের ফলে মাছের বাজারে হাহাকারের সৃষ্টি হয়েছে। চাহিদা অনুযায়ী রাজ্যে মাছ উৎপাদিত হয় নি। রাজ্যে ব্ৰহ্মপুত্ৰ নদ ও বরাকের মতো বিশাল নদী এবং ৫৩ টি উপনদী থাকা সত্বেও মাছ উৎপাদনে রাজ্য অনেক পিছিয়ে আছে। অন্ধ্ৰপ্ৰদেশ, উত্তর প্ৰদেশ, পশ্চিমবঙ্গ, চেন্নাই প্ৰভৃতি রাজ্য থেকে অসমে বছরে প্ৰায় হাজার কোটি টাকার মাছ আমদানি করা হয়। বছরে ৩৪৬ হাজার মেট্ৰিকটন মাছের প্ৰয়োজন। ১০ দিন মাছের উপর নিষেধাজ্ঞার ফলে মাছ ব্যবসায়ীদের প্ৰায় ৩০ কোটি টাকা লোকসান হবে বলে পাইকারি ব্যবসায়ীরা আজ অভিযোগ করেছে। মাছকে তাজা ও সতেজ রাখার জন্য বিষাক্ত রাসায়নিক ফরমালিন ব্যবহারের অভিযোগ বহুদিনের। বিশেষজ্ঞ ডাক্তাররা অভিযোগ করেছেন, এই বিষাক্ত মাছ খাওয়ার ফলে পাকস্থলির নানা রোগ ছাড়াও ক্যান্সারের মতো মারণ রোগে আক্ৰান্ত হওয়ার সম্ভাবনা আছে। রাজ্যে মাছের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের ফলে আজ মাছ বাজারগুলিতে হাহাকার অবস্থা। হঠাৎই মাছের দাম কেজি প্ৰতি ৫০-১০০ টাকা করে বেড়ে গেছে। অন্ধ্ৰ প্ৰদেশের মাছ ব্যবসায়ীরা অসমে মাছের সরবরাহ বন্ধ করে দিয়েছে, সেখান থেকে এক প্ৰতিনিধি দল রাজ্যে এসে ফরমালিন ব্যবহারের বিষয়টি নিয়ে রাজ্য সরকারকে অবগত করবে বলে ব্যবসায়ী সূত্ৰে জানা গেছে।

No comments

Powered by Blogger.