Header Ads

২২-শে জুন মেলা উদ্বোধন করবেন মুখ্যমন্ত্ৰী সৰ্বানন্দ সোনোয়াল

কামাখ্যা ধামের অম্বুবাচী মেলায় তীৰ্থযাত্ৰীরা ভীড় জমাতে শুরু করেছে 

গুয়াহাটি ১৯ জুনঃ সবুজ পাহাড় প্ৰকৃতির কোলে মনোরম পরিবেশে, প্ৰায় ৭০০ ফুট উচ্চতায় অবস্থিত, তন্ত্ৰ সাধনা শক্তিপীঠ কামাখ্যা ধামের বিখ্যাত অম্বুবাচী মেলা, দেশ বিদেশের লক্ষ লক্ষ ভক্তপ্ৰাণ মানুষদের সাদর আপ্যায়নের জন্য প্ৰস্তুত৷ দেশের তীৰ্থ চূড়ামণি বলে খ্যাত, উত্তর পূৰ্বাঞ্চলের সিংহদূয়ার গুয়াহাটি মহানগরের উপকণ্ঠে ব্ৰহ্মপুত্ৰ নদের মাথায় নিলাচল পাহাড়ের কোলে কামাখ্যা ধামে ইতিমধ্যে দেশের বিভিন্ন প্ৰান্ত থেকে সাধুসন্তরা ভীড় জমাতে শু করেছেন৷ আর দুদিন বাদেই ২২-শে জুন, ৭-ই আষাঢ় এই মেলা শু হবে৷ আজ কামরূপ মেট্ৰোর ডেপুটি কমিশনার বিনোদ মিট্টাল, গুয়াহাটি মহানগরের পুলিশ কমিশনার হীরেণ নাথ এই মেলার ব্যবস্থাপনা সম্পৰ্কে সাংবাদিক সন্মেলনে জানান, পূণ্যাৰ্থীদের নিরাপত্তার জন্য কড়া ব্যবস্থা গ্ৰহণ করা হয়েছে৷ মেলা প্ৰাঙ্গনের বিভিন্ন স্থানে ৪০০ সিসি টিভি ক্যামেরা বসানো হয়েছে৷ ৫টি শিবির স্থাপন করে প্ৰায় ২ লক্ষ মানুষকে আশ্ৰয় দেওয়ার ব্যবস্থা হয়েছে৷ বিশুদ্ধ পানীয় জলের ব্যবস্থা হয়েছে৷ ৩টি প্ৰধান রাস্তা দিয়ে কামাখ্যা ধামে যাওয়ার ব্যবস্থা হয়েছে, ২২-এ জুন থেকে ৪ দিন রাত ১২টা থেকে ভোর ৫টা পৰ্যন্ত পাহাড়ে উঠা নামার উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে৷ প্ৰতিবন্ধীদের জন্য ১০টি ছোট গাড়ীর ব্যবস্থা হয়েছে৷ এবার পাহাড়ে উঠার জন্য কোনও গাড়ীকে পাশ দেওয়া হবেনা, সরকারী বাস চলবে৷ মেলা প্ৰাঙ্গনে পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতার উপর জোর দেওয়া হয়েছে৷ মেলাতে প্লাষ্টিক সম্পূৰ্ণ নিষিদ্ধ করা হয়েছে৷ পুলিশের সঙ্গে জরী যোগাযোগের জন্য ১০০ নাম্বারের হেপ্ল লাইনের ব্যবস্থা হয়েছে৷ ডেপুটি কমিশনার মিট্টাল এবং পুলিশ কমিশনার হীরেণ নাথ যান বাহন পরিহার করে তীৰ্থযাত্ৰীদের পায়ে হেঁটে কামাখ্যা ধামে যাওয়ার জন্য আবেদন জানিয়েছেন৷ পৰ্যটন নিগমের চেয়ারম্যান জয়ন্তমল্ল বয়া জানান, মুখ্যমন্ত্ৰী সৰ্বানন্দ সোনোয়াল, অৰ্থমন্ত্ৰী হিমন্ত বিশ্ব শৰ্মা এবং পৰ্যটন মন্ত্ৰী চন্দন ব্ৰহ্ম এবং অৰ্ধশতাধিক সাধুসন্ত আগামী ২২-এ জুনে কামাখ্যা ধামে অম্বুবাচী মেলা উদ্বোধন করবেন৷ প্ৰতিবছর অম্বুবাচী মেলায় উত্তর বঙ্গের আলিপুর দূয়ার, কোচবিহার, জলপাইগুড়ি প্ৰভৃতি অঞ্চল থেকে লক্ষ লক্ষ ভক্তপ্ৰাণ মানুষ অম্বুবাচী মেলায় ভীড় জমান৷ প্ৰকৃতাৰ্থে অম্বুবাচী মেলায় এক টুকরো বাংলা উঠে আসে৷

No comments

Powered by Blogger.